ঢাকা | এপ্রিল ২১, ২০২৪ - ৭:২৫ পূর্বাহ্ন

দ্রব্যমূল্য বেড়েছে, আয় বাড়েনি শ্রমজীবীদের: বাদশা

  • আপডেট: Tuesday, May 2, 2023 - 3:22 pm

স্টাফ রিপোর্টার: বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ও রাজশাহী-২ আসনের সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা বলেছেন, করোনা বলুন বা রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ, সব থেকে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে শ্রমজীবী মানুষ। তারাই এখন সবথেকে কষ্টের মধ্যে আছে। দ্রব্যমূল্যের দাম যেভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে, সেভাবে শ্রমজীবী মানুষের রোজগার বাড়েনি। বরং তাদের আয়-রোজগার আরো কমেছে।

সোমবার সকালে মহান মে দিবস উপলক্ষে শহরের ভুবন মোহন পার্কে রাজশাহীর বিল্ডিং কার্পেন্টার শ্রমিক ইউনিয়ন কর্তৃক আয়োজিত আলোচনা ও সাধারণ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। এতে সভাপতিত্ব করেন ইউনিয়নের সভাপতি আলমগীর হোসেন আলো।

আলোচনা সভায় ফজলে হোসেন বাদশা বলেন, রাজশাহীর কল-কারখানাগুলো বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। পাটকল যেন বন্ধ না করা হয়; সেজন্য আমি নিজে শ্রমিকদের সঙ্গে গণ অনশনে বসেছিলাম। বাংলাদেশের বর্তমান অর্থনৈতিক পরিস্থিতিতে সব থেকে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে দেশের শ্রমজীবী মানুষ। তাদের কর্মস্থান কমেছে, রোজগার কমেছে, কিন্তু দ্রব্যমূল্য বেড়ে গেছে। তাদের হাহাকার শোনার মত কে আছে? সরকারের প্রতি আহ্বান জানাই, যে সকল শ্রমজীবী মানুষের রোজগার কমেছে, তাদের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতের জন্য রেশন ব্যবস্থা চালু করুন।

ধনী ব্যক্তি আরো ধনী হচ্ছে মন্তব্য করে রাকসুর সাবেক এই ভিপি বলেন, দেশে একটি শ্রেণী রাতারাতি হাজার হাজার কোটি টাকার মালিক হয়ে যাচ্ছে। আর যারা উৎপাদন করে, নিজের শ্রম দিয়ে বাংলাদেশের অর্থনীতিকে বাঁচিয়ে রেখেছে; সেই শ্রমজীবী মানুষ মাটির সঙ্গে মিশে যাচ্ছে। এমন অসম পার্থক্য আমরা দেখতে চাইনি। সংবিধানে উল্লেখ করা আছে, মানুষে মানুষে সমতা থাকবে, রাষ্ট্র হবে বৈষম্যহীন। বঙ্গবন্ধু এই বাংলাদেশ চাননি। আমরা যারা মুক্তিযুদ্ধ করেছি, যারা শহীদ হয়েছেন; তারাও এই বাংলাদেশ চায়নি। আমরা এমন বাংলাদেশ চেয়েছি যেখানে সকল মানুষ একইভাবে সুখে জীবন যাপন করবে।

অর্থনৈতিক বৈষম্যের বিরুদ্ধে শ্রমজীবীদের লড়াই সংগ্রামের আহ্বান জানিয়ে ১৪ দলীয় জোটের অন্যতম এ নেতা বলেন, শ্রমজীবী মানুষ ঐক্যবদ্ধ হন। কেউ রাতারাতি ধনী হবে, আর কেউ একশ টাকা উপার্জনের জন্য মাথার ঘাম পায়ে ফেলবে; এমন বৈষম্য চলতে দেওয়া যাবে না। কারো মিষ্টি কথায় গলে গেলে চলবে না। এদেশের গরীব, মেহনতী মানুষ আমরা নিজেদের দাবি আদায় যদি ঐক্যবদ্ধ হতে না পারি; তাহলে আমরা ভিক্ষুকে পরিণত হব। আমি আমার রাজনৈতিক জীবনে সবসময় শ্রমিকদের পক্ষে দাঁড়িয়েছি। তাদের দাবি আদায়ের রাজপথে থেকেছি। আপনারা ঐক্যবদ্ধ হলে অবশ্যই আপনাদের সঙ্গে, আপনাদের কাঁতারে আমি থাকবো।

সোনালী/জগদীশ রবিদাস