ঢাকা | জুন ১৫, ২০২৪ - ১১:৫৫ অপরাহ্ন

পরীক্ষা ছাড়াই নেসকোতে নিয়োগ ৩১ কর্মকর্তা কর্মচারী

  • আপডেট: Sunday, June 2, 2024 - 11:03 am

অনলাইন ডেস্ক: বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের অধীনে থাকা নর্দান ইলেকট্রিসিটি সাপ্লাই কোম্পানিতে (নেসকো) কোনো বিজ্ঞপ্তি, পরীক্ষা ছাড়াই ৩১ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগ দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগ পাওয়ার পর দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) নেসকোর বিতর্কিত এ নিয়োগের বিষয়ে অনুসন্ধান করছে।

জানা গেছে, নেসকোতে প্রকৌশলী ও সহকারী ব্যবস্থাপকসহ বিভিন্ন স্তরের ৩১ কর্মকর্তা কর্মচারীকে সম্প্রতি চূড়ান্তভাবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। অভিযোগে নিয়োগ প্রাপ্তদেরকে প্রথমে কৌশলে এ্যাডহকে নিয়োগ করা হয়। পরে কয়েক মাসের মধ্যে পরিচালনা পর্ষদের সভায় তাদের চূড়ান্ত নিয়োগের প্রস্তাব অনুমোদন করা হয়। এরপরে তাদেরকে নেসকোর অধিক্ষেত্র উত্তরাঞ্চরের বিভিন্ন জেলা ও উপজেলা বিতরণ ও সরবরাহ কেন্দ্রে পদায়ন করা হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, নেসকোর পরিচালনা পর্ষদের ১০৪তম সভায় ৩১ কর্মকর্তা-কর্মচারীকে চূড়ান্ত নিয়োগের সিদ্ধান্ত হয়। এই বোর্ড সভার কোনো কার্যবিবরণী কোম্পানির ওয়েবসাইটে দেওয়া হয়নি।

রাষ্ট্রায়ত্ত এ কোম্পানির নীতিমালা অনুযায়ী জনবল নিয়োগের ক্ষেত্রে জাতীয় একটি বাংলা ও একটি ইংরেজি পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিয়ে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রচার করা বাধ্যতামূলক। একেকটি পদে একাধিক যোগ্য আবেদনকারী থাকতে হবে।

এসব নিয়োগের ক্ষেত্রে লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষা গ্রহণও বাধ্যতামূলক। তবে দেশের উত্তরাঞ্চলে বিদ্যুৎ সঞ্চালন ও বিতরণের দায়িত্বে থাকা নেসকোর প্রধান কার্যালয় রাজশাহীতে নীতিমালা লঙ্ঘন করে ৩১ কর্মকর্তা-কর্মচারীকে কোনো পরীক্ষা ছাড়াই নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

নেসকোর পদস্থ কর্মকর্তারা নিজেদের লোকজনকে নিয়োগ দিতেই এই কৌশল নিয়েছেন বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে।

দুদকে এ সংক্রান্ত দাখিল হওয়া অভিযোগে বলা হয়, নেসকোর ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) জাকিউল ইসলাম ও নির্বাহী পরিচালক (অর্থ ও প্রশাসন) সৈয়দ গোলাম আহম্মদসহ কতিপয় কর্মকর্তা মিলে এ নিয়োগবাণিজ্য করেছেন।

কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগে ক্ষমতার অপব্যবহারের মাধ্যমে নেসকো ও সরকারি চাকরির বিধিমালা লঙ্ঘন করে তারা নিয়মবহিভর্‚তভাবে ৩১ কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগ দিয়েছেন। এর মাধ্যমে তারা নিয়োগপ্রাপ্তদের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ অর্থও হাতিয়ে নিয়েছেন।

দুদকের অনুসন্ধান ও তদন্ত বিভাগ-১ সূত্রে জানা গেছে, নেসকোর আলোচিত ৩১ নিয়োগ সংক্রান্ত নথিপত্র চেয়ে দুদক ১৫ জানুয়ারি নেসকো কর্তৃপক্ষকে চিঠি দিয়েছে। সম্প্রতি নিয়োগের নথিপত্র দুদকের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। দুদক ইতিমধ্যে নেসকোর কয়েকজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে জিজ্ঞাসাবাদও করেছে।

এদিকে ৩১ নিয়োগের বিষয়ে কথা বলতে নেসকোর সাবেক নির্বাহী পরিচালক সৈয়দ গোলাম আহাম্মদের মোবাইলে যোগাযোগ করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি।

তবে এ বিষয়ে নেসকোর ব্যবস্থাপনা পরিচালক জাকিউল ইসলাম বলেন, বিষয়টি নিয়ে কাজ করা হচ্ছে। এই বিষয়ে পরে কথা বলবেন।

দুদকের সহকারী পরিচালক (অনু ও তদন্ত-১) মো. আশিকুর রহমান জানান, নেসকোর ৩১ নিয়োগের বিষয়ে অনুসন্ধান চলছে। অনুসন্ধান শেষে কমিশনে প্রতিবেদন দেওয়া হবে। কমিশন যেভাবে সিদ্ধান্ত নেবে তাই হবে। এ বিষয়ে এখন এর বেশি কিছু বলা সম্ভব নয়।

 

সোনালী/ সা