ঢাকা | জুলাই ২১, ২০২৪ - ১:৫৮ পূর্বাহ্ন

যা আছে নতুন সাইবার আইনে

  • আপডেট: Wednesday, August 9, 2023 - 2:00 am

অনলাইন ডেস্ক: বহুল আলোচিত-সমালোচিত ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন (ডিএসএ) বাতিল করে ‘সাইবার নিরাপত্তা আইন’ নামে নতুন আইন করতে যাচ্ছে সরকার।

আইনমন্ত্রী জানিয়েছেন, নতুন আইনে ডিএসএর কারিগরি সব ধারাই বহাল থাকবে। ২৬ পৃষ্ঠার সাইবার নিরাপত্তা আইনের খসড়া পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, দুটি ধারা কমে নতুন আইনে মোট ধারা থাকছে ৬০টি।

এ ধারাগুলোতে অপরাধ, সাজাসহ বিভিন্ন বিষয় বিন্যস্ত করা হয়েছে। দণ্ড ও জামিন-সংক্রান্ত বিষয়ে ৩১টি ধারায় পরিবর্তন আনা হচ্ছে প্রস্তাবিত আইনে।

এ পরিবর্তনের মধ্যে আটটি অজামিনযোগ্য ধারা জামিনযোগ্য করা হয়েছে। ১১টি ধারায় সাজা কমানো হয়েছে। এ ছাড়া দ্বিতীয়বার একই অপরাধের ক্ষেত্রে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে থাকা দ্বিগুণ শাস্তির বিধান নতুন আইনে থাকছে না।

বহুল আলোচিত ২৯ নম্বর ধারাসহ দুটি ধারায় শাস্তি হিসেবে কারাদণ্ডের বিধান বাতিল করে জরিমানার পরিমাণ বৃদ্ধি করা হয়েছে। তবে নতুন এই আইনেও খুব বেশি স্বস্তি দেখছেন না সংশ্লিষ্টরা। তারা বলছেন, এ আইনেও বিতর্কিত অনেক ধারা বহাল রয়েছে। ফলে হয়রানির শঙ্কা রয়েই গেছে। পুরনো আইনটিই নতুন করে প্রয়োগ হবে এখন।

সোমবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিপরিষদের বৈঠকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন রহিত করে সাইবার নিরাপত্তা আইন পাসের নীতিগত অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রস্তাবিত এই আইনটি বিল আকারে সেপ্টেম্বরে জাতীয় সংসদে উপস্থাপন করা হবে।

প্রস্তাবিত আইনেও হয়রানির শঙ্কা থেকেই যাচ্ছে বলে মনে করেন ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান। তিনি বলেন, ‘গণমাধ্যম সূত্রে আমরা জানতে পেরেছি, আইনমন্ত্রী বলেছেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের বহু ধারা সাইবার নিরাপত্তা আইনে যুক্ত হবে।

আমাদের আশঙ্কার জায়গা ঠিক সেখানেই। ’ তিনি বলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের যেসব ধারা মূলত ভিন্নমত দমন, গণমাধ্যমের কণ্ঠরোধে বহুল অপব্যবহৃত হয়েছে, সেগুলো নতুন সাইবার নিরাপত্তা আইনে অন্তর্ভুক্ত না করার আহ্বান জানাই। ’

যা আছে নতুন আইনে: ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে থাকা ২১ নম্বর ধারায় উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন করে প্রস্তাবিত সাইবার নিরাপত্তা আইনে প্রতিস্থাপন করা হয়েছে।

২১ ধারা অনুযায়ী, যদি কোনো ব্যক্তি ডিজিটাল মাধ্যমে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, জাতির পিতা, জাতীয় সংগীত বা জাতীয় পতাকার বিরুদ্ধে কোনো রকম প্রোপাগান্ডা ও প্রচারণা চালায় বা তাতে মদদ দেয় তাহলে সেটি অপরাধ বলে গণ্য হতো এবং এর জন্য ১০ বছরের কারাদণ্ড বা ১ কোটি টাকা জরিমানার বিধান ছিল।

এই একই অপরাধ কেউ দ্বিতীয়বার করলে তার সাজা দ্বিগুণ করার বিধান ছিল। আর বার বার একই অপরাধের ক্ষেত্রে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড বা ৩ কোটি টাকা জরিমানার বিধান রয়েছে। এ ধারাটিতে প্রস্তাবিত আইনে পরিবর্তন এনে সাজার মেয়াদ সাত বছর করা হয়েছে।

আর দ্বিতীয়বার একই অপরাধ করলেও সাজা দ্বিগুণ হবে না। ডিএসএর ৪৩ ধারা নিয়ে নানা মহলে বিতর্ক থাকলেও সেটি অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে। ৪৩ ধারা অনুযায়ী, যদি কোনো পুলিশ কর্মকর্তা মনে করেন যে, কোনো স্থানে এই আইনের অধীনে কোনো অপরাধ সংঘটিত হয়েছে বা হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে, সাক্ষ্য প্রমাণাদি হারানো, নষ্ট হওয়া, মুছে ফেলা, পরিবর্তন হওয়ার বা করার সম্ভাবনা রয়েছে, তাহলে তার, কোনো পরোয়ানা ছাড়াই সেখানে তল্লাশি, সরঞ্জাম জব্দ, দেহ তল্লাশি এবং পরোয়ানা ছাড়াই গ্রেফতারের এখতিয়ার রয়েছে।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ২৮, ২৯, ৩০ ধারাগুলো বাতিলের বিষয়ে সাংবাদিকসহ বিভিন্ন মহলের দাবি শুরু থেকেই। এ ধারাগুলো প্রস্তাবিত আইনে বহাল রেখে জামিনযোগ্য করা হয়েছে।

ডিএসএর ২৮ ধারায় বলা হয়েছে, যদি কোনো ব্যক্তি বা গোষ্ঠী ইচ্ছাকৃতভাবে ধর্মীয় মূল্যবোধ বা অনুভূতিতে আঘাত করা বা উসকানি দেওয়ার জন্য ওয়েবসাইট বা অন্য কোনো ইলেকট্রনিক মাধ্যমে এমন কিছু প্রকাশ বা প্রচার করে, যা ধর্মীয় অনুভূতি বা ধর্মীয় মূল্যবোধের ওপর আঘাত করে, তাহলে তা অপরাধ হবে।

এ অপরাধের ক্ষেত্রে পাঁচ বছর কারাদণ্ড, বা ১০ লাখ টাকা জরিমানার বিধান ছিল। একই অপরাধ বার বার করলে সাজা ও জরিমানার মেয়াদ দ্বিগুণ হওয়ার বিধান ছিল।

ডিএসএর ২৯ ধারায় বলা হয়েছে, যদি কোনো ব্যক্তি ওয়েবসাইট বা অন্য কোনো ইলেকট্রনিক মাধ্যমে মানহানিকর তথ্য প্রকাশ বা প্রচার করেন, তাহলে তিনি তিন বছরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত হবেন বা ৫ লাখ টাকা জরিমানা করা হবে। এ ছাড়া একই অপরাধ বার বার করলে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড বা ১০ লাখ টাকা জরিমানার বিধান ছিল।

প্রস্তাবিত আইনে এ ধারায় পরিবর্তন এনে কারাদণ্ডের যে সাজা ছিল সেটিকে সম্পূর্ণভাবে বিলুপ্ত করা হয়েছে। এখানে শাস্তি হবে শুধু জরিমানা। আর জরিমানা অনাদায়ে তিন মাসের কারাদণ্ড হতে পারে।

ডিএসএর ৩১ ধারায় আগে বলা হয়েছিল, যদি কোনো ব্যক্তি ইচ্ছাকৃতভাবে ওয়েবসাইট বা ডিজিটাল মাধ্যমে এমন কিছু প্রকাশ বা সম্প্রচার করেন বা করান, যা বিভিন্ন শ্রেণি বা সম্প্রদায়ের মধ্যে শত্রুতা, ঘৃণা বা বিদ্বেষ সৃষ্টি করে বা সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করে বা অস্থিরতা বা বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে অথবা আইনশৃঙ্খলার অবনতি ঘটায় তাহলে সেটি অপরাধ হিসেবে গণ্য হবে।

এ ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ শাস্তি ছিল ৭ বছর এবং ৫ লাখ টাকা জরিমানা। একাধিক বার একই অপরাধ করলে সাজা বেড়ে ১০ বছর এবং জরিমানা ১০ লাখ টাকা করার বিধান ছিল। এ ধারায় পরির্বতন এনে সাজার সময়সীমা কমানো হয়েছে। আগে সাত বছরের কারাদণ্ডের পরিবর্তে এটা কমিয়ে পাঁচ বছর করা হয়েছে। বার বার একই অপরাধ করলে সাজা বাড়ানোর বিষয়টি বাতিল করা হয়েছে।

৩২ ধারায় সরকারি গোপনীয়তা ভঙ্গের অপরাধের শাস্তি আগে ছিল ১৪ বছর, সেটি কমিয়ে ৭ বছর করা হয়েছে। বার বার এই অপরাধ করলে সাজা বাড়ার বিধান বাতিল করা হয়েছে। ৩৩ ধারা সম্পূর্ণ বিলুপ্ত করে হ্যাকিং সম্পর্কিত অপরাধ নামে নতুন ধারা প্রতিস্থাপন করা হয়েছে।

এ অপরাধের শাস্তি অনধিক ১৪ বছরের কারাদণ্ড বা ১ কোটি টাকা জরিমানার বিধান রয়েছে। হ্যাকিং হচ্ছে কম্পিউটারের তথ্যভান্ডারের কোনো তথ্য বিনাশ, বাতিল বা পরিবর্তন বা তার মূল্য বা উপযোগিতা কমানো বা অন্য কোনোভাবে ক্ষতিসাধন বা নিজ মালিকানা বা দখলবিহীন কোনো কম্পিউটার, সার্ভার, নেটওয়ার্ক বা অন্য কোনো ইলেকট্রনিক সিস্টেমে অবৈধভাবে প্রবেশের মাধ্যমে তার ক্ষতিসাধন।

ডিএসএর ৩৩ ধারায় বলা হয়েছিল, যদি কোনো ব্যক্তি কম্পিউটার বা ডিজিটাল সিস্টেমে বেআইনিভাবে প্রবেশ করে সরকারি, আধাসরকারি, স্বায়ত্তশাসিত বা সংবিধিবদ্ধ সংস্থা বা কোনো আর্থিক বা বাণিজ্যিক সংস্থার কোনো তথ্য-উপাত্তের কোনো ধরনের সংযোজন বা বিয়োজন, স্থানান্তর বা স্থানান্তরের উদ্দেশ্যে সংরক্ষণ করেন বা করতে সহায়তা করেন, তাহলে তা অপরাধ বলে ধরা হবে।

আইসিটি অ্যাক্ট থেকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন : তথ্যপ্রযুক্তি-সংক্রান্ত অপরাধ নিয়ে ২০০৬ সালে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইন প্রণয়ন করা হয়, যেটি আইসিটি আইন হিসেবে পরিচিত হয়ে ওঠে। সেই আইনে বলা হয়, বাংলাদেশে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির আইনগত বৈধতা ও নিরাপত্তা দেওয়া এবং আনুষঙ্গিক বিষয়াদি সম্পর্কে বিধান প্রণয়ন করার জন্য আইনটি প্রণয়ন করা হয়েছে।

২০১৬ সালে এ আইনটি সংশোধন করে আরও কঠোর করা হয়। এ আইনের অধীনে বিভিন্ন অপরাধের ক্ষেত্রে শাস্তি বাড়ানো হয়। আইসিটি অ্যাক্ট পাস হওয়ার পর থেকেই এ আইনটির বিভিন্ন ধারা নিয়ে বিতর্ক তৈরি হয়। বিশেষ করে আইনটির ৫৭ ধারা বাতিলের তুমুল দাবি ওঠে।

আইসিটি আইনের ৫৭ ধারায় বলা হয়েছিল, ‘কোনো ব্যক্তি যদি ইচ্ছাকৃতভাবে ওয়েবসাইটে বা অন্য কোনো ইলেকট্রনিক মাধ্যমে এমন কিছু প্রকাশ বা সম্প্রচার করেন, যা মিথ্যা ও অশ্লীল বা সংশ্লিষ্ট অবস্থা বিবেচনায় কেউ পড়লে, দেখলে বা শুনলে নীতিভ্রষ্ট বা অসৎ হতে উদ্বুদ্ধ হতে পারেন অথবা যার দ্বারা মানহানি ঘটে, আইনশৃঙ্খলার অবনতি ঘটে বা ঘটার আশঙ্কা সৃষ্টি হয়, রাষ্ট্র ও ব্যক্তির ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয় বা ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করে বা করতে পারে বা এ ধরনের তথ্যের মাধ্যমে কোনো ব্যক্তি বা সংগঠনের বিরুদ্ধে উসকানি দেওয়া হয়, তাহলে এ কাজ অপরাধ বলে গণ্য হবে। ’

এ অপরাধে সর্বোচ্চ ১৪ বছর কারাদণ্ড এবং সর্বোচ্চ ১ কোটি টাকা অর্থদণ্ড দেওয়ার বিধান ছিল। এই ৫৭ ধারায় সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মামলা ও সাংবাদিকদের কারাগারে নেওয়ার একাধিক ঘটনা তীব্র সমালোচনা তৈরি করেছিল। সাংবাদিক ও মানবাধিকারকর্মীদের তরফ থেকে এটি নিবর্তনমূলক আখ্যা দিয়ে আইসিটি আইন বাতিলের দাবি করা হয়েছিল।

এর ধারাবাহিকতায় ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নামের একটি নতুন আইনের খসড়া অনুমোদন করে মন্ত্রিসভা। একই বছর সেপ্টেম্বরে খসড়াটি সংসদে আইন হিসেবে পাস হয়।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নামে নতুন এ আইনে তথ্যপ্রযুক্তি আইনের ৫৪, ৫৫, ৫৬, ৫৭ ও ৬৬ ধারা বাতিল করে তার পরিবর্তে এসব ধারার অপরাধের প্রকৃতি অনুযায়ী শাস্তির বিধান রাখা হয়।

সোনালী/জেআর