ঢাকা | ফেব্রুয়ারী ২৯, ২০২৪ - ১০:৩৮ পূর্বাহ্ন

প্রতি আসনে নৌকার মনোনয়নপ্রত্যাশী ১১ জন

  • আপডেট: Wednesday, November 22, 2023 - 1:00 pm

অনলাইন ডেস্ক: আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দেশের ৩০০ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হতে মনোনয়নপত্র কিনেছেন ৩ হাজার ৩৬২ জন। প্রতি আসনে গড়ে ১১ জনের বেশি। নৌকা পেতে ইচ্ছুকদের মধ্যে বর্তমান সংসদ সদস্য, পরিবারের একাধিক সদস্য, সাবেক সরকারি কর্মকর্তা, ক্রীড়াবিদ, অভিনেতা-অভিনেত্রী, সাংবাদিক, ব্যবসায়ী, আইনজীবীসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ রয়েছেন।

প্রার্থী চূড়ান্ত করতে আগামীকাল দলের মনোনয়ন বোর্ডের সভা ডাকা হয়েছে। এ নির্বাচনে কার কপাল পুড়বে, কার কপাল খুলবে তা কালই পরিষ্কার হওয়া যাবে। এবার আওয়ামী লীগের মনোনয়নপত্র বিক্রি করে আয় হয়েছে ১৬ কোটি ৮১ লাখ টাকা।

২০১৮ সালে একাদশ সংসদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করতে ৪ হাজার ২৩ জন দলীয় মনোনয়নপত্র কিনেছিলেন। সে হিসেবে এবার আওয়ামী লীগের মনোনয়নপত্র আগের বারের চেয়ে ৬৬১টি কম বিক্রি হয়েছে। কিন্তু মনোনয়নপত্র বিক্রির দাম বাড়ানোর কারণে আয় বেড়েছে। গত নির্বাচনে মনোনয়নপত্রের দাম ছিল ৩০ হাজার টাকা। এবার ৫০ হাজার। সে কারণে মনোনয়নপত্র বিক্রি করে দলীয় ফান্ডে এবার রেকর্ড আয় করেছে আওয়ামী লীগ।

এবার ঢাকা বিভাগে ৭৩০, চট্টগ্রাম বিভাগে ৬৫৯, রাজশাহী বিভাগে ৪০৯, খুলনা বিভাগে ৪১৬, রংপুর বিভাগে ৩০২, ময়মনসিংহ বিভাগে ২৯৫, সিলেট বিভাগে ১৭২, বরিশাল বিভাগে ২৫৮ জন মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। সরাসরি মনোনয়নপত্র বিক্রি ছাড়াও এবার অনলাইনে মনোনয়নপত্র বিক্রি ও জমাদানের ব্যবস্থা করা হয়। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ২ হাজার ৬০৮ জন দলীয় মনোনয়নপত্র কিনেছিলেন।

চার দিনের মনোনয়নপত্র বিক্রি ও সংগ্রহের বিশাল কর্মযজ্ঞ গতকাল শেষ হয়েছে। উৎসাহ-উদ্দীপনায় মনোনয়নপত্র কেনা ও জমা প্রদান শেষে এখন সারা দেশের মনোনয়নপ্রত্যাশীদের উদ্বেগ-উৎকণ্ঠার পালা শুরু। কার কপালে জুটবে সোনার হরিণ খ্যাত দলীয় প্রতীক নৌকা, আবার কে মনোনয়নবঞ্চিত হবেন তা নিয়ে চলছে নানা আলোচনা। আওয়ামী লীগের চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকায় শেষ পর্যন্ত কারা বহাল থাকবেন, কে কে ছিটকে পড়বেন বা কোন আসনে আসছে নতুন মুখ- এ সপ্তাহেই স্পষ্ট হবে।

সংসদীয় বোর্ড প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করার পর ভাগ্যবানেরা দলের প্রধান শেখ হাসিনা স্বাক্ষরিত নৌকা প্রতীক বরাদ্দের চিঠি নিয়ে ছুটবেন নিজ এলাকায়। জমা দেবেন মনোনয়নপত্র, শুরু করবেন আনুষ্ঠানিক নির্বাচনি প্রচার। এবারের নির্বাচনে অনেক বর্তমান এমপির কপাল পুড়তে পারে বলে আভাস পাওয়া গেছে।

মনোনয়নপত্র বিক্রি ও জমা গ্রহণের শেষ দিনেও গতকাল বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের চারদিকে ছিল বিপুলসংখ্যক নেতা-কর্মীর উপচে পড়া ভিড়। বিশাল বিশাল শোডাউন করে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এসে ফরম উত্তোলন ও জমা দিয়েছেন সারা দেশ থেকে আসা মনোনয়নপ্রত্যাশীরা। শেষ দিনেও হাজার হাজার নেতা-কর্মী নিয়ে বড় বড় শোডাউন, ঘোড়ার গাড়ি, টমটম, বিশাল দলীয় প্রতীক নৌকা আর রংবেরঙের টি-শার্ট, গেঞ্জি, টুপি পরে রীতিমতো উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে মনোনয়নপত্র জমা গ্রহণের কর্মযজ্ঞ শেষ করেছে আওয়ামী লীগ।

গতকাল সন্ধ্যায় রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউর কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে মনোনয়নপত্র বিক্রি ও জমা গ্রহণ শেষে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় দফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া সাংবাদিকদের জানান, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য এ চার দিনে মোট ৩ হাজার ৩৬২টি মনোনয়নপত্র বিক্রি করেছে আওয়ামী লীগ। এর মধ্যে অনলাইনে ১২১টি ফরম বিক্রি হয়েছে। শুধু মনোনয়নপত্র বিক্রি করেই আওয়ামী লীগের দলীয় ফান্ডে জমা পড়েছে ১৬ কোটি ৮১ লাখ টাকা।

কাল সংসদীয় বোর্ডের বৈঠক: আওয়ামী লীগের সংসদীয় মনোনয়ন বোর্ডের সভা আগামীকাল ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের তেজগাঁও কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হবে। ওই সভা থেকেই দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ৩০০ আসনে নৌকার প্রার্থী চূড়ান্ত করা হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় দফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া। তিনি জানান, বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় অনুষ্ঠেয় সভায় সভাপতিত্ব করবেন মনোনয়ন বোর্ডের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

দলীয় সূত্র জানান, আগের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের সংসদীয় বোর্ডের সভা দলটির সভাপতির ধানমন্ডির কার্যালয় এবং প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে হতো। তবে এবার নির্বাচনকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবনে রাজনৈতিক কোনো কার্যক্রম করবেন না বলেই ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের তেজগাঁওয়ের কার্যালয়ে এ সভা হবে।

জানা গেছে, সংসদীয় বোর্ডের সভার একটি বৈঠকে ৩০০ আসনে দলের প্রার্থিতা চূড়ান্ত করা সম্ভব হবে না। এ কারণে বোর্ডের কয়েকটি সভা ধারাবাহিকভাবে হতে পারে। আগামীকাল সভার প্রথম দিন রাজশাহী, রংপুর ও খুলনা বিভাগের সংসদীয় আসনগুলোর মনোনয়ন চূড়ান্ত করা হতে পারে। পরবর্তী বৈঠকে বাকি বিভাগগুলোর প্রার্থিতা চূড়ান্ত করবে আওয়ামী লীগ।

দলের প্রার্থিতা চূড়ান্ত করতে ইতোমধ্যে কয়েক দফা মাঠ জরিপ সম্পন্ন করা হয়েছে। দলীয় সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে এসব মাঠ জরিপে ৩০০ আসনে দলের মনোনয়নপ্রত্যাশীদের কার কী অবস্থান, জনপ্রিয়তার ব্যারোমিটার, ভোটার ও দলের কর্মীদের সঙ্গে সম্পর্ক ইত্যাদি তথ্য-উপাত্ত উঠে এসেছে।

জনপ্রিয়তা, দলের প্রতি অতীত ত্যাগ, আদর্শিক দৃঢ়তা এবং অপেক্ষাকৃত ক্লিন ইমেজ থাকা নেতাদের সম্পর্কে উঠে আসা মাঠ জরিপ বিশ্লেষণ করে একটি খসড়া তালিকাও তৈরি করেছেন দলটির হাইকমান্ড। এখন মনোনয়নপ্রত্যাশীদের আবেদনগুলো বিচার-বিশ্লেষণ করেই এবার বিজয়ী হতে পারবেন এমন জনপ্রিয় নেতার হাতেই নৌকা নামক সোনার হরিণ তুলে দেবে সংসদীয় বোর্ড।

বোর্ডের একাধিক সদস্যের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বোর্ডের সভায় প্রাথমিকভাবে ৩০০ আসনেই প্রার্থিতা বাছাই করবে আওয়ামী লীগ। জোট-মহাজোটের হিসাবের অঙ্ক কষে শরিকদের জন্য ৫০-৬০টি আসন ছাড় দেওয়ার প্রস্তুতি রেখেই দলীয় প্রার্থিতা চূড়ান্ত করা হবে। যেসব আসন শরিকদের কাছে ছাড় দিতে হতে পারে সেগুলো চিহ্নিত করে বাকি সব আসনের প্রার্থিতা চূড়ান্ত করে ঘোষণা করবে সংসদীয় বোর্ড।

সোনালী/জেআর