ঢাকা | মে ২৪, ২০২৪ - ৬:২৭ পূর্বাহ্ন

চিরনিদ্রায় শায়িত হায়দার আকবর খান রনো

  • আপডেট: Monday, May 13, 2024 - 10:00 pm

সোনালী ডেস্ক: বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) উপদেষ্টা, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ও লেখক হায়দার আকবর খান রনোকে রাজধানীর বনানী কবরস্থানে তার বাবা-মায়ের কবরের পাশে দাফন করা হয়েছে।

সোমবার বিকেল ৪টায় তার দাফন সম্পন্ন হয়। তার আগে দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে রনোর জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। সকাল ১০টায় রনোর মরদেহ শমরিতা হাসপাতাল থেকে সিপিবির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে নিয়ে আসা হয়। সেখানে সিপিবির সাবেক সভাপতি মঞ্জুরুল আহসান খান, নাগরিক ঐক্যের সভাপতি মাহমুদুর রহমান মান্নাসহ সিপিবির বিভিন্ন গণসংগঠন ও জেলার নেতাকর্মীরা শ্রদ্ধা জানান।

পল্টনে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে শোক র‌্যালি করে হায়দার আকবর খানের মরদেহ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে নিয়ে যাওয়া হয়। শহীদ মিনারে দুপুর ১১টা ২০ মিনিটে রনোকে রাষ্ট্রীয় সম্মাননা গার্ড অব অনার প্রদান করা হয়।

এরপর আওয়ামী লীগ, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি, বিএনপি, বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দল (বাসদ), গণসংস্কৃতি ফ্রন্ট, গণজাগরণ মঞ্চ, গণসংহতি আন্দোলনসহ বিভিন্ন দল ও সংগঠনের নেতৃবৃন্দ রনোর প্রতি শ্রদ্ধা জানান।

শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা বলেন, দেশের রাজনীতি থেকে একটি উজ্জ্বল নক্ষত্র বিদায় নিল। সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী আন্দোলন, ৬৯ এর গণ অভ্যুত্থানসহ মহান মুক্তিযুদ্ধে কমরেড হায়দার আকবর খান রনোর ভূমিকা ছলি অতুলনীয়।

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, তার চলে যাওয়া বাংলাদেশের আদর্শবাদী রাজনীতিতে বিশাল শূন্যতা তৈরি করল। তিনি যে বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখেছিলেন, দুর্ভাগ্যজনকভাবে তিনি তা দেখে যেতে পারেননি। আমাদের রাজনীতিতে যে বিভাজন তৈরি হয়েছে তা থেকে আমাদের বেরিয়ে আসা উচিত।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ বলেন, তিনি জাতির একজন অন্যতম শ্রেষ্ঠ সন্তান ছিলেন। তিনি আজীবন এ দেশের মানুষের ভাগ্য উন্নয়নের জন্য সংগ্রাম করেছেন।

রনোর মেয়ে রানা সুলতানা বলেন, কমরেডদের মৃত্যু নেই। আমার বাবা আজীবন সমাজতন্ত্রে বিশ্বাসী ছিলেন, মেহনতি মানুষের মুক্তির স্বপ্ন নিয়েই তিনি এত দিন বেঁচে ছিলেন। মানুষের জৈবিক মৃত্যু হয়, কিন্তু তিনি তার চিন্তা, লেখা, আদর্শের মধ্য দিয়ে আজীবন বেঁচে থাকবেন।

এর আগে, গত শুক্রবার দিবাগত রাত ২টায় রাজধানীর বেসরকারি একটি হাসপাতালে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন মার্ক্সবাদী তাত্ত্বিক হায়দার আকবর খান রনো। শ্বাসতন্ত্রের সমস্যা (টাইপ-২ রেসপিরেটরি ফেইল্যুর) নিয়ে গত সোমবার সন্ধ্যা থেকে তিনি হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন।

রনো ১৯৪২ সালের ৩১ আগস্ট কলকাতায় নানা বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময় ১৯৬০ সালে তিনি ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ছাত্রজীবন শেষে যুক্ত হয়েছিলেন শ্রমিক আন্দোলনে। ১৯৭১ সালে কমিউনিস্ট বিপ্লবীদের পূর্ব বাংলা সমন্বয় কমিটি গঠন করে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন মুক্তিযুদ্ধে।

স্বাধীনতার পর রনো ও তার সহকর্মীরা মিলে ১৯৭৩ সালে গঠন করেন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (লেনিনবাদী)। পরে ১৯৭৯ সালে দলের নাম পরিবর্তন করা রাখা হয় বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি।

এরশাদবিরোধী আন্দোলনেও মুখ্য ভূমিকা রেখেছিলেন তিনি। ২০০৯ সালে ওয়ার্কার্স পার্টি ছেড়ে আবারও সিপিবিতে যোগ দেন রনো। ২০১২ সালে দলটির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য হন তিনি। সর্বশেষ ছিলেন দলের উপদেষ্টার দায়িত্বে। রাজনীতির পাশাপাশি তিনি ২৫টি বই লিখেছেন।