ঢাকা | মে ৩০, ২০২৪ - ৩:৩৬ অপরাহ্ন

দ্বিতীয়বারের মতো কাউন্সিলর || ঢাকায় মতিকে যুবমৈত্রীর শুভেচ্ছা

  • আপডেট: Saturday, August 5, 2023 - 9:00 pm

বিশেষ রিপোর্টার: বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির অন্যতম বন্ধু সংগঠন বাংলাদেশ যুবমৈত্রীর কেন্দ্রীয় ও জাতীয় পরিষদের সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ঢাকাস্থ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে গতকাল শুক্রবার ও আজ শনিবার দু’দিন জুড়ে পৃথকভাবে কেন্দ্রীয় ও জাতীয় পরিষদের সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এদিকে, আজ শনিবার সকালে জাতীয় পরিষদ সভার প্রাক্কালে যুবমৈত্রীর কেন্দ্রীয় সহ-সাধারণ সম্পাদক ও রাজশাহী মহানগরের সভাপতি মতিউর রহমান মতি সদ্য অনুষ্ঠিত রাজশাহী সিটি করপোরেশন (রাসিক) নির্বাচনে ৭ নম্বর ওয়ার্ড থেকে দ্বিতীয়বারের মতো কাউন্সিলর নির্বাচিত হওয়ায় ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি বর্ষিয়ান রাজনীতিক রাশেদ খান মেনন এমপি’র মাধ্যমে তাকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন যুবমৈত্রীর কেন্দ্রীয় নেতারা।

এসময় যুবমৈত্রীর কেন্দ্রীয় কমিটির সারা দেশ থেকে আগত নেতাদের সঙ্গেও কুশল বিনিময় ও সাংগঠনিক খবর নেন ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন।

এসবের মধ্যে এমপি মেননের উপস্থিতিতে সংক্ষিপ্তভাবে কিছু কথা বলেন রাসিকের নবনির্বাচিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর যুবমৈত্রীর কেন্দ্রীয় সহ-সাধারণ সম্পাদক ও রাজশাহী মহানগরের সভাপতি মতিউর রহমান মতি।

নির্বাচন করতে গিয়ে তিনি দলের সভাপতি রাশেদ খান মেনন ও সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশার অত্যন্ত আন্তরিক সহযোগিতা পেয়েছেন মন্তব্য করে সেখানে বলেন, “আমার এলাকায় করা দুটি নির্বাচনই আমাকে নানামুখী সংকটের মধ্যে করতে হয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে আমাদের দলের শীর্ষ দুই নেতা (রাশেদ খান মেনন ও ফজলে হোসেন বাদশা) আমার মতো তৃণমূল পর্যায়ের একজন কর্মির জন্য যে আন্তরিকতা দেখিয়েছেন তা নিতান্তই অভূতপূর্ব! তাদের মতো শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদের এ ধরনের আন্তরিকতা আমার এলাকার নেতাকর্মী ও সাধারণ জনগণ সবসময় কৃতজ্ঞচিত্তে উপলব্ধি ও স্মরণ করে।”

অপরদিকে, গতকাল শুক্রবার রাতে কেন্দ্রীয় সভা শেষ করে দলীয় কার্যালয়ের নিচে ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা এমপির সঙ্গেও শুভেচ্ছা বিনিময় ও সাংগঠনিক আলোচনা করেন উপস্থিত যুবমৈত্রীর কেন্দ্রীয় নেতারা। এসময় এমপি বাদশাও তাদের কাছে সাংগঠনিক তথ্য নেন এবং সকলের রাজনৈতিক সফলতা কামনা করেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, যুবমৈত্রীর কেন্দ্রীয় সভাপতি তৌহিদুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক তাপস দাস,‌ কেন্দ্রীয় নেতা আব্দুল আহাদ মিনার, অনুপ কুমার পিন্টু, কায়সার আলম, মফিজুল হক জাহাঙ্গীর, ফায়জুল হক বালী ফারাহীন, রেজওয়ান রাজা, কামরুল হাসান সুমন, জহুরুল ইসলাম টুটুল, মতিউর রহমান মতি, মুক্তার হোসেন নাহিদ, আল আমীন মাহাদী, মানোয়ার হোসন, মীর ফিরোজ আলম, শামীম ইমতিয়াজ, মনোজ বাড়ৈ, মাইনুদ্দীন আহমেদ রাসেল, মামুন মোল্লা, রাশেদ খান মেনন, ইয়াদুল ইসলাম, সুব্রত সানা, মাহাবুদ রানা তরুন, শাফিউর রহমান সজিব, সুকান্ত দাস, বেলাল হোসেন, ইব্রাহিম মোহাম্মদ শামিম রেজা, ইতেন ত্রিপুরা, এমএ সামাদ প্রমুখ।

সোনালী/জগদীশ রবিদাস