ঢাকা | ফেব্রুয়ারী ২১, ২০২৪ - ১২:১১ অপরাহ্ন

রাজশাহীতে যুবলীগের সম্মেলনে যা বললেন পরশ

  • আপডেট: Tuesday, September 26, 2023 - 7:15 pm

অনলাইন ডেস্ক: আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন বানচালের ষড়যন্ত্র করে কোনো লাভ নেই বলে মন্তব্য করেছেন যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ। তিনি বলেন, নির্বাচন নিয়ে কোনো ষড়যন্ত্রই দেশের যুব সমাজ মেনে নেবে না। তাই দেশে অসাংবিধানিক সরকার বসানোর দিবাস্বপ্ন দেখে লাভ নেই।

মঙ্গলবার (২৬ সেপ্টেম্বর) নগরীর পাঠানপাড়া শিমুলতলা মোড়ে আয়োজিত রাজশাহী মহানগর ও জেলা যুবলীগের সম্মেলন উদ্বোধনকালে পরশ মন্তব্য করেন।

এর আগে সকালে তিনি দীর্ঘ সাত বছর পর আয়োজিত রাজশাহী জেলা ও মহানগর যুবলীগের সম্মেলন উদ্বোধন করেন।

দীর্ঘদিন পর সম্মেলনকে কেন্দ্র করে সকাল থেকেই নগর ও জেলা যুবলীগের নেতাকর্মীরা খণ্ড খণ্ড মিছিল নিয়ে সম্মেলনস্থলে আসেন। এতে বেলা ১১টার মধ্যেই সম্মেলনস্থল নেতাকর্মীতে কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায়। পরে দুপুর ১২টার দিকে দলের কেন্দ্রীয় নেতারা এক এক করে মঞ্চে উপস্থিত হন। এ সময় শিল্পীদের সাংস্কৃতিক পরিবেশনা উপভোগ করেন সম্মেলনে আসা নেতাকর্মীরা।

এছাড়া পেছন থেকে বিভিন্ন নেতার পক্ষে স্লোগান ও করতালির ধ্বনিতে উৎসবমুখর হয়ে ওঠে যুবলীগের সম্মেলনস্থল। দুপুর দেড়টা গড়াতেই নেতাকর্মীদের ঢল নামে। এরপর প্রথমে স্থানীয় ও পরে কেন্দ্রীয় নেতারা বক্তব্য দেওয়া শুরু করেন। বক্তব্য চলে বিকেল পর্যন্ত।

সম্মেলন উদ্বোধনের পর যুবলীগ চেয়ারম্যান পরশ বলেন, দেশনেত্রী শেখ হাসিনা কখনোই শর্টকাটে ক্ষমতায় যাওয়ার পথ খোঁজেন না। তার জন্য দেশের মানুষই শক্তি। তারা চাইলে আবারও তিনি সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমেই ক্ষমতায় যাবেন। যারা ৬৪ জেলায় বোমা হামলা করেছে, মানুষের কণ্ঠরোধ করেছে, আদালত চত্বরে হামলা করেছে, এখন তারাই না কি আমাদের বলে অত্যাচারী? এটা একটা হাস্যকর বিষয়! মূলত তারা আমাদের বিব্রত করার চেষ্টা করছে। তবে যতই অপচেষ্টা চলুক আগামী নির্বাচনেও আমরা বিএনপির কাছে পরাজিত হব না। এ সোনার বাংলাদেশে আর ভূমিখেকো, দুর্নীতিবাজ নেতার দরকার নেই।

তিনি বলেন, নতুন নেতৃত্ব কেবল দল বা কর্মীবান্ধব হলে চলবে না, হতে হবে জনবান্ধব। সমাজের বঞ্চিত মানুষের যিনি পাশে থাকেন, আপন করে নেন, তিনি হচ্ছেন জনবান্ধব নেতা। আবার ভূমিখেকো, দুর্নীতিবাজ, সন্ত্রাসীদের কাছে প্রিয়, এমন তথাকথিত জনপ্রিয় নেতাদের দরকার নেই। সেই রকম নেতৃত্ব দরকার, যারা স্বপ্রণোদিতভাবে, সক্রিয় থেকে নতুন ভোরে আলো ছড়াবেন। নব সম্ভাবনা জাগ্রত করবেন।

এ সময় পরশ আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে যেকোনো ষড়যন্ত্র মোকাবিলায় সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকার করতে নেতাকর্মীদের প্রস্তুত থাকার আহ্বান জানান।

সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও রাজশাহী সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। এছাড়া আওয়ামী লীগের রাজশাহী বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন, আওয়ামী লীগ কার্যনির্বাহী সদস্য নূরুল ইসলাম ঠান্ডু, আখতার জাহান সম্মেলনে সম্মানিত অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন।

সম্মেলনে প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক মো. মাইনুল হোসেন খান নিখিল।

এছাড়া বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী কামাল, জেলার সভাপতি অনিল কুমার সরকার, জেলার সাধারণ সম্পাদক মো. আবদুল ওয়াদুদ দারা, মহানগরের সাধারণ সম্পাদক মো. ডাবলু সরকার, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর ইকবাল, সংসদ সদস্য ওমর ফারুক চৌধুরী, ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হক, ডা. মনসুর রহমান, আয়েন উদ্দিন ও রাজশাহীর সংরক্ষিত নারী সংসদ সদস্য আদিবা আনজুম মিতা।

সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন নগর যুবলীগের বিদায়ী সভাপতি মো. রমজান আলী। সঞ্চালনা করেন নগরের সাধারণ সম্পাদক মোশারফ হোসেন বাচ্চু ও জেলার ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আলী আজম।

সোনালী/জেআর