ঢাকা | এপ্রিল ১৯, ২০২৪ - ৮:১৯ পূর্বাহ্ন

বাংলাদেশের রুদ্ধশ্বাস জয়

  • আপডেট: Saturday, July 15, 2023 - 12:09 am

অনলাইন ডেস্ক: রুদ্ধশ্বাস জয়। অবিশ্বাস্য জয়। স্নায়ুর লড়াই শেষে বাংলাদেশই জিতে গেল। আফগানিস্তানকে ২ উইকেটে হারিয়ে সিরিজে এগিয়ে গেল সাকিব আল হাসানের দল। তবে ম্যাচে হারলেও শেষ ওভারে হ্যাটট্রিক করলেন আফগান বোলার করিম জানাত।

গতকাল সিলেটে শেষ ওভারে নাটক জমে উঠেছিল। জয়ের জন্য বাংলাদেশের দরকার ছিল মাত্র ৬ রান। জানাতের প্রথম বলেই বাউন্ডারি হাঁকিয়ে মেহেদী মিরাজ বাংলাদেশকে জয়ের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে গেলেন। কিন্তু পরের বলেই পুল করতে গিয়ে মিডউইকেটে নবীর হাতে ধরা পড়েন।

এর পরের দুই বলে তাসকিন আহমেদ ও নাসুম আহমেদকে আউট করে হ্যাটট্রিক পূরণ করেন জানাত। সেই সঙ্গে আফগানদের জয়ের সম্ভাবনাও জাগিয়ে তোলেন। শেষ দুই বলে জয়ের জন্য বাংলাদেশের প্রয়োজন তখন দুই রান। শরিফুল এসে পয়েন্ট দিয়ে বাউন্ডারি হাঁকিয়ে স্বাগতিকদের আনন্দে ভাসান। আফগানিস্তানকে ২ উইকেটে হারিয়ে দুই ম্যাচের টি-২০ সিরিজে এগিয়ে গেল বাংলাদেশ।

গতকাল প্রথমে ব্যাট করে ৭ উইকেট হারিয়ে ১৫৪ রান করেছিল আফগানরা। হাফ সেঞ্চুরি করেন মোহাম্মদ নবী। ১৫৫ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরুতে চাপে পড়লেও পঞ্চম উইকেটে তৌহিদ হৃদয় ও শামীম পাটোয়ারীর ক্যারিশমাটিক ৭৩ রানের জুটিতে রুদ্ধশ্বাস জয় পায় বাংলাদেশ।

ছয় নম্বরে ব্যাট করতে নেমে শামীম ২৫ বলে ৩৩ রান করে আউট হলেও হৃদয় হার না মানা ৪৭ রানের ইনিংস খেলে দলের বিজয় নিশ্চিত করে দেশবাসীর হৃদয় জয় করেই বাইশগজ ছাড়েন। গতকাল রান তাড়া করতে নেমে শুরুতে মহাবিপদে পড়েছিল বাংলাদেশ। ১০.১ ওভারে ৬৪ রানে টপঅর্ডারের চার ব্যাটসম্যানকে হারায় বাংলাদেশ। তখনো জয়ের জন্য দরকার ছিল ৫৯ বলে ৯১ রান। কিন্তু পঞ্চম উইকেটে ঝড় তোলেন শামীম ও হৃদয়। তাদের ৭৩ রানের জুটিটি ছিল মাত্র ৪৪ বলে।

আফগানিস্তানের সেরা বোলার ওমরজাইয়ের ১৩তম ওভার থেকে ২১ রান নেন বাংলাদেশের দুই ব্যাটার। বাংলাদেশের স্কোর লাইন ৭৯/৪ থেকে হয়ে যায় ১০০/৪। এরপর ম্যাচের ১৭তম ওভারে আরেক সেরা পেসার ফারুকির ওপর আবারও চড়াও হন হৃদয় ও শামীম। ওই ওভারে ১৬ রান নেন। এরপর বাংলাদেশের টার্গেট সহজ হয়ে যায়। যদিও আগেই এ জুটি ভাঙার দারুণ সুযোগ পেয়েছিল আফগানিস্তান।

বাংলাদেশের ১১৬ রানের সময় মুজিবুর রহমানের বলে ক্যাচ তুলে দিয়েছিলেন শামীম। কিন্তু আফগান ফিল্ডার নাজিব জাদরান ডিপ স্কোয়ার লেগে সহজ ক্যাচ মিস করেন। ২৪ রানে নতুন জীবন পেয়ে ৩৩ রান করেন শামীম।

গতকাল একাদশে ছয় ছয়জন জেনুইন বোলার নিয়ে আভিজাত্য দেখিয়েছেন সাকিব। ‘লাক্সারি’ বোলিং আক্রমণ নিয়ে পাওয়ার প্লেতে দাপট দেখালেও স্লগ ওভারে সুবিধা করতে পারেননি বাংলাদেশের বোলাররা। ১৬ ওভারে ৫ উইকেটে আফগানিস্তানের রান ছিল ১০১। কিন্তু শেষ চার ওভারেই বাজিমাত করে দিয়েছে সফরকারী দলের ব্যাটাররা।

শেষের ২৪ ডেলিভারি থেকে তারা করেছেন ৫৩ রান। অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ নবী ঝোড়ো গতিতে ব্যাটিং করে পুষিয়ে দিয়েছেন। তিনি মাত্র ৪০ বলে খেলেছেন অপরাজিত ৫৪ রানের ইনিংস।

ষষ্ঠ উইকেট জুটিতে আজমতুল্লাহ ওমরজাইয়ের সঙ্গে তার ৩১ বলে ৫৬ রানের জুটি আফগানিস্তানকে পৌঁছে দিয়েছে ১৫৪ রানে। তবে সিলেটের উইকেটে এ রান জয়ের জন্য যথেষ্ট ছিল না। তার পরও ক্যারিশমাটিক বোলিং আক্রমণ দিয়ে শেষ ওভারে নাটক জমিয়ে তুলেছিল আফগানিস্তান।

সোনালী/জেআর