ঢাকা | মে ২০, ২০২৪ - ১১:১৪ পূর্বাহ্ন

একসঙ্গে দম্পতির বিষপান, স্ত্রীর মৃত্যু

  • আপডেট: Friday, May 10, 2024 - 11:02 am

অনলাইন ডেস্ক: বগুড়ার শিবগঞ্জে দাম্পত্য কলহে স্বামী ও স্ত্রী একসঙ্গে বিষাক্ত গ্যাস ট্যাবলেট সেবন করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এতে স্ত্রী নাজমা বেগম (২৮) মারা গেছেন। বুধবার গভীর রাতে উপজেলার আটমুল ইউনিয়নের নান্দুরা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

শিবগঞ্জ থানার ওসি আবদুর রউফ জানান, লাশ মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলে এটা আত্মহত্যা না হত্যা তা নিশ্চিত হওয়া যাবে। এছাড়া গৃহবধূর স্বামী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন কিনা তা বৃহস্পতিবার বিকাল পর্যন্ত জানা যায়নি। থানায় অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার আটমুল ইউনিয়নের পূর্বপাড়া গ্রামের আবদুল গফুরের ছেলে হাসান আলী রাজমিস্ত্রির কাজ করেন। ঘরে স্ত্রী থাকার পরও তিনি প্রবাসীর স্ত্রী নাজমা আকতারের সঙ্গে পরকীয়া প্রেমে জড়িয়ে পড়েন। প্রায় ছয় মাস আগে তিনি নাজমাকে পালিয়ে বিয়ে করেন। এরপর থেকেই সংসারে অভাবের সঙ্গে কলহ দেখা দেয়।

এর জের ধরে বুধবার রাত ২টার দিকে হাসান আলী ও নাজমা বেগম একসঙ্গে গ্যাস ট্যাবলেট সেবন করেন। প্রথম স্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিন ও অন্যরা টের পেয়ে রাতেই তাদের বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে পাঠান। সেখানে চিকিৎসক নাজমাকে মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে শিবগঞ্জ থানা পুলিশ বৃহস্পতিবার বিকাল ৩টার দিকে লাশ উদ্ধার করে ওই হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

মৃত গৃহবধূ নাজমার বাবা আবদুল বাছেদ জানান, বুধবার রাত সোয়া ২টার দিকে এক নারী তাকে ফোনে জানান, তার মেয়ে অসুস্থ। একটু পর জানান, মেয়ে নাজমা মারা গেছেন। সেখানে ছুটে গেলে জামাই হাসানের লোকেরা তাকে মারপিট করে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেন।

বাছেদ দাবি করেন, পারিবারিক কলহে জামাই হাসান তার বড় স্ত্রী সাবিনা ও অন্যরা নাজমাকে মুখে বালিশচাপা দিয়ে হত্যা করেছে। এরপর মুখে গ্যাস ট্যাবলেট দিয়ে আত্মহত্যার নাটক সাজিয়েছে। মেয়ের মুখের মধ্যে গুঁজে দেওয়া কাপড় ও হত্যার অনেক নমুনা পাওয়া গেছে।

তিনি আরও বলেন, তার জামাই হাসান বিষপান করেনি; মিথ্যাচার করা হচ্ছে। রাতেই তারা বাড়ি থেকে পালিয়ে গেছে।

 

সোনালী/ সা