ঢাকা | জুলাই ১৭, ২০২৪ - ৮:০১ অপরাহ্ন

তানোরে বৃষ্টিতে আলু আবাদ নিয়ে বিপাকে কৃষকরা

  • আপডেট: Friday, December 8, 2023 - 9:32 pm

সাইদ সাজু, তানোর থেকে: তানোরে ২ দিনের বৃষ্টিতে আলু আবাদ নিয়ে বিপাকে পড়েছেন কৃষকরা। কৃষকরা বলছেন, সদ্য রোপনকৃত আলুর যে জমিতে সেচ দেয়া হয়েছিলো সেই সব জমিতে বৃষ্টির পানি জমে রয়েছে। জমে থাকা পানি বের করতে না পারলে রোপনকৃত আলু বীজ পচে যাবে।

ফলে, ব্যাপক ক্ষতির মুখে পড়বেন কৃষকরা। তবে, সেচ না দেয়া জমিতে রোপনকৃত আলুর কোন সমস্যা হবে না।

শুক্রবার সকালে বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, বেশীর ভাগ জমিতেই পানি জমে টইটুম্বর হয়ে রয়েছে, আর সেই পানি বের করার জন্য মাঠ জুড়ে ব্যস্ত রয়েছেন কৃষকরা। তবে, অল্প সংখক জমিতে পানি জমেনি।

কৃষকরা বলছেন, জমিতে আলু রোপনের ১০ দিন থেকে ১২ দিনের মধ্যে সেচ দিতে হয়। উপজেলার বেশির ভাগ জমি ১৫ দিন থেকে ২০ দিন আগেই রোপন করার পর সেচ দেয়া সম্পন্ন হয়েছে। অল্প কিছু জমি ৮ দিন থেকে ১০ দিনের মধ্যে রোপন করা হয়েছে। সেই রোপন করা আলুতে সেচ দেয়ার প্রস্তুতিও চলছিলো।

এর মধ্যেই ২ দিনের বৃষ্টির কারনে আর দেয়ার প্রয়োজন হবে না এবং এই বৃষ্টিতে কোন ক্ষতিও হবে না। অপর দিকে উপজেলার বেশ কিছু এলাকার অনেক জমিতে আলু রোপনের জন্য জমি তৈরি করা হয়েছিলো, সেই জমিতে এখন আর আলু রোপন করা যাবে না।

সরনজাই ইউপির শুকদেবপুর গ্রামের কৃষক জামিল, সেলিম, রেজাউলসহ চাষীরা জমি থেকে পানি বের করার জন্য সকাল থেকে থালা, গামলা দিয়ে পানি বের করার চেষ্টা করছেন। জামিল বলেন, ৫ বিঘা জমিতে আলু রোপন করেছেন, গত মঙ্গল ও বুধবারে সেচ দেয়া হয়েছিল। কিন্তু বুধবার রাত ও বৃহস্পতিবার দিন রাতে গুড়িগুড়ি বৃষ্টি হয়। বৃষ্টির কারনে জমিতে প্রচুর পরিমানে পানি জমে গেছে। বের করার কোন ব্যবস্থা নেই। শুক্রবার ও শনিবারের মধ্যে পানি বের না হলে পচে নষ্ট হয়ে যাবে।

রেজাউল নামের আরেক কৃষক বলেন, ৩ বিঘা জমিতে আলু লাগিয়ে প্রথম সেচ দেয়ার পর এখন বেকায়দায় পড়েছি। সেলিম নামের আরেক কৃষক বলেন, আমার ৭ বিঘা, ভায়ের ১২ বিঘা আলুর জমিতে থইথই করছে পানি। প্রতি বিঘায় খরচ হয়েছে প্রায় ৪০ হাজার টাকা। তবে লীজ নিয়ে যারা রোপন করেছেন তাদের খরচ আরো বেশি হবে।

কৃষকরা জানান, আলু রোপনে এবার সবচেয়ে বেশি খরচ হয়েছে। কারন জমি লীজ, সার কীটনাশকের বাড়তি দামের কারনে এতবেশী খরচ গুনতে হয়েছে। গত বুধবার সারাদিন সূর্যের আলোর দেখা নেই। রাত থেকে ও বৃহস্পতিবার দিন রাতে গুড়িগুড়ি বৃষ্টির কারনে জমিতে প্রচুর পরিমানে পানি জমে আছে।

শুক্রবার সকালের দিকে মাঝে মাঝে সূর্যের আলো দেখা গেলেও দুপুরের পর থেকে মেঘলা আকাশ। প্রচন্ড খরতাপ হলে দ্রুত পানি সুকিয়ে যাবে, আর এরকম আবহাওয়া থাকলে আলু পচে নষ্ট হবে যেমন, ঠিক তেমনিভাবে ফলনের চরম বিপর্যয় ঘটবে। তবে আলুর সর্বনাশ হলেও সরিষার জন্য উপকার হয়েছে।

উপজেলা কৃষি অফিসার সাইফুল্লাহ আহম্মেদ বলেন, এবারে তানোরে আলু রোপনের লক্ষমাত্রা ১৩ হাজার ৫০০ হেক্টর জমি। এপর্যন্ত রোপন হয়েছে ১১ হাজার হেক্টর জমিতে। যে সব জমিতে সেচ দেয়া হয়েছিল ওই সব আলুর জমি ক্ষতি হবে। জমি থেকে দ্রুত পানি বের করতে পারলে ক্ষতির পরিমাণ কম হবে। পানি বের করতে না পরলে লোকসানের মুখে পড়বে চাষীরা। আর যারা সেচ নেয়নি তাদের তেমন কোন ক্ষতি হবে না। এই বৃষ্টিতে সরিষাতে উপকার হবে বলেও জানান তিনি।

সোনালী/জেআর