ঢাকা | এপ্রিল ১৫, ২০২৪ - ৮:৫৪ অপরাহ্ন

হাসপাতালে নিবিড় পর্যবেক্ষণে খালেদা জিয়া

  • আপডেট: Tuesday, June 13, 2023 - 3:22 pm

অনলাইন ডেস্ক: বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রয়েছেন। তার শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল রয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুরে খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত চিকিৎসক ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন জানান, সোমবার রাতে খালেদা জিয়াকে হাসপাতালে নেওয়া হয়। কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে চিকিৎসকদের পরামর্শে তাকে এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে তিনি হাসপাতালের কেবিনে চিকিৎসকদের নিবিড় পর্যবেক্ষণে রয়েছেন। তার অবস্থা স্থিতিশীল।

খালেদা জিয়া দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন জানিয়ে তিনি বলেন, ‘পরীক্ষা-নিরীক্ষার রিপোর্ট নিয়ে একটি মেডিকেল বোর্ড পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবে। তখন গণমাধ্যমকে ম্যাডামের (খালেদা জিয়া) শারীরিক অবস্থা নিয়ে ব্রিফ করব।’

বিএনপির একটি দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, খালেদা জিয়ার শরীরে জ্বর ও ব্যথা রয়েছে। এক্সরে ও আল্ট্রাসনোগ্রাম করানো হয়েছে। চিকিৎসকদের পরামর্শে তিনি এভারকেয়ার হাসপাতালের ৭ম তলায় (কেবিন নং ৭২০৩ ও ৭২০৪) নিবিড় পর্যবেক্ষণে রয়েছেন।

সূত্র জানায়, সোমবার মধ্যরাতে খালেদা জিয়ার অসুস্থতার খবর পান বিএনপি নেতারা। রাত ১২টায় তার গুলশানের বাসভবন ফিরোজায় যান অধ্যাপক ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন।

পরে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমানউল্লাহ আমান, চেয়ারপারসনের বিশেষ সহকারী শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস, সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ, ঢাকা মহানগর উত্তরের সদস্য সচিব আমিনুল হক, যুবদলের সিনিয়র সহ সভাপতি মামুন হাসানও রাতে ফিরোজায় যান। তখন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের নিয়ে গঠিত মেডিকেল বোর্ডের সদস্যদের সঙ্গে আলাপ করে দ্রুত খালেদা জিয়াকে হাসপাতালে নেয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

রাত ১টা ২০ মিনিটে ছোটভাই শামীম এস্কান্দারের কালো রঙের একটি গাড়িতে করে হাসপাতালের উদ্দেশে বাসা থেকে রওনা হন বিএনপি চেয়ারপারসন।

ওই গাড়িতে শামীম এস্কান্দারের স্ত্রী কানিজ ফাতেমাও ছিলেন। রাত ১টা ৪০ মিনিটে এভারকেয়ার হাসপাতালে পৌঁছান। এরপর কিছু পরীক্ষা শেষে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এর আগে, গত ২৭ ফেব্রুয়ারি চিকিৎসা শেষে বাসায় ফেরেন বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া।

সোনালী/জেআর