ঢাকা | জুন ১৩, ২০২৪ - ৩:২৮ অপরাহ্ন

প্রশান্ত কিশোরের ঝড়ে ভারতে এবার কোনো বক মরেনি

  • আপডেট: Thursday, June 6, 2024 - 10:22 pm

অনলাইন ডেস্ক: ২০১৪ সালে নরেন্দ্র মোদি যখন প্রথমবারের মতো ভারতের প্রধানমন্ত্রী হয়েছিলেন, তখন তাঁর দল বিজেপির হয়ে কাজ করেছিলেন প্রশান্ত কিশোর। পরে অবশ্য তিনি মোদির কট্টর সমালোচক পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির হয়েও কাজ করেন এবং সাফল্য পান। ভোট কুশলী হিসেবে তাঁর সুনাম ছড়িয়ে পড়ে ভারতজুড়ে।

অনেকেই মনে করেন, নির্বাচন নিয়ে প্রশান্ত কিশোরের ভবিষ্যদ্বাণী অব্যর্থ। এমন মনে করাটাই স্বাভাবিক। কারণ ২০২১ সালে পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনে তিনি ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন—তৃণমূল কংগ্রেস ২০০ আসনের বেশি পাবে। আর বিজেপি ১০০ আসন টপকাতে পারবে না। এটাও বলেছিলেন, ভবিষ্যদ্বাণী ভুল হলে তিনি এই পেশাই ছেড়ে দেবেন।

সেবার প্রশান্ত কিশোরের কথা সত্যিই ফলে গিয়েছিল। ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচনে মমতা ব্যানার্জির তৃণমূল কংগ্রেস শেষ পর্যন্ত ২১৫ আসনে জয় পায়। আর বিপরীতে বিজেপি পায় মাত্র ৭৭ টি। তবে মমতার সঙ্গেও একসময় দূরত্ব বাড়তে শুরু করে কিশোরের। আবারও বিজেপির দিকে ঝুঁকে পড়েন তিনি।

বলা বাহুল্য, এবারের লোকসভা নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গের ভোটের চিত্র ব্যাখ্যা করতে গিয়ে মমতার দলের ভরাডুবি হবে বলে জানিয়ে দেন প্রশান্ত কিশোর। এটাও জানান, সংখ্যাগরিষ্ঠ আসনে জিতে এবার বাংলা দখল করবে বিজেপি। কিন্তু নির্বাচনের ফল প্রকাশের পর তাঁর বিশ্বাসযোগ্যতাই এখন বড় প্রশ্নের মুখে পড়ে গেছে।

অনেকেই বলছেন, খুব সতর্কতার সঙ্গে রাজনৈতিক পক্ষ বাছাই করেন তিনি। যাদের জেতার সম্ভাবনা রয়েছে, তাদেরই পক্ষেই কাজ করেন এবং তাদের অনুকূলে ভবিষ্যদ্বাণী করেন। বাংলায় গেরুয়া ঝড়ের যে কাল্পনিক দাবি উঠেছিল, তার ভিত্তিতেই এবারের লোকসভা নির্বাচনে বিজেপিকে এগিয়ে রেখেছিলেন কিশোর।

শুধু বাংলায় নয়, উত্তরপ্রদেশ ও মহারাষ্ট্র নিয়েও প্রশান্ত কিশোরের অনুমান এবার একেবারেই বিপরীত। নির্বাচনের আগে মোদি বলেছিলেন, ‘অব কি বার, ৪০০ পার।’ তবে কিশোর দাবি করেছিলেন, ২০১৯ সালে মোদির নেতৃত্বে ৩০৩ আসন পাওয়া বিজেপি এবার ৪০০ আসন পাড়ি দিতে না পারলেও গতবারের আসনসংখ্যা ঠিকই ছাড়িয়ে যাবে। কিন্তু দেখা গেল—মোদির দল একক সংখ্যাগরিষ্ঠতার জন্য প্রয়োজনীয় ২৭২ আসনই পায়নি। বিজেপি এবার ২৪০টি আসন পেয়েছে। যদিও জোটসঙ্গীদের নিয়ে দলটি এবারও ক্ষমতায় থেকে যাওয়ার বিষয়টি প্রায় নিশ্চিত।

প্রশান্ত কিশোর এবার সবচেয়ে বেশি উত্তাপ ছড়িয়েছেন পশ্চিমবঙ্গেই। লোকসভা ভোটের আগে দাবি করেছিলেন, গত লোকসভায় রাজ্যটির ৪২ আসনের মধ্যে বিজেপি যে ১৮টি আসন পেয়েছিল, তার থেকে এবার আসন কমবে না, বরং বাড়বে। আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে এটাও বলেছিলেন, সন্দেশখালির ঘটনা তৃণমূলের বিরুদ্ধে বড় জনমত তৈরি করবে।

শুধু একবার নয়, ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলোতে তিনি বারবার বলেছেন, ‘বিধানসভা ভোটে বিজেপির ফল দেখে লোকসভার সম্ভাবনা বিচার করা ঠিক হবে না।’ একটি বেসরকারি টেলিভিশনকে বলেছিলেন, ‘সন্দেশখালির মতো ঘটনা ঘটুক বা না ঘটুক, এটা বাস্তব যে বাংলায় বিজেপি এখন বাড়ছে।’

প্রশান্ত কিশোরের এমন ভবিষ্যদ্বাণী স্বাভাবিকভাবেই পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূল নেতা-কর্মীদের মধ্যে অসন্তোষ তৈরি করেছিল। কিছু পর্যবেক্ষকও মত দিয়েছিলেন, প্রশান্ত কিশোর যেভাবে দম্ভ ও আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে কথাগুলো বলেছেন, তাতে মনে হচ্ছে তাঁর স্বার্থ আছে। কেউ কেউ বলতে শুরু করেছিলেন, তিনি বিজেপির মুখপাত্র হয়ে কাজ করছেন।

আরেকটি বিষয় হলো—নির্বাচনের পর এবার বুথ ফেরত জরিপগুলো যেভাবে বিজেপির ভূমিধস বিজয় ঘোষণা করেছিল, তা যেন প্রশান্ত কিশোরের মতের সঙ্গেই মিলে গিয়েছিল। জরিপ প্রকাশের পর তাই কিছুটা অহংকার নিয়ে কিশোর একটি টুইট করেন। এতে তিনি লিখেন—এর পর থেকে ভোট বা রাজনীতির কথা বলতে হলে, খালি ভুয়ো সাংবাদিক, বড় বড় কথা বলা নেতা আর সোশ্যাল মিডিয়ায় স্বঘোষিত বিশেষজ্ঞদের কথা শুনে সময় নষ্ট করবেন না।

এবারের পর হয়তো প্রশান্ত কিশোরের মতামত শুনে ভারতের আর কেউ সময় নষ্ট করবে না।

সোনালী/জেআর