ঢাকা | জুলাই ২১, ২০২৪ - ১:৫৫ পূর্বাহ্ন

দুর্গাপুরে ফাঁদ পেতে মাকে হত্যার চেষ্টা, বিচারের দাবিতে থানায় বৃদ্ধা

  • আপডেট: Sunday, October 8, 2023 - 9:00 pm

দুর্গাপুর প্রতিনিধি: বাবা ভ্যানগাড়ি চালায় আর মা মানুষের বাড়িতে কাজ করতো। অভাব অনাটনের সংসারে সবটুক বিক্রি করে একমাত্র ছেলে সাইদুর রহমানকে বিদেশ পাঠায় তার মা বাবা।

পরে ১২ বছরের প্রবাস জীবনে কোটিপতি বনে যান ছেলে সাইদুর। এরপর প্রবাস থেকে দেশে এসেই মায়ের নামে থাকা বাড়িসহ বসত ভিটায় ২৭ শতক জমি লেখে চায় সাইদুর।

এতে রাজি হননি, তার মা ও বাবা। এরপর বাবা ও মাকে বাড়ি থেকে তাড়ানোর জন্য নির্যাতন শুরু করেন সাইদুর ও তার স্ত্রী রুমি খাতুন। এ নিয়ে একাধিকবার গ্রামে ও থানায় সালিশ দরবারও হয়েছে। তারপরও মা বাবার ওপর ছেলে ও তাঁর স্ত্রীর নির্যাতন কমেনি।

রোববার ভোররাতে বিদ্যুতের ফাঁদ পেতে বৃদ্ধ মাকে হত্যার চেষ্টা করেন ছেলে সাইদুর ও তাঁর স্ত্রী রুমি খাতুন। ঘটনাটি ঘটেছে দুর্গাপুর উপজেলার মহিপাড়া গ্রামে।

এ ঘটনায় রোববার সকালে নিজের নিরাপত্তা ও তার ছেলের বিচারের দাবিতে থানায় হাজির হন সাইদুরের মা আংগুরা বেগম (৬০)। তিনি ওই গ্রামের আকবর আলীর স্ত্রী।

আংগুরা বেগম বলেন, রোববার ভোরে ফজরের নামাজ পড়তে উঠি। দরজা খুলতে সামনে পা বাড়ালে আমাকে জোরে ছিটকে ফেলে দেয়। এরপর আলো দিয়ে দেখি দরজার নিচ দিয়ে বিদ্যুতের তার রাখা হয়েছে।

এ সময় চিৎকার দিলে তারা বিদ্যুতের তার বাহির থেকে সরিয়ে নেয়। পরে পাড়ার লোকজন এসে আমাকে ঘর থেকে বের করে। তারা আমাকে বিদ্যুতের ফাঁদ পেতে মারতে চায়। এ নিয়ে প্রতিবাদ করলে সকালে আমার ছেলে ও তার স্ত্রী আমার সঙ্গে ঝগড়া করে।

আংগুরা বলেন, আমি মানুষের বাড়িতে গৃহকর্মীর কাজ করে ও তার বাবা ভ্যানগাড়ি চালিয়ে ছেলেকে বড় করেছি। এরপর সবকিছু বিক্রি করে তাকে বিদেশ পাঠাই। ১২ বছর পর দেশে আসলে ছেলে সাইদুর আমার নামে থাকা বাড়িসহ বসত ভিটার ২৭ শতক জমি লিখে চায়। আমি দিতে চাইনি। এরপর থেকেই তারা আমাকে ও আমার স্বামীর ওপর নির্যাতন শুরু করে। ছেলে ও তার বউ মিলে প্রায়ই আমাকে মারধর করে। বাড়ি থেকে বের করে দেয়। এসব নিয়ে একাধিকবার গ্রামে ও থানায় সালিশ হয়েছে। কিন্তু তাদের নির্যাতন কমেনি।

আংগুরা আরও বলেন, অভাবে থেকে এক সময় সুখ আসলে সব কিছু কিনে ছেলের নামে লেখে দিয়েছি। চারটি পুকুর, গ্রামে আবাদি জমি, বাজারে বাড়ি করার জমি সব লিখে দিয়েছি। তারপরও আমার নামে থাকা বাড়িটুকু সে লিখে নিবে। তারপর আমাকে ও আমার স্বামীকে বাড়ি থেকে বের করে দিবে।

তবে অভিযোগ অস্বীকার করেন আংগুরার ছেলে সাইদুর রহমান। তিনি বলেন, এমনিই আমার মা ভোরে বিদ্যুতের শক খেয়েছেন বলে নাটক করে লোকজন সমাবেত করেন। এমন ঘটনা সত্য না দাবি করে তিনি আরও বলেন, আমার টাকা দিয়ে জমি কেনা।

সেই জমি মায়ের নামে লেখে নিয়ে বাড়ি করেছে। আমরা সবাই একই বাড়িতে থাকি। দীর্ঘ দিন ধরে আমাদের পারিবারিক দ্বন্দ্ব চলছে। গত শুক্রবারও আমার বোন ও জামাই আমার ওপর আক্রমণ করেছে। কিছু হলেই মা ও বোন মিলে আমার দুই সন্তানসহ বাড়ি থেকে নেমে যেতে বলেন।

দুর্গাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নাজমুল হক বলেন, সকালে এমন অভিযোগ নিয়ে এক বয়স্ক নারী থানায় হাজির হয়েছিল। তার বর্ণনা শোনা হয়েছে। এ বিষয়ে একটি অভিযোগ নেয়া হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সোনালী/জেআর