ঢাকা | ফেব্রুয়ারী ২৮, ২০২৪ - ৭:৩১ পূর্বাহ্ন

রাজশাহী মেডিকেলে রোগীর ছেলেকে মারধর: ইন্টার্ন চিকিৎসক বরখাস্ত

  • আপডেট: Thursday, February 8, 2024 - 9:15 pm

স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রোগীর ছেলেকে শারীরিক নির্যাতন ও মারধরের ঘটনায় দুই ইন্টার্ন চিকিৎসককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

এছাড়া ঘটনা তদন্তে পাঁচ সদসস্যের কমিটিও করেছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। কমিটিকে তিন কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

হাসপাতাল পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এএফএম শামীম আহম্মদ বলেন, ঘটনার বিষয়ে তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত দুই ইন্টার্ন চিকিৎসক বরখাস্ত থাকবেন। সাময়িক বরখাস্ত হওয়া দুই ইন্টার্ন চিকিৎসক হলেন, ফরহাদ হাসান ও আলমগীর হোসেন।

হাসপাতালের পরিচালক বলেন, গত বুধবার তদন্ত কমিটি করে দেয়া হয়েছে। কমিটি ইতোমধ্যে কাজ শুরু করেছে। তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর আরও কিছু কাজ আছে। সেগুলো সম্পন্ন করে এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হবে।

গত বুধবার দুপুরে হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের ৪৯ নম্বর ওয়ার্ডের ইন্টার্ন চিকিৎসকদের কক্ষে সুমন পারভেজ রিপন (৩০) নামের এক যুবককে বেধড়ক পেটান ইন্টার্ন চিকিৎসকরা।

রিপনের মা পিয়ারা বেগম (৬০) গত ২ ফেব্রুয়ারি থেকে এই ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন। রিপোর্ট দেখানোকে কেন্দ্র করে বাকবিতণ্ডার জের ধরে ইন্টার্ন চিকিৎসকরা তাকে পেটান। ভুক্তভোগী রিপনের বাড়ি নগরীর বোসপাড়া এলাকায়।

রাজপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল হক গণমাধ্যমকে বলেন, ছেলেটা এসে বলল যে, সে অভিযোগ করবে। আমরা বললাম, অভিযোগ নেব। সমস্যা নাই। পরে সে বলল, তার মাকে অন্য জায়গায় চিকিৎসা করাবেন। হাসপাতাল থেকে ছুটি দেয়া হচ্ছে না। এটা শুনে আমি হাসপাতালে ফোন করলাম। হাসপাতাল থেকে আমাকে জানিয়েছে যে, তার মাকে ছুটি দেয়া হয়েছে। পরে আমি একটা মিটিংয়ে যাই। এসে ছেলেটাকে আর পাইনি।

সোনালী/জেআর