ঢাকা | ফেব্রুয়ারী ২৬, ২০২৪ - ৩:৩৪ পূর্বাহ্ন

বগুড়ায় স্ত্রীসহ সাবেক সেটেলমেন্ট কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

  • আপডেট: Friday, September 22, 2023 - 12:00 am

অনলাইন ডেস্ক: সম্পদের তথ্য গোপন ও অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে বগুড়ার অবসরপ্রাপ্ত সেটেলমেন্ট কর্মকর্তা আরিফুর রহমান ও তার স্ত্রী মাহবুবা সুলতানার বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুনীর্তি দমন কমিশন (দুদক)।

বুধবার দুদকের বগুড়া কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক তারিকুর রহমান বাদী হয়ে জেলা কার্যালয়ে পৃথক দুটি মামলা করেন। আরিফুর রহমান জেলার দুপচাঁচিয়া উপজেলার সহকারী সেটেলমেন্ট কর্মকর্তা ছিলেন।

মামলায় আরিফুর রহমানের বিরুদ্ধে ৫৬ লাখ ৪২ হাজার টাকার সম্পদের তথ্য গোপন এবং ৪৮ লাখ ৫১ হাজার টাকার জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জন ও ভোগ দখলের অভিযোগ আনা হয়।

অপর মামলায় তার স্ত্রী মাহবুবা সুলতানার বিরুদ্ধে এক কোটি ৩৪ লাখ ৩৮ হাজার টাকার সম্পদের তথ্য গোপন ও ৪৯ লাখ ৫৩ হাজার টাকার জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগ আনা হয়েছে।

মামলায় বলা হয়, প্রাথমিকভাবে আরিফের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ২০১৯ সালের ২০ মার্চ তাকে সম্পদের বিবরণী দাখিলের নোটিশ দেওয়া হয়েছিল। ওই বছরের ২৭ মার্চ তিনি সম্পদের বিবরণী দাখিল করেন।

তাতে ৫৬ লাখ ৪২ হাজার ৩৭৪ টাকা মূল্যের সম্পদের তথ্য গোপন করা হয়। পরে ৪৮ লাখ ৫১ হাজার ৩৫৪ টাকার জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জন করে তা ভোগদখল করছেন বলে দুদকের অনুসন্ধানে উঠে আসে। যা দুদক আইনের ধারায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

এদিকে আরিফুর রহমানের স্ত্রী মাহবুবা সুলতানার মামলায় বলা হয়, আরিফের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ প্রাথমিকভাবে প্রমাণিত হওয়ায় ২০১৯ সালের ২০ মার্চ তার স্ত্রী মাহবুবা সুলতানার সম্পদ বিবরণী দাখিলের নোটিশ করা হয়।

নোটিশের জবাবে মাহবুবা সুলতানার ৫৯ লাখ ৭৭ হাজার টাকা মূল্যের সম্পদের তথ্য পাওয়া যায়। মাহবুবার ১০ লাখ ২৪ হাজার টাকার দায়-দেনা ছাড়া তার অর্থের কোনো উৎস নেই। আরিফুর রহমান তার অবৈধ সম্পদের উৎস গোপন করার উদ্দেশ্যে স্ত্রীকে সম্পদ হস্তান্তর করেছেন বলে প্রমাণিত হয়।

দুদক বগুড়ার উপপরিচালক মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, অভিযোগ তদন্ত করে আরিফুর ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে অবৈধ অর্থ সম্পদের প্রমাণ পাওয়া গেছে। এরপর তার বিরুদ্ধে মামলা করা হয়। আরিফুর রহমান বর্তমানে অবসরে আছেন।

প্রসঙ্গত, আরিফুর রহমান ধুনট উপজেলায় থাকতে তার বিরুদ্ধে নানা অনিয়মের অভিযোগ এনে এলাকাবাসী একাধিকবার মানববন্ধন করেন।

এছাড়াও ঊর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট অভিযোগ জমা দেন। তার বিরুদ্ধে একাধিক বিভাগীয় মামলাও চলমান রয়েছে। আরিফুর রহমান জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার বিহারহাট এলাকার প্রয়াত নাসিম উদ্দিনের ছেলে।

সোনালী/জেআর