ঢাকা | জুলাই ২৫, ২০২৪ - ৩:০৪ পূর্বাহ্ন

প্রতীক পেয়েই ভোটের মাঠে মেয়র-কাউন্সিলর প্রার্থীরা

  • আপডেট: Friday, June 2, 2023 - 7:00 pm

 || রাজশাহী সিটি নির্বাচন-২০২৩ || 

স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহী সিটি করপোরেশন (রাসিক) নির্বাচনে প্রতীক বরাদ্দ পেয়েছেন মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা। প্রতীক পাওয়ার পরপরই তারা নেমেছেন ভোটের মাঠে। শুরু করেছেন প্রচারণা। মাঠে প্রার্থীদের উপস্থিতির ধরণ দেখে বোঝা গেছে, প্রচারে নামার জন্য তাদের আগে থেকেই ছিল সব ধরনের প্রস্তুতি।

আজ শুক্রবার সকাল ১০টা থেকে রাজশাহী জেলা শিল্পকলা অ্যাকাডেমীতে প্রতীক বরাদ্দ কার্যক্রম শুরু হয়। রিটার্নিং কর্মকর্তা দেলোয়ার হোসেন প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দ দেন। প্রথমে সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হয়। এরপর চারজন মেয়র প্রার্থী এবং সবশেষে সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক দেওয়া হয়।

সকাল ৯টা থেকেই নিজেদের প্রস্তাবক ও কর্মীদের নিয়ে শিল্পকলা অ্যাকাডেমিতে আসতে শুরু করেন প্রার্থীরা। প্রতীক বরাদ্দ কার্যক্রমের আগে ইভিএম মেশিনে কিভাবে ভোট দিতে হয়, সেই প্রক্রিয়া দেখানো হয়।

এবারের সিটি নির্বাচনে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন মোট চার প্রার্থী। তারা সবাই পেয়েছেন নিজ-নিজ দলীয় প্রতীক। আওয়ামী লীগ মনোনীত ও ১৪ দল সমর্থিত প্রার্থী এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন নৌকা, জাতীয় পার্টির সাইফুল ইসলাম স্বপন লাঙ্গল, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মুর্শিদ আলম হাতপাখা এবং জাকের পার্টির লতিফ আনোয়ার পেয়েছেন গোলাপ ফুল প্রতীক।

এদিকে, প্রতীক বরাদ্দের পরপরই সমর্থকদের নিয়ে আনুষ্ঠানিক প্রচারণা শুরু করেন প্রায় সব প্রার্থীরাই। প্রচারণার প্রথম দিনেই প্রার্থীদের প্রচার দেখে বোঝা গেছে, আগে থেকেই তাদের সব ধরনের প্রস্তুতি ছিল।

ইতিমধ্যেই অধিকাংশ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থীরা প্রতীকসহ সাটিয়েছেন ব্যানার-ফেস্টুন। তবে যথাযথ আচরণবিধি মেনেই প্রার্থীদের প্রচার-প্রচারণা চালানোর নির্দেশনা দিয়েছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা।

প্রতীক পেয়ে নৌকার প্রার্থী খায়রুজ্জামান লিটন গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আজ থেকেই আমাদের প্রচারণা শুরু হচ্ছে। কাল নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করা হবে।’ অন্য তিন প্রার্থী প্রতীক পেয়ে বলছেন, তারাও আজ থেকেই প্রচার শুরু করছেন। তারাও বিভিন্ন উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন।

নির্বাচন কমিশন ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, আগামী ২১ জুন ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। মোট ১৫২টি ভোট কেন্দ্রের এক হাজার ১৭৩টি কক্ষে ওই দিন সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে ইভিএমের মাধ্যমে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

এই নির্বাচনে এবার ভোটার সংখ্যা তিন লাখ ৫২ হাজার ১৫৭ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার এক লাখ ৭১ হাজার ১৮৫ এবং নারী এক লাখ ৮০ হাজার ৯৭২। আর এবারই প্রথমবারের মতো ভোটা দেবেন ৩০ হাজার ১৫৭ ভোটার।

সোনালী/জগদীশ রবিদাস