ঢাকা | মে ২০, ২০২৪ - ১২:১৮ অপরাহ্ন

পবা, পাবনায় ও চাঁপাইয়ে বৃষ্টির জন্য ইস্তেসকার নামাজ

  • আপডেট: Wednesday, April 24, 2024 - 7:19 pm

সোনালী ডেস্ক: রাজশাহীর পবা, পাবনায় ও চাঁপাইয়ের শিবগঞ্জে বুধবার বৃষ্টির জন্য ইস্তেসকার নামাজ আদায় করা হয়েছে। দিনরাত চলছে ভ্যাপসা গরম। সূর্য ওঠার সঙ্গে সঙ্গে বাড়ছে তাপমাত্রা। তাপপ্রবাহ চলমান থাকায় প্রাণিকূলে নেই স্বস্তি। গরম হাওয়ার জন্য অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে সকল প্রাণিকূল।

খরা আর তীব্র তাপদাহে নষ্ট হচ্ছে ফসল। তীব্র তাপদাহ থেকে পরিত্রাণ পেতে রহমতের বৃষ্টির আশায় বুধবার সকাল সাড়ে ৮টায় মহান আল্লাহ তায়ালার নিকট বৃষ্টি চেয়ে রাজশাহীর পবা উপজেলার হড়গ্রাম ইউনিয়নের আলেম সমাজ ও স্থানীয় জনগণ বিশেষ জামাতে অংশ গ্রহণ করে দুই রাকাত ইস্তিসকার নামাজ আদায় করেন।

নামাজ আদায় শেষে তারা বৃষ্টি কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করেন। হড়গ্রাম ইউনিয়নের মিয়াপুর আখ সেন্টার প্রাঙ্গণে খোলা আকাশের নিচে বিশেষ এই নামাজের জামায়াতে ইমামতি ও মোনাজাত পরিচালনা করেন নওদাপাড়া আল মারকাযুল ইসলামী আস সালাফী মাদ্রাসার মোহাদ্দেস মাওলানা মাক্ববূল হোসাইন।

নামাজ ও দোয়ায় উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী জেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক ওয়াজেদ আলী খাঁন ও হড়গ্রাম ইউনিয়ন কৃষক লীগের সভাপতি তোহিদুল ইসলামসহ আলেম সমাজ ও স্থানীয় বিভিন্ন পেশাজীবী মুসল্লিগণ।

পাবনা প্রতিনিধি জানান, তীব্র তাপদাহ, আর অসহ্য গরমে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে পাবনাসহ এ অঞ্চলের সাধারণ মানুষ। অনাবৃষ্টিতে নষ্ট হচ্ছে আম, লিচু ও ফসল। তীব্র এই গরম থেকে পরিত্রাণের জন্য আল্লাহর কাছে ক্ষমা চেয়ে পাবনায় সালাতুল ইসতিসকা অর্থাৎ বৃষ্টির জন্য নামাজ আদায় করা হয়েছে।

বুধবার সকালে পাবনা দারুল আমান ট্রাস্ট ক্যাম্পাসে খোলা আকাশের নিচে ইস্তেসকার নামাজ আদায় করা হয়। নামাজ শেষে অনাবৃষ্টি ও প্রচণ্ড খরা থেকে রেহাই পেতে মহান আল্লাহর কাছে বিশেষ মোনাজাত করা হয়। মোনাজাত পরিচালনা করেন পাবনা ইসলামীয়া ফাজিল মাদরাসার সহকারী অধ্যাপক ও মসজিদে আত তাকওয়ার পেশ ইমাম মাওলানা আব্দুস শাকুর।

শিবগঞ্জ (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধি জানান, সারা দেশের মতো অনাবৃষ্টি ও দাপদাহে পুড়ছে চাঁপাইনবাবগঞ্জ। ফলে বৃষ্টির জন্য হাহাকার পড়েছে জেলাজুড়ে। বৃষ্টির পানির অভাবে মাঠ-ঘাট ফেটে চৌচির অবস্থায় মাঠের ফসল বিনষ্ট হয়ে পড়েছে, আমের গুটি ঝড়ে পড়ছে। বৃষ্টির পানি ও মহান আল্লাহ দরবারে সাহায্য চেয়ে ইস্তেসকার নামাজ আদায় করা হয়।

নামাজ শেষে আল্লাহর দরবারে হাত তুলে মুনাজাত করে সহস্রাধিক মানুষ। বুধবার সকালে স্থানীয় তরুণ যুব সমাজের আয়োজনে শিবগঞ্জ উপজেলার শাহাবাজপুর ইউনিয়নের ঐতিহাসিক সোনামসজিদ প্রাঙ্গনে নামাজ ও দোয়া অনুষ্ঠিত হয়।

এতে হাফিজিয়া মাদ্রাসার ছাত্র- শিক্ষকসহ শাহাবাজপুর এলাকার সাধারণ মানুষ অংশগ্রহণ করেন।

মাওলানার হুমায়ুন কবিরের ইমামতিতে ইস্তেসকার দুই রাকাত নামাজ আদায় শেষে বৃষ্টির জন্য মুসল্লিদের নিয়ে সৃষ্টিকর্তার দরবারে দুই হাত তুলে মোনাজাত করা হয়।