ঢাকা | এপ্রিল ২০, ২০২৪ - ৭:০৭ অপরাহ্ন

চাঁপাইয়ে দুই গ্রুপের মারামারিতে স্কুলছাত্র নিহত

  • আপডেট: Sunday, April 23, 2023 - 11:39 pm

অনলাইন ডেস্ক: চাঁপাইনবাবগঞ্জে ফুচকা খাওয়ার সময় চেয়ারে বসাকে কেন্দ্র করে কিশোর গ্যাংয়ের দুই দলের মধ্যে মারামারিতে মো. ফাহাদ (১৬) নামে এক স্কুলছাত্র নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় গুরুতর আহত হয়েছে আরেক কিশোর।

রোববার (২৩ এপ্রিল) রাত সাড়ে ৭টার দিকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার রেহাইচর বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সেতুর দক্ষিণ পাশে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ফাহাদ ফুলকুড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্র ও জেলা শহরের মসজিদপাড়া মহল্লার মনিরুল ইসলামের ছেলে।

একই গ্যাংয়ের গুরুতর আহত কিশোর মিস্ত্রিপাড়া মহল্লার আশরাফুল ইসলামের ছেলে মো. ইমন (১৭)। গুরুতর আহত ইমন বর্তমানে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

নিহতের বন্ধু, স্থানীয় বাসিন্দা, প্রত্যক্ষদর্শী, হাসপাতাল ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, জেলা শহরের মসজিদপাড়া ও সদর উপজেলার বারোঘরিয়ার দুইটি কিশোর গ্যাংয়ের মধ্যে শত্রুতার ছিল। এরই সূত্র ধরে রোববার সন্ধ্যার পর বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সেতুর নিচে ফুচকার দোকানে চেয়ারে বসাকে কেন্দ্র করে ও শত্রুতার জেরে মারামারি ও হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়ে তারা।

এসময় টিপ চাকু দিয়ে বারঘোরিয়া এলাকার গ্যাং এর সদস্যরা ফাহাদের পিঠে আঘাত করলে গুরুতর আহত হয় সে। এ ঘটনায় ফাহাদের অপর বন্ধু ইমনও আহত হয়।

আহত ইমন জানায়, অপর কিশোর গ্যাং এর সদস্য মেরাজ, রাহাতসহ ৮-১০ জন তাদের ওপর হামলা করে।

পরে স্থানীয় বাসিন্দা ও ফাহাদের বন্ধুরা গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা হাসপাতালে ভর্তি করে। এসময় চিকিৎসক ফাহাদকে মৃত ঘোষণা করেন। এছাড়াও অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য আহত ইমনকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়েছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় বাসিন্দা বলেন, গতকালকেও তাদের মধ্যে একটা ঝামেলা হয়েছে। এ নিয়ে আজকে আবারও হাতাহাতি হয়। একপর্যায়ে ছুরিকাঘাত করে। দুই কিশোর গ্যাংয়েরই ১০-১২ জন করে মারামারিতে অংশ নিয়েছিল বলে জানান তিনি।

২৫০ শয্যা বিশিষ্ট চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা হাসপাতালের জরুরি বিভাগের মেডিকেল অফিসার ডা. নাজির আহমেদ জানান, অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে ফাহাদের মৃত্যু হয়েছে। অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় আরেকজনকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়েছে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাজ্জাদ হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, মরদেহ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা হাসপাতাল মর্গে রয়েছে। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। ঘটনার পর থেকে হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের ধরতে বিভিন্নস্থানে অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

সোনালী/জেআর