ঢাকা | এপ্রিল ১৪, ২০২৪ - ৬:১১ অপরাহ্ন

আমের রাজ্যে আম নামানো শুরু

  • আপডেট: Thursday, May 4, 2023 - 9:00 pm

ডেস্ক: গুটি জাতের আম পাড়ার মধ্য দিয়ে বৃহস্পতিবার থেকে রাজশাহীতে শুরু হয়েছে আম নামানোর মৌসুম। এখনো আম পরিপক্ক না হওয়ায় প্রথম দিন সামান্য পরিমাণ আম পাড়া হয়েছে গাছ থেকে। হাতে গোনা কিছু গাছ থেকে বৈশাখী বা গুটি আম ও চৌষা জাতের আম নামানো হয়েছে।

এরমধ্যে বাঘা থেকে আমচাষী শফিকুল ইসলাম ছানা ৩০০ কেজি চৌষা আম ইতালি পাঠিয়েছেন। হংকং পাঠিয়েছেন ১৪০ কেজি। এছাড়া মৌসুমের প্রথম দিন চারঘাট উপজেলার কিছু কিছু গাছ থেকে পরিপক্ক বৈশাখী আম নামানো হয়েছে।

কৃষি অফিস জানিয়েছে, এ বছর ১৯ হাজার ৫৭৮ হেক্টর জমিতে ২ লাখ ৫৮ হাজার ৪৪০ মেট্রিক টন আম উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে।

রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোজদার হোসেন বলেন, ‘ঝড় ও শিলা বৃষ্টি এবং খরায় আমের কিছুটা ক্ষতি হয়েছে। তবে এবার প্রচুর আম গাছে এসেছিল। তাই যে আম ঝরে গেছে, তাতে উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা কমবে না। বরং কিছু আম ঝরে যাওয়ায় অন্য আম সাইজে বড় হবে, ওজনেও বাড়বে। নতুন করে আর ঝড় ও শিলা না হলে আমের উৎপাদন ভালো হবে। এই আম বিক্রি করে চাষীরা অন্তত দেড় হাজার কোটি টাকা ঘরে তুলবেন।’

তিনি আরো বলেন, ‘আম নামানোর মৌসুমের প্রথম দিন সব গুটি আম পাকেনি। কিছু কিছু গাছে আম পাকা শুরু হয়েছে। এটার পরিমাণ খুবই কম। চারঘাটে বৈশাখী জাতের অন্তত ২৫০ থেকে ৩০০ গাছের বাগান আছে। সেই আমগুলো পেকেছে। বাঘায় চৌষা নামের একটি আমের জাত আছে। সেটাও পেকেছে। পর্যায়ক্রমে অন্য আম পাকবে।’

এদিকে আমের বৃহত্তম হাট বানেশ্বরে বৃহস্পতিবার তেমন আম উঠতে দেখা যায়নি। দুপুরের দিকে মাত্র দুইভ্যান আম উঠলেও তা জুস কারখানার ক্রেতারা কিনে নিয়ে যায়। টক মিষ্টি স্বাদ হওয়ায় সাধারণ ক্রেতারা এই আম কেনায় আগ্রহী ছিলেন না।

এর আগে বুধবার রাজশাহীর জেলা প্রশাসক শামীম আহমেদ বিভিন্ন জাতের আম নামানোর সময়সীমা বেঁধে দিয়ে ক্যালেন্ডার ঘোষণা করেন। সেই অনুযায়ী বৃহস্পতিবার থেকে গুটি আম এবং আগামী ১৫ মে থেকে নামানো যাবে গোপালভোগ আম।

২০ মে থেকে রানীপছন্দ ও লক্ষণভোগ বা লকনা, ২৫ মে থেকে হিমসাগর বা খিরসাপাত, ৬ জুন থেকে ল্যাংড়া, ১০ জুন থেকে আম্রপলি, ১৫ জুন ফজলি, ১০ জুলাই আশ্বিনা, বারি ফোর ও গৌড়মতি, ২০ আগস্ট থেকে ইলামতি আম নামানো যাবে। আর বারোমাসি আম কাটিমন ও বারি ১১ আম সারাবছরই সংগ্রহ করা যাবে।

সোনালী/জেআর