ঢাকা | জুলাই ১৭, ২০২৪ - ১:০৮ পূর্বাহ্ন

নদীর স্লুইসগেট বন্ধ করে আওয়ামী লীগ নেতার মাছচাষ

  • আপডেট: Monday, April 11, 2022 - 10:10 pm

দুর্গাপুর প্রতিনিধি: দুর্গাপুরে স্লুইসগেটের পানি প্রবাহ বন্ধ করে দিয়ে মাছচাষ করছেন আওয়ামী লীগের এক নেতা। ওই নেতা স্লুইসগেটে মাটির ভরাট, বালির বস্তা দিয়ে পানির প্রবাহ বন্ধ করে দিয়েছেন। ঘটনাটি উপজেলার কানপাড়ায় মালঞ্চ নদীতে।

স্লুইসগেটে বন্ধ হয়ে যাওয়ায় এবার বর্ষা মৌসুমে এলাকায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হবে। স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা আকবর হোসেন বিপ্লবের এমনকান্ডে এলাকাবাসী তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করছেন। তিনি জয়নগর ইউনিয়নের বাজুখলসী ৭নম্বর ওয়াড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কানপাড়ায় মালঞ্চ নদীর বুকে প্রায় দুই বিঘা জায়গা লিজ নিয়ে মাছচাষ করছেন আওয়ামী লীগ নেতা বিপ্লব। তিনি মুসা আলী নামের একব্যক্তির নিকট হতে ওই নদী লিজ নিয়েছেন। নদীতে মাছচাষের সুবিধার্থে এবার মালঞ্চ নদীর ওপর স্লুইসগেটের পানির প্রবাহ বন্ধ করে দিয়েছেন তিনি। স্লুইসগেটে মাটির ভরাট, বালির বস্তা ও কলাগাছ লাগিয়েছে সে। এতে মালঞ্চ নদীর পানি যাতায়াত বন্ধ হয়ে পড়েছে। এলাকাবাসীর অভিযোগ, এবার বর্ষা মৌসুমে এলাকায় ব্যাপক জলাবদ্ধতা দেখা দিবে।

স্থানীয়রা জানান, আওয়ামী লীগ নেতা বিপ্লব এলাকার প্রভাবশালী ব্যক্তি। তাঁর ভয়ে এলাকায় কেউ মুখ খুলতে পারে না। অল্প কিছু টাকা দিয়ে নদী ঘিরে তিনি মাছচাষ করেন। মাছচাষ করতে গিয়ে এবার তিনি মালঞ্চ নদীর স্লুইসগেটই বন্ধ করে দিয়েছেন। স্লুইসগেট বন্ধ হয়ে যাওয়া এলাকায় জলাবদ্ধতা দেখা দিবে। বাড়ি ঘর রাস্তা ঘাটে পানি উঠবে। তবে ওই নেতা এলাকার প্রভাবশালী হওয়ায় এ ব্যাপারে ভয়ে কেউ প্রকাশ্যে অভিযোগ করতে পারছেন না।

আওয়ামী লীগ নেতা আকবার হোসেন বিপ্লব বলেন, তিনবছর থেকে মুসা নামের একব্যক্তির থেকে ওই জায়গা লিজ নিয়ে মাছচাষ করেন। এবারই মাছচাষের সুবিধার্থে স্লুইসগেটে মুখ বন্ধ করে দিতে হয়েছে। এতে এলাকা জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হবে কী না জানতে চাইলে তিনি বলেন, মাটির ভরাট দিয়ে স্লুইসগেটের মুখ বন্ধ করে দিলেও নিচ দিয়ে পাইপ দেওয়া আছে।

ইউনিয়ন ভূমি অফিস (লক্ষণখলসী) সহকারী ভূমি কর্মকর্তা অহিদুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি এখন গাড়িতে আছি। কথা বলতে পারবো না। এ ব্যাপারে পরে কল দিয়েন।

দুর্গাপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) শুভ দেবনাথ বলেন, এ বিষয়ে এখনো কোন অভিযোগ পাইনি। ওখানকার ইউনিয়ন ভূমি অফিসের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে এ ব্যাপারে জানতে চাওয়া হবে। দ্রুতই মালঞ্চ নদীর ওপর স্লুইসগেটের মুখে ভরাট অপসারণ করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।