ঢাকা | মে ২০, ২০২৪ - ১২:০১ অপরাহ্ন

ফিলিস্তিনে চালানো ধ্বংসযজ্ঞের মাধ্যমে মানবতা চুরমার হয়ে গেছে

  • আপডেট: Thursday, May 9, 2024 - 8:00 pm

সংহতি সমাবেশে ফজলে হোসেন বাদশা

স্টাফ রিপোর্টার: মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা দেশগুলো যে মানবতা ও গণতন্ত্রের কথা বলে, ফিলিস্তিনে চালানো ধ্বংসযজ্ঞের মধ্য দিয়ে তা চুরমার হয়ে গেছে বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ও রাজশাহী-২ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা।

তিনি বলেছেন, ‘দখলদার ইসরায়েলের বিরুদ্ধে ফিলিস্তিনের মানুষ যে প্রাণপণ লড়াই করছেন, সে লড়াই বিচ্ছিন্ন লড়াই নয়। সে লড়াই আমাদেরও লড়াই।’

বৃহস্পতিবার বিকালে রাজশাহী মহানগরীর সাহেব বাজার জিরোপয়েন্টে ফিলিস্তিনের নিরীহ মানুষের ওপর ইসরায়েলের গণহত্যার প্রতিবাদে আয়োজিত সংহতি সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। রাজশাহী মহানগর ছাত্রমৈত্রী ও মহানগর যুবমৈত্রী যৌথভাবে এই কর্মসূচির আয়োজন করে।

সমাবেশের পর জিরোপয়েন্ট থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। শহরের প্রধান সড়কগুলো প্রদক্ষিণ করে মিছিলটি আবারও জিরোপয়েন্টে এসে মিলিত হয়। মিছিল চলাকালীন কারও গলায়, কারও হাতে ঝুলছিল পোস্টার প্ল্যাকার্ড। সেসব পোস্টারে ফিলিস্তিনের মুক্তিকামী মানুষের প্রতি সংহতি জানানোর পাশাপাশি ইসরায়েলের আগ্রাসন বন্ধের দাবি তোলা হয়।

বিক্ষোভকারীদের হাতে ছিল বাংলাদেশ ও ফিলিস্তিনের জাতীয় পতাকা। সমাবেশ শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত মঞ্চের সামনে ছিল একজন নারী ও শিশু। তাদের হাতে রাখা হয়েছিল ফিলিস্তিনের শিশুদের প্রতীকী দুটি লাশ। এই প্রতীকী লাশের মাধ্যমে ফিলিস্তিনের শিশুদের ওপর ইসরায়েলের বর্বরতা ও দুর্দশার চিত্র তুলে ধরেন ছাত্র ও যুবমৈত্রীর নেতাকর্মীরা।

সমাবেশ থেকে রাকসুর সাবেক ভিপি ফজলে হোসেন বাদশা আমেরিকাসহ বিশ্বের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ফিলিস্তিনের গণহত্যা বন্ধে শিক্ষার্থীরা যে আন্দোলন চালাচ্ছে; তার প্রতি একাত্মতা পোষণ করেন। বাদশা বলেন, ‘ইসরায়েল ফিলিস্তিনে যা করছে; তা সামান্য কিছু নয়। ফিলিস্তিনের শিশু, নারীর যে আর্তনাদ, কান্না; তা সারা বিশ্বের বিপন্ন আর্তমানুষের কান্না এবং চিৎকার। ফিলিস্তিন হচ্ছে বিপন্ন, নিপীড়িত মানুষের বাসভূমি।’ ফিলিস্তিনে ইসরায়েল যা করছে, তা মানবসভ্যতা ও মনুষ্যত্বকে ধ্বংস করার কাজ বলেও বক্তৃতায় উল্লেখ করেন তিনি।

সংহতি সমাবেশে আমেরিকার কড়া সমালোচনা করে দেশের জাতীয় এই রাজনীতিক আরও বলেন, ‘মানবাধিকার নিয়ে সব থেকে বেশি বক্তব্য দেয়া ওই আমেরিকাসহ পশ্চিমা বিশ্ব ফিলিস্তিন ইস্যুতে নিরব কেন? কারণ কী? কারণ হচ্ছে- ইসরায়েল ফিলিস্তিনে যে ধ্বংসযজ্ঞ চালাচ্ছে, তার পেছনে মদদদাতাদের মধ্যে অন্যতম রয়েছে সেই যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা দেশগুলো। একাত্তরে পাকিস্তানের গণহত্যার প্রতিবাদে আমরা যে সংগ্রাম ও প্রতিরোধ গড়ে তুলেছিলাম, সেই চেতনা এবং আদর্শ নিয়ে আজ এখানে হাজির হয়েছি।’

বিক্ষোভ মিছিল ও সংহতি সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন রাজশাহী মহানগর যুবমৈত্রীর সভাপতি ও সিটি করপোরেশনের ৭ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মতিউর রহমান মতি।

বক্তব্য রাখেন মহানগর যুবমৈত্রীর সাধারণ সম্পাদক শামীম ইমতিয়াজ সুমন, সহ-সভাপতি রায়হান উদ্দিন হালিম, কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি কামরুল হাসান সুমন, মহানগর সাংগঠনিক সম্পাদক মোহায়মিনুল হক রানা, সাবেক ছাত্রনেতা সাঈদ হোসেন শিশির, আখছারুজ্জামান সুমন, ছাত্রনেতা সাবিক আল হাসান, আরিয়ান খান প্রমুখ। সমাবেশটি সঞ্চালনা করেন মহানগর ছাত্রমৈত্রীর সভাপতি ওহিদুর রহমান ওহি।

সোনালী/জগদীশ রবিদাস