ঢাকা | এপ্রিল ২৪, ২০২৪ - ২:২৫ পূর্বাহ্ন

জাপানে পড়তে যাচ্ছেন ৩৩ জন সরকারি কর্মকর্তা

  • আপডেট: Friday, July 21, 2023 - 3:00 pm

অনলাইন ডেস্ক: জাপান-বাংলাদেশ সরকার টু সরকার ফ্রেমওয়ার্কের আওতায় ‘জাপানিজ গ্র্যান্ট এইড ফর হিউম্যান রিসোর্স ডেভেলপমেন্ট স্কলারশিপ’ (জেডিএস) নিয়ে জাপানে পড়তে যাচ্ছেন ৩৩ জন সরকারি কর্মকর্তা। এরমধ্যে ৩০ জন মাস্টার্স এবং তিনজন পিএইচডি করবেন।

এরা প্রকল্পটির ২২তম মাস্টার্স ও ৬ষ্ঠ পিএইচডি ব্যাচ। এতে অর্থায়ন করছে জাইকা।

গত বুধবার রাতে জাপান দূতাবাসে স্কলারশিপ প্রাপ্তদের বিদায়ী সংবর্ধনা দেওয়া হয়। আগামী আগস্ট মাসে তারা জাপানের উদ্দেশ্যে ঢাকা ছাড়বেন। প্রকল্পটির পিআর প্রতিষ্ঠান ফোরথট্‌পিআর থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ সব তথ্য জানানো হয়েছে।

জেডিএস প্রকল্পের অধীনে জাপানের শীর্ষ বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে দেশের তরুণ সরকারি কর্মকর্তাদের স্কলারশিপ দেওয়ার মাধ্যমে মানব সম্পদ উন্নয়নে সহায়তা করা হয়। বাংলাদেশের বিসিএস ক্যাডার সার্ভিস, বাংলাদেশ ব্যাংক এবং জুডিশিয়াল সার্ভিসের কর্মকর্তা এই স্কলারশিপ পেয়ে থাকেন।

আশা করা হয়, এই প্রকল্পে অংশগ্রহণকারীরা প্রোগ্রাম শেষ করে দেশে ফিরে নীতি নির্ধারণ ও বাস্তবায়নে স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশ নেয়ার মাধ্যমে জাতির আর্থ-সামজিক উন্নয়নে ভূমিকা রাখবেন।

এ ছাড়া এর মাধ্যমে তরুণ কর্মকর্তারা জাপানের সমাজ ও কাজের ক্ষেত্র সম্পর্কে ভালোভাবে জানার সুযোগ পাবেন। ২০০২ সাল থেকে এখন পর্যন্ত ৫২৫ জন সরকারি কর্মকর্তা জেডিএস বৃত্তি পেয়েছেন।

আন্তর্জাতিক সম্পর্ক জোরদার করার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে এরকম অ্যাকাডেমিক আঙ্গিকে এই প্রোগ্রাম তৈরি করা হয়েছে বিজ্ঞপ্তিতে আরও উল্লেখ করা হয়েছে।

বিদায়ী অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূত ইওয়ামা কিমিনোরি, অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের অতিরিক্ত সচিব এবং আমেরিকা ও জাপান উইংয়ের প্রধান একেএম শাহাবুদ্দিন এবং জাইকা বাংলাদেশের চিফ রিপ্রেজেন্টেটিভ ইচিগুচি তোমোহিদে প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

জেডিএস প্রকল্পের অন্তর্ভূক্ত জাপানের হিরোশিমা ইউনিভার্সিটি, ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব জাপান, কেইও ইউনিভার্সিটি, কোবে ইউনিভার্সিটি, মেইজি ইউনিভার্সিটি, রিককিয়ো ইউনিভার্সিটি, রিতসুমেইকান ইউনিভার্সিটি, তসুকুবা ইউনিভার্সিটি, ইয়ামাগুচি ইউনিভার্সিটি ও ইয়োকোহামা ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে স্কলারশিপ প্রাপ্তরা পড়ার সুযোগ পাবেন।

সোনালী/জেআর