ঢাকা | মে ২৩, ২০২৪ - ৩:৩৭ পূর্বাহ্ন

নির্বাচনি প্রচারণায় অংশ নেওয়ায় সরকারি কলেজের অধ্যক্ষকে শোকজ

  • আপডেট: Friday, May 10, 2024 - 10:56 am

স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলা পরিষদের আসন্ন নির্বাচনে আচরণবিধি লঙ্ঘন করায় উপজেলার দাউদকান্দি সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ মোজাম্মেল হককে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছেন রিটার্নিং অফিসার ও রাজশাহী অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক কল্যাণ চৌধুরী। গত ৮ মে রিটার্নিং অফিসার তাকে শোকজ নোটিশ পাঠান। পরবর্তী তিন কার্যদিবসের মধ্যে নোটিশের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

এই কলেজ অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বী দুই প্রার্থীর অভিযোগ, সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ হয়েও তিনি দুর্গাপুর উপজেলা নির্বাচনে একজন চেয়ারম্যান প্রার্থীর পক্ষে প্রকাশ্যে প্রচারণায় অংশ নিয়েছেন। আবার তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পদেও আছেন।

অভিযোগে জানা গেছে, মোজাম্মেল হক দুর্গাপুর উপজেলার দাউদকান্দি সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ হওয়ার পরও দুর্গাপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পদে আসীন আছেন। গত ৭ জানুয়ারির সংসদ নির্বাচনে মোজাম্মেল হক সরাসরি নির্বাচনি প্রচারণায় অংশ নেওয়ায় আগেও একবার তাকে শোকজ করে নোটিশ পাঠিয়েছিল নির্বাচন কমিশনের শৃঙ্খলা কমিটি ও রিটার্নিং অফিসার। ওই সময় তিনি ক্ষমা চেয়ে আর কোনোদিন কোনো নির্বাচনি প্রচারণায় অংশগ্রহণ করবেন না বলে মুচলেকা দিয়েছিলেন। কোনো রাজনৈতিক দলের পদেও থাকবেন না বলে মুচলেকায় উল্লেখ করেছিলেন।

এদিকে আসন্ন দুর্গাপুর উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে মোজাম্মেল হক সম্প্রতি দুর্গাপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী ও পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শরিফুজ্জামান শরিফের মোটরসাইকেল প্রতীকের পক্ষে সরাসরি প্রচারণায় অংশগ্রহণ করেন।

এ বিষয়ে প্রতিদ্বন্দ্বী দুই চেয়ারম্যান প্রার্থী মোজাম্মেল হকের বিরুদ্ধে ৭ মে রিটার্নিং অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে সহকারী রিটার্নিং অফিসার ও দুর্গাপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার স্বীকৃতি প্রামাণিক বলেন, সরকারি কলেজের শিক্ষক হচ্ছেন সরকারি কর্মকর্তা। সুতরাং চাকরিতে থেকে তিনি কোনো রাজনৈতিক সংগঠনের পদ নিতে পারেন না। আবার নির্বাচনি বিধিমালা অনুযায়ী তিনি নির্বাচনি প্রচারণায় অংশ নিতেও পারেন না। এ কারণে তাকে শোকজ নোটিশ পাঠিয়ে জবাব দিতে বলা হয়েছে।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে দাউদকান্দি সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ মোজাম্মেল হক বলেন, আমি সরাসরি নির্বাচনি প্রচারণায় অংশগ্রহণ করিনি। একজন প্রার্থীর প্রচারণা সভা চলছিল এবং আমি সেখানে কিছুক্ষণ এমনিতেই বসেছিলাম। যথাসময়ে শোকজ নোটিশের জবাব দেবেন বলে জানান তিনি। তবে কবেনাগাদ তিনি রাজনৈতিক দলের পদ ছাড়বেন সে বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

 

সোনালী/ সা