ঢাকা | জুলাই ১৩, ২০২৪ - ৯:২৬ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম

রামেকে লিফটে জালিয়াতি করা, সেই ঠিকাদারই পাচ্ছে এসির কাজ

  • আপডেট: Saturday, July 6, 2024 - 11:14 am

স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে লিফ্ট জালিয়াতি প্রমাণিত হওয়ার পরও ব্রাদার্স কনস্ট্রাকশনকে কালো তালিকাভুক্ত করেনি রাজশাহী গণপূর্ত বিভাগ। এবার রাজশাহী সরকারি কর্মকমিশনের (পিএসসি) কার্যালয়ে ৬০ লাখ টাকার শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ যন্ত্র (এসি) ও আনুষঙ্গিক সরঞ্জাম সরবরাহের কাজ সেই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। প্রতিষ্ঠানটির মালিকের নাম সৈয়দ জাকির হোসেন।

গণপূর্তের কর্মকর্তারা বলছেন, কালো তালিকাভুক্ত না হলে যে কোনো প্রতিষ্ঠানের টেন্ডারে অংশ নিতে কোনো বাধা নেই। এক্ষেত্রে ব্রাদার্স কনস্ট্রাকশন পিএসসি কার্যালয়ে এসি সরবরাহ ও স্থাপনের টেন্ডারে অংশগ্রহণ করে। মূল্যায়নে সেই প্রতিষ্ঠান কাজ পেলে তাদের কিছুই করার নেই।

জানা গেছে, সম্প্রতি সরকারি কর্মকমিশন, রাজশাহী কার্যালয়ে আনুষঙ্গিক সরঞ্জামসহ এসি সরবরাহ ও স্থাপনের টেন্ডার হলে ব্রাদার্স কনস্ট্রাকশন তাতে অংশ নেয়।

রাজশাহী গণপূর্ত বিভাগ সূত্র মতে, মূল্যায়ন শেষে এই প্রতিষ্ঠানকেই কাজ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। কয়েক দিনের মধ্যে কার্যাদেশ দেওয়া হবে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে রাজশাহী গণপূর্ত বিভাগ-১ এর নির্বাহী প্রকৌশলী হারুন-অর-রশিদ বলেন, রাজশাহী পিএসসি কার্যালয়ে এসি সরবরাহ ও স্থাপনের জন্য এর আগে তারা দুবার টেন্ডার করেছিলেন। কিন্তু উপযুক্ত ঠিকাদার পাওয়া যায়নি। তৃতীয় দফার টেন্ডারে ব্রাদার্স কনস্ট্রাকশন দরপত্র জমা দেয়। কারিগরি ও আর্থিক মূল্যায়নে প্রতিষ্ঠানটিকে কাজটি দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। যে কোনো দিন কার্যাদেশ দেওয়া হতে পারে।

এই পূর্ত কর্মকর্তার মতে, যতদিন না ব্রাদার্সকে কালো তালিকাভুক্ত করা হচ্ছে ততদিন প্রতিষ্ঠানটিকে কাজ দিতে সমস্যা নেই।

কালো তালিকাভুক্তির কাজটি তাহলে কে করবে-এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এটা সময়সাপেক্ষ সিদ্ধান্তের বিষয়।

এদিকে বিতর্কিত ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে আবারও গণপূর্তের কাজ দেওয়ার সিদ্ধান্ত জানাজানি হলে রাজশাহীতে বিভিন্ন মহলে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে রাজশাহীর একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের স্বত্বাধিকারী জানান, ব্রাদার্স কনস্ট্রাকশন রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নতুন ভবনে ফায়ার লিফটের বদলে একটি পুরোনো প্যাসেঞ্জার লিফট স্থাপন করে। জালিয়াতি ধরা পড়ার পর সেই লিফট সম্প্রতি খুলে নিতে বাধ্য হয় ব্রাদার্স। এই বিতর্কিত প্রতিষ্ঠানকেই আবার এসি সরবরাহ ও স্থাপনের কাজ দেওয়া হচ্ছে। ব্রাদার্সকে কালো তালিকাভুক্ত না করাটা বেশ রহস্যজনক।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে রাজশাহী গণপূর্ত সার্কেলের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী ফজলুল হক বলেন, যেহেতু মেডিকেল কলেজে লাগানো লিফ্টটি ইতোমধ্যে খুলে নিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। আগে নতুন লিফট এনে লাগিয়ে শেষ করুক। তখন কালো তালিকাভুক্ত করা বা শাস্তির বিষয়টি দেখা যাবে।

গণপূর্ত বিভাগ সূত্রে জানা যায়, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নতুন আইসিইউ ইউনিট স্থাপনের জন্য দরপত্রে অগ্নি প্রতিরোধক লিফট চাওয়া হয়েছিল। কিন্তু ব্রাদার্স কনস্ট্রাকশনের স্বত্বাধিকারী জাকির হোসেন গোপনে প্যাসেঞ্জার লিফট লাগিয়ে কোটি টাকা বিল তুলে নেওয়ার চেষ্টা করেন। লিফট স্থাপনে জালিয়াতি ধরা পড়ার পরে ৭ মে লিফট অপসারণের জন্য ঠিকাদারকে চিঠি দেওয়া হয়। ৬ জুন সেই লিফট অপসারণ করা হয়।

এ বিষয়ে জানতে ব্রাদার্স কনস্ট্রাকশনের স্বত্বাধিকারী সৈয়দ জাকির হোসেনের মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল করলেও তিনি রিসিভ করেননি। ফলে তার বক্তব্য জানা যায়নি।

 

সোনালী/সা