ঢাকা | মে ২২, ২০২৪ - ১১:০৫ অপরাহ্ন

সবজির বাজারে আগুন, দাম বেড়েছে মাছেরও

  • আপডেট: Friday, May 10, 2024 - 7:36 pm

অনলাইন ডেস্ক: সাপ্তাহিক ছুটির দিনে বাজারে বেড়েছে সব ধরনের সবজির দাম। বাজারে লাউ ও ঢ্যাঁড়স ব্যতীত কোনো সবজিই ৫০ টাকার নিচে বিক্রি হচ্ছে না। গত সপ্তাহে তুলনায় আজ প্রতিটি সবজির দাম কেজিতে বেড়েছে অন্তত ১০ থেকে ২০ টাকা।

পাশাপাশি মাছের বাজারও বেশ চড়া। ব্যবসায়ীদের দাবি, সরবরাহ কম থাকায় দাম কিছুটা বেড়েছে। এদিকে, বাজারে প্রায় সবকিছুর দাম বাড়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ক্রেতারা। এভাবে দাম বাড়তে থাকলে সবজি কেনা অসাধ্য হয়ে যাবে বলেও হতাশা প্রকাশ করেছেন তারা। শুক্রবার (১০ মে) রাজধানীর রায়ের বাজার ও ধানমন্ডি স্টাফ কোয়ার্টার বাজার ঘুরে এ চিত্র দেখা গেছে।

বাজার ঘুরে দেখা যায়, প্রায় সব সবজির দামই বেড়েছে। গত সপ্তাহে পটলের দাম ছিল ৫০ টাকা, আর আজ বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকায়। এছাড়া, বরবটি ৭০ টাকা, ঢ্যাঁড়স ৪০ টাকা, পেঁপে ৮০ টাকা, ঝিঁঙে ৬০ টাকা, এক ফালি মিষ্টি কুমড়া ৩০ টাকা, করলা ৬০ টাকা, কাঁকরোল ১০০-১২০ টাকা, কচুমুখি ১৪০ টাকা, প্রতি পিস লাউ ৪০ টাকা, করলা ৬০ টাকা, প্রতি পিস চাল কুমড়া ৫০ টাকা, লম্বা বেগুন ১২০ টাকা, টমেটো ৫০ টাকা, কাঁচা মরিচ ১৬০ টাকা, গাজর ৮০ টাকা, প্রতি পিস ফুলকপি ৬০ টাকা ও প্রতি পিস বাঁধা কপি ৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

রায়ের বাজারের সবজি বিক্রেতা রমিজ মিয়ার দাবি, দেশের ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া তীব্র তাপপ্রবাহে কৃষকের অনেক ক্ষতি হয়েছে। চাহিদার তুলনায় কৃষক তেমন সবজি উৎপাদন করতে পারেনি। তাই উৎপাদনের ব্যাঘাত ঘটায় ঢাকায় সবজির সরবরাহ কম, এ কারণে সবজির দাম বেড়েছে।

বাজারে সবজি কিনতে আসা রহমতুল্লাহ বলেন, সবজির দাম যেভাবে বাড়ছে, কিনে খাওয়াই কষ্ট হয়ে যাচ্ছে। কেবল লাউয়ের দাম কিছুটা কম। তাছাড়া, সবকিছুর দাম বেড়েছে। বেগুন না কি মানুষ খায় না, অথচ সেই বেগুনও ১০০-১২০ টাকা কেজি।

তিনি বলেন, আমাদের কথা চিন্তা করবে কে? আমরা যারা নিম্নআয়ের মানুষ, এমন চলতে থাকলে কোনো সবজিই আর কিনে খেতে পারব না। এদিকে, রায়ের বাজার ও ধানমন্ডি স্টাফ কোয়ার্টার বাজারে প্রতিটি মাছেই দাম বেড়েছে।

বর্তমানে প্রতি কেজি টেংরা ৮০০ টাকা কেজি, পাবদা ৫৫০ টাকা, শিং ৫৫০ থেকে ৮০০ টাকা, তেলাপিয়া ২৪০ থেকে ২৬০ টাকা, রুই ৪০০ থেকে ৪৫০ টাকা, কাতল ৩২০ টাকা, ইলিশ (৫০০ গ্রাম) ৯০০ টাকা, (৫০০ গ্রামের বেশি) ১০০০ টাকা, ১ কেজি ওজনের ইলিশ ১৬০০ টাকা, চিংড়ি ১২০০ টাকা, রুপচাঁদা ৯০০ টাকা ও কালবাউশ ৪৫০ টাকা কেজিতে বিক্রি করছেন ব্যবসায়ীরা।

মাছ ব্যবসায়ী মো. আজাদ বলেন, মাছের দাম কিছুটা বেশি, আমাদের কিছু করার নেই। বেশি দাম দিয়ে কিনে এনে বেশি দামে বিক্রি করি। আর দেশি মাছের দাম এমনিতেই একটু বেশি থাকে।

 

সোনালী/ সা