ঢাকা | জুন ২১, ২০২৪ - ১১:২৩ অপরাহ্ন

আশিক হত্যায় স্ত্রীর যাবজ্জীবন, পরকীয়া প্রেমিকসহ ৩ জনের মৃত্যুদণ্ড

  • আপডেট: Wednesday, June 5, 2024 - 10:47 am

অনলাইন ডেস্ক: বগুড়ার সারিয়াকান্দিতে চাঞ্চল্যকর ইজিবাইক চালক আশিক মিয়া হত্যা মামলায় তার স্ত্রীকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও পরকীয়া প্রেমিকসহ তিনজনকে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে তাদের প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়।

বগুড়ার প্রথম অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ হাবিবা মণ্ডল মঙ্গলবার বিকালে জনাকীর্ণ আদালতে এ রায় ঘোষণা করেন। উচ্চ আদালতের অনুমোদনসাপেক্ষে মৃত্যু না হওয়া পর্যন্ত রশিতে ঝুলিয়ে তাদের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করতে বলা হয়েছে।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- বগুড়ার সারিয়াকান্দির কুটিবাড়ি গ্রামের ছফু খাঁর ছেলে শিবলু ফকির (২৫), রামনগর গ্রামের মৃত সিরাজুল ইসলাম তরফদারের ছেলে শান্ত মিয়া ওরফে নয়ন ওরফে সিয়াম (২৫) ও আমতলী দক্ষিণপাড়া গ্রামের তরিকুল মণ্ডলের ছেলে নাঈম মণ্ডল (২৬)। তাদের দণ্ডবিধির ২০১ ধারায় দুই বছর করে সশ্রম কারাদণ্ড ও ১০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়। যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্ত ভিকটিমের স্ত্রী মিনা বেগমকে (২৫) ৫০ হাজার টাকা জরিমানা ছাড়াও দণ্ডবিধির ২০১ ধারায় দুই বছর সশ্রম কারাদণ্ড ও ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। জরিমানা অনাদায়ে তাকে আরও ছয় মাসের কারাদণ্ডাদেশ দেওয়া হয়েছে।

আদালত ও এজাহার সূত্র জানায়, বগুড়ার সারিয়াকান্দি উপজেলার হাটফুলবাড়ি মধ্যপাড়ার মৃত সালাউদ্দিনের ছেলে আশিক মিয়া গত ২০১৬ সালে মিনা বেগমকে বিয়ে করেন। তাদের সংসারে মহিন নামে সন্তান রয়েছে। স্ত্রী মিনা বেগমের সঙ্গে আসামি শিবলু ফকিরের পরকীয়া থাকায় দাম্পত্য কলহ দেখা দেয়। মিনা বেগম পথের কাঁটা সরাতে প্রেমিক শিবলুর সঙ্গে পরামর্শ করেন। এরপর শিবলু সঙ্গে নেন সিয়াম ও নাঈমকে।

আশিক গত ২০২০ সালের ২ অক্টোবর সকাল ৮টার দিকে ইজিবাইক নিয়ে বাড়ি থেকে বের হন। সন্ধ্যা ৬টার দিকে মামাতো শ্যালক প্রধান আসামি শিবলু ফকির, সিয়াম ও নাঈম সারিয়াকান্দির দিকে বেড়ানোর নামে ফুলবাড়ি থেকে ইজিবাইকে উঠে। রাত ১১টা পর্যন্ত আশিক বাড়িতে ফিরে না আসায় সকলে খোঁজাখুঁজি শুরু করেন।

মিনা বেগম অপরাধ থেকে বাঁচতে নিজেও খোঁজাখুঁজি করেন। তিনি পরদিন ৩ অক্টোবর সারিয়াকান্দি থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন। ৪ অক্টোবর বেলা সাড়ে ১০টার দিকে সারিয়াকান্দির ফুলবাড়ি ইউনিয়নের ছাগলধরা পূর্বপাড়া গ্রামে বাঙালি নদীর পাড়ে আশিক মিয়ার মরদেহ পাওয়া যায়।

নিহতের ভাই আনিস উদ্দিন ৫ অক্টোবর সারিয়াকান্দি থানায় চার আসামির বিরুদ্ধে মামলা করেন। এজাহারে উল্লেখ করা হয়, মিনা বেগমের সঙ্গে শিবলুর পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক থাকায় আসামিরা পূর্ব পরিকল্পিতভাবে আশিক মিয়াকে বেড়ানোর নামে ডেকে নিয়ে শ্বাসরোধ ও অণ্ডকোষে আঘাতে হত্যা করে। লাশের পরিচয় গোপন করতে মুখে দাহ্য পদার্থ ঢেলে ঝলসে দেওয়া হয়।

পুলিশ তাদের গ্রেফতার করলে শিবলু, সিয়াম ও নাঈম আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। তদন্তকারী কর্মকর্তা সারিয়াকান্দি থানার তৎকালীন এসআই মাহমুদুর রহমান ২০২১ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি চার আসামির বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল করেন।

চার আসামি জামিনে থাকলেও কিছুদিন আগে তাদের হাজতে নেওয়া হয়। মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে বগুড়ার প্রথম অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ হাবিবা মণ্ডল রায় ঘোষণা করেন।

রাষ্ট্রপক্ষে এপিপি নাছিমুল করিম হলি মামলা পরিচালনা করেন।

 

সোনালী/ সা