ঢাকা | জুলাই ১৭, ২০২৪ - ৬:৩৩ অপরাহ্ন

দুর্গাপুরে আশ্রায়ণ প্রকল্পের সভাপতির বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

  • আপডেট: Sunday, June 30, 2024 - 12:00 am

দুর্গাপুর প্রতিনিধি: দুর্গাপুর উপজেলায় আশ্রয়ণ প্রকল্পের সভাপতির বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয়ে প্রকল্পের বাসিন্দারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

শনিবার বিকালে সরেজমিনে গিয়ে আশ্রয়ণ প্রকল্পের কয়েকজন বাসিন্দার সঙ্গে কথা বলে ও লিখিত অভিযোগ থেকে জানা গেছে, ২০০৭ সালে সরকার দুস্থ ভূমিহীনদের পুনর্বাসনের জন্য উপজেলার জয়নগর ইউনিয়নের নারিকেল বাড়িয়া গ্রামে এই আবাসন প্রকল্প করে।

পাশেই ৭ বিঘা জমিতে একটি পুকুর খনন করা হয়। সেখানে ৫৪টি পরিবারের বসবাসের জন ঘর নির্মাণ করা হয়। প্রকল্পের বাসিন্দাদের দেখভালের জন্য আশ্রয় পাওয়া পরিবারের সদস্যদের মধ্য থেকে একজনকে সভাপতি হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়। এর বর্তমান সভাপতি ইউনুস আলী।

বাসিন্দারা অভিযোগে উল্লেখ করেন, আবাসনের পুকুরটি ডাকের মাধ্যমে টেন্ডার দেয়া হয় ৬ বৎসর ০৩ মাসের জন্য। এতে ১ বছরে টেন্ডার হয় ১ লাখ ৫৫ হাজার টাকায়। দুই বছরের জন্য ৩ লাখ ১০ হাজার টাকার টেন্ডার গ্রহিতার কাছ থেকে গ্রহণ করেছে সভাপতি ইউনুস আলী ও সাধারণ সম্পাদক রতন আলী আলী।

২ লাখ টাকা ৪৩ ঘরের মাঝে বিতরণ করেছেন। বাকি ০৭ ঘরের ২৮ হাজার টাকা আত্মসাৎ করেছে সভাপতি। বাকি ১ লক্ষ ১০ হাজার টাকা টেন্ডার গ্রহিতা ১ মাসের সময় নিয়েছে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক সেই টাকা গ্রহণ করেন। সেই টাকা আবাসনের ৪৩ ঘরের মাঝে বিতরণ করার কথা থাকলেও তিনি বিতরণ করেননি। বরং সে টাকা আত্মসাৎ করেছে।

এছাড়াও প্রকল্পের বাসিন্দারা অভিযোগ করেন, সভাপতির বিরুদ্ধে এ সমস্ত কথা বললে তিনি আমাদেরকে মারধর করে এবং এখান থেকে তাড়িয়ে দেয়ার হুমকি দেয়। এছাড়াও নানান অভিযোগ রয়েছে সভাপতির বিরুদ্ধে। আমরা সভাপতির অনিয়মের বিচার চাই।

তাঁর কর্মকাণ্ডে প্রকল্পের বাসিন্দারা অতিষ্ঠ। যেকোনো সময় সভাপতির সঙ্গে বাসিন্দাদের সংঘর্ষ হতে পারে। দ্রুত একটা সমাধান হওয়া দরকার।

এসব বিষয় নিয়ে প্রকল্পের সভাপতি ও আশ্রয় পাওয়া পরিবারের সদস্যদের মধ্যে উত্তেজনা চলছে। বিষয়টি সুষ্ঠু তদন্ত করে সভাপতির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বাসিন্দারা ইউএনওর কাছে লিখিত অভিযোগ দেন।

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে সভাপতি ইউনুস আলী বলেন, আমি সভাপতি নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে কোন অনিয়ম করা হয়নি। বরং প্রকল্পের অনেক উন্নয়নমূলক কাজ করেছি। তিনি আরও বলেন, আমার বিরুদ্ধে যে সকল অভিযোগ করা হয়েছে সেগুলো মিথ্যা ও বানোয়াট।

উপজেলার ইউএনও স্বীকৃতি প্রামাণিক বলেন, তিনি অভিযোগ পেয়েছিলেন, সম্ভবত বিষয়টি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে দেয়া হয়েছিল। তারপরও প্রকল্পের বাসিন্দারা বিষয়টি নিয়ে আসলে সমাধান করে দেয়া হবে।