ঢাকা | এপ্রিল ২০, ২০২৪ - ৭:৫১ পূর্বাহ্ন

নওগাঁয় ২ হাজার কোটি টাকার আম বাণিজ্যের আশা

  • আপডেট: Tuesday, May 23, 2023 - 12:22 am

অনলাইন ডেস্ক: প্রতি বছরের মতো এবারও নওগাঁয় আম পাড়ার দিন নির্ধারণ করে দিয়েছিল জেলা প্রশাসন। সেই মোতাবেক সোমবার থেকে আম পাড়া শুরু হয়েছে।

এরপর পর্যায়ক্রমে বাজারে আসবে গোপালভোগ, ক্ষীরশাপাতি, আম্রপালি, নাকফজলি, ল্যাংড়া, বারি-৪ ও গৌরমতীসহ অন্যান্য আম।

এর আগে ৭ মে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে এক সভায় জেলা প্রশাসক খালিদ মেহেদী হাসান জাতভেদে আম পাড়ার সময়সূচি নির্ধারণ করে দেন।

সভায় আমচাষি, ব্যবসায়ী, কৃষি কর্মকর্তা ও প্রশাসনের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। সভায় জেলা প্রশাসক খালিদ মেহেদী হাসান জানান, এ বছর আম পাড়া শুরু হবে সোমবার (২২ মে) থেকে। এই দিন বা তার পরে যে কোনো দিন গুটি আম পাড়া যাবে বা বাজারজাত করা যাবে। এরপর আসবে গোপালভোগ।

গোপালভোগ পাড়া যাবে ৩০ মে। এ ছাড়াও ক্ষীরশাপাতি বা হিমসাগর ৫ জুন, নাকফজলি ৮ জুন, ল্যাংড়া ও হাঁড়িভাঙ্গা ১২ জুন, ফজলি আম ২২ জুন ও আম্রপালি ২৫ জুন থেকে পাড়া যাবে।

সর্বশেষ ১০ জুলাই থেকে পাড়া যাবে আশ্বিনা, বারী-৪ ও গৌরমতি জাতের আম। মূলত অপরিপক্ব আম পেড়ে মেডিসিন দিয়ে পাকিয়ে কেউ যাতে বাজারে নিয়ে আসতে না পারে এ জন্যই গত কয়েক বছর ধরে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আম পাড়ার সময়সীমা বেঁধে দেওয়া হয়।

জেলা প্রশাসনের নির্ধারিত দিনের আগে আম পাড়া যাবে না। তবে আবহাওয়ার তারতম্যের কারণে নির্ধারিত সময়ের আগেই যদি কোনো বাগানে আম পেকে যায় সংশ্লিষ্ট উপজেলা প্রশাসনকে জানিয়ে চাষিরা আম পাড়তে পারবেন।

সভায় জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক আবুল কালাম আজাদ বলেন, জেলায় এ বছর ৩০ হাজার হেক্টর জমিতে আম চাষ হয়েছে। যা গত বছরের তুলনায় ৫২৫ হেক্টর বেশি।

প্রতি হেক্টর জমিতে ১২ দশমিক ৫০ টন হিসেবে ৩ লাখ ৭৫ হাজার ৫৩৫ টন আম উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।

যে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে সেটি ছাড়িয়ে যেতে পারে। এ বছর প্রায় ২ হাজার কোটি টাকা আম বেচাকেনা হতে পারে বলে আশা কৃষি বিভাগের।

সোনালী/জেআর