ঢাকা | এপ্রিল ১৪, ২০২৪ - ৫:৪৪ অপরাহ্ন

দুর্গাপুরে পুরাতন পুকুর সংস্কার না করতে পারায় দুশ্চিন্তায় মাছ চাষিরা

  • আপডেট: Friday, March 29, 2024 - 9:22 pm

দুর্গাপুর প্রতিনিধি: দেশে আমিষের চাহিদা পূরণে দেশিয় প্রযুক্তিতে যে পরিমাণ মাছ চাষ হয়ে থাকে তার একটি বড় অংশ চাষ হয়ে থাকে রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলায়। সমন্বিত মাছ চাষে গত ১৫ বছরে এ উপজেলায় মাছ উৎপাদন বেড়েছে প্রায় তিন থেকে চারগুণ। ফলে এলাকার মৎস্যচাষিরা যেমন আর্থিকভাবে লাভবান হয়েছেন।

তেমনি মৎস্যচাষের সাথে সম্পৃক্ত হওয়ায় কর্মসংস্থান হয়েছে এ এলাকার কয়েক হাজার মানুষের। এছাড়া পুকুর পাড়ে বিভিন্ন ধরনের গাছ লাগিয়ে কৃষি খাতে উৎপাদন বৃদ্ধির পাশাপাশি আর্থিকভাবেও লাভবান হয়েছেন এ এলাকার মৎস্যচাষিরা। গত বছর ভারী বর্ষণের ফলে নিম্নাঞ্চলের বেশ কিছু পুকুর ডুবে যায়।

ফলে মাছচাষিদের মাথায় হাত পড়ে। দুশ্চিন্তায় কপালে ভাঁজ পড়ে। ওই ক্ষতি পুষিয়ে নিতে মাছচাষিদের বেগ পেতে হয়েছে। এ বছর বর্ষা মৌসুম আসার আগেই পুকুরের পাড় পুনরায় সংস্কার করা না গেলে ফের মোটা অংকের লোকসান গুনতে হবে এমনটিই আশঙ্কা মাছচাষিদের।

আবহাওয়া বিভাগের তথ্যমতে, গত বছরের অক্টোবরের প্রথম দিকে অতিমাত্রায় বৃষ্টিপাত হয়। ৪৮ ঘণ্টায় বৃষ্টিপাতের পরিমাণ দাঁড়ায় ৩০০ মিলিমিটারের বেশি। তবে আবহাওয়া অফিস ২৪ ঘণ্টা করে বৃষ্টির হিসাব করে থাকে। এতে আগেরদিন সকাল ৬টা থেকে পরেরদিন সকাল ৬টা পর্যন্ত ২৪৪ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে বলে রেকর্ড করে। এর আগে রাজশাহীতে টানা এত সময় ধরে বৃষ্টি বিগত ১০ বছরেও হয়নি। ওই বছর ভারী বর্ষণের ফলে সৃষ্ট বন্যায় মাছচাষিদের প্রায় ৫ কোটি টাকার লোকসান হয়েছে।

বিগত বছরে ভারী বর্ষণের ফলে পুকুর ডুবে মাছ ভেসে যাবার দৃশ্য দেখে এ বছর বর্ষা মৌসুম আসার আগেই পুকুরের পাড় নতুন করে সংস্কার করতে চান মাছ চাষিরা। কিন্তু মাছচাষিরা পুরাতন পুকুরের পাড় সংস্কার করতে গিয়ে প্রতিবন্ধকতার শিকার হচ্ছেন। পাড় সংস্কার কাজে ব্যবহৃত এস্কেভেটর মেশিন (ভেকু) ভেঙে দিচ্ছেন, কিংবা অর্থদণ্ড করছেন প্রশাসন। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে পুরাতন পুকুরের পাড় সংস্কার করতে বাধা দেয়া হচ্ছে মাছ চাষিদের বলে জানা গেছে।

গত দুই মাসে পুরাতন পুকুরের পাড় সংস্কারের জন্য উপজেলা প্রশাসনের কাছে আবেদন করছেন প্রায় শতাধিক মাছচাষি। এদের মধ্যে কানপাড়া গ্রামের মজের, তিওরকুড়ি গ্রামের ইব্রাহিম, পালি গ্রামের মুজিবর, চৌপুকুরিয়া গ্রামের ইতি, নারিকেলবাড়িয়া গ্রামের নান্টু, শ্যামপুর গ্রামের কুদ্দুস ও বাজুখলসী গ্রামের মানিক, ইমরান আলী পুরনো পুকুর সংস্কারের জন্য আবেদন করেও অনুমোদন পাননি। ৫ বিঘা থেকে ২০ বিঘা আয়তনের পুকুরে রয়েছে এসব মাছচাষিদের।

এদিকে চৌবাড়িয়া গ্রামের রাকিব তার ১২ বিঘা আয়তনের পুরনো পুকুরের পাড় সংস্কারের আবেদন করেও অনুমোদন পাননি। অনুমোদন না পেয়ে কাজ শুরু করলেও নানান চাপে অবশেষে কাজ শেষ না করেই তাকে এস্কেভেটর মেশিন (ভেকু) গাড়ি তুলে নিতে হয়েছে। রাকিবের মতো অন্য মাছচাষিদেরও বেগ পেতে হচ্ছে পুরাতন পুকুরের পাড় সংস্কারে।

উপজেলা মৎস্য সম্পদ কর্মকর্তা আমিরুল ইসলাম বলেন, বন্যা বা অতিমাত্রায় বৃষ্টিপাতের কারণে পুকুর ডুবে মাছ বা মাছের পোনা ভেসে যাওয়ার ঘটনা নতুন নয়। এ কারণে মাছচাষিদের পুরাতন পুকুরের পাড় সংস্কারের পরামর্শ প্রদান করা হয়ে থাকে। তাছাড়া পুকুরের পাড় উঁচু করা, জাল বা বানা দিয়ে রাখতেও মাছ চাষিদের পরামর্শ দেয়া হয়। বিষয়টি নিয়ে উপজেলা ও জেলা প্রশাসনের সাথে কথা বলবেন বলেও জানান এই কর্মকর্তা।

দুর্গাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা স্বীকৃতি প্রামাণিক বলেন, কেউ কেউ বাণিজ্যিক স্বার্থে মাটি খনন করে বিক্রি করে আসছিলেন, বিধায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে এস্কেভেটর মেশিন (ভেকু) দিয়ে মাটি খনন বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। মাছচাষিদের কথা বিবেচনা করে পুরাতন পুকুরের পাড় সংস্কারের বিষয়টি নিয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে একটা বিহিত করা হবে।

পুরাতন পুকুরের পাড় সংস্কারের প্রয়োজনে কমিটি গঠন করে দেয়া হবে। কমিটি তদন্ত সাপেক্ষে জানাবে কোন পুকুরের পাড় সংস্কার প্রয়োজন। সে পর্যন্ত ধৈর্য ধারনের জন্য মাছচাষিদের আহ্বান জানান ইউএনও স্বীকৃতি প্রামাণিক।

সোনালী/জেআর