ঢাকা | জুন ১৬, ২০২৪ - ৬:১৩ অপরাহ্ন

বাগমারায় সৎ মায়ের নির্দেশে সৎ ভাইয়ের কান্ড

  • আপডেট: Monday, June 3, 2024 - 11:21 am

স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহীর বাগমারায় আফজাল হোসেন নামের কলা চাষীর কলা বাগানের প্রায় তিনশটি গাছ কেটে ফেলেছে তার আপন সৎ মা, ভাই ও ভাইয়ের বৌয়েরা। তবে গাছ কাটার বিষয়টি স্বীকার করেছেন অভিযুক্ত ইমরান হোসেন।

তিনি দাবী করেছেন, কলা গাছ লাগানো জমির মালিক নিজেই। কিন্তু তাদের নামে জমির কোন কাগজপত্র দেখাতে পারেন নি তিনি। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার তাহেরপুর পৌরসভার খয়রা মহল্লায়। ওই ঘটনার পর থেকে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, উপজেলার তাহেরপুর পৌরসভার খয়রা মহল্লার মৃত ইব্রাহীম হোসেন জীবিতবস্থায় চারটি বিয়ে করেন। প্রথমে তিনি উপজেলার শ্রীপুর ইউনিয়নের কাজীপুরা গ্রামের জনৈক ব্যক্তির মেয়ে জয়নব বিবিকে বিয়ে করেন। সে স্ত্রী ছেলে আফজাল হোসেন ও মেয়েসহ দুইটি সন্তান জম্ম হয়। পরে স্ত্রী গুলোর ইমরান, রেজাউল হকসহ পাঁচজন ছেলে মেয়ে রেখে গেছেন।

ইব্রাহীম হোসেন মৃত্যুর পূর্বে প্রথম স্ত্রী জয়নব বিবির বাবার বাড়ির জমিজমা বিক্রি করে তার ছেলে আফজাল হোসেনের নামে নিজ এলাকা খয়রা মহল্লায় জমি কিনে রেজিষ্ট্রি করে দেয়। আফজাল হোসেন জমি গুলো নিজ নামে খাজনা খারিজ করে ভোগদখলে রাখে। ইব্রাহীম হোসেন মৃত্যুর পর থেকেই সৎ মা সুফিয়া বিবি ও সৎ ভাই ইমরান হোসেন, রেজাউল হক মিলে জমি গুলো জবর দখলের চেষ্টা চালিয়ে যায়।

ওই জেরে গত শুক্রবার সকাল সাড়ে ৯ টার দিকে অভিযুক্তরা সংঘবদ্ধ হয়ে বাড়ির পার্শ্বের কলা বাগানের তিনশটি কলা গাছ কেটে ছয়লাভ করেছে। আফজাল হোসেনের অভিযোগ কলা বাগানের গাছ কাটায় তার দেড় লক্ষ টাকার ক্ষতি সাধন হয়েছে। তিনি তার ক্ষতি সাধনের ক্ষতি পূরুনসহ বিচারের দাবী জানিয়েছেন।

এব্যাপারে অভিযুক্ত ইমরান হোসেন কলা গাছ কাটার কথা স্বীকার করে বলেন, ওই জমির মালিক তিনি। কিন্ত জমির কোন কাগজপত্র দেখাতে পারেননি তিনি।

এলাকার লোকজন জানান, ইব্রাহীম হোসেন মৃত্যুর পর থেকেই ইমরান হোসেন সহ তার মা ও ভাইয়েরা মিলে আফজাল হোসেনের উপর বিভিন্ন ভাবে নির্যাতন চালিয়ে আসছেন। অবিলম্বে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের মাধ্যমে এলাকার শান্তি শৃংখলা বজায় রাখার দাবী জানান, এলাকার লোকজন।

 

সোনালী/ সা