ঢাকা | জুন ২১, ২০২৪ - ১০:৩০ অপরাহ্ন

রাজশাহী শহরের প্রথম মডেল মসজিদ উদ্বোধন

  • আপডেট: Monday, January 16, 2023 - 3:06 pm

স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহী উপশহরের প্রথম মডেল মসজিদের দুয়ার খুললো আজ সোমবার (১৬ জানুয়ারি)। মহানগর এলাকায় নির্মিত এই প্রথম মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রটি আজ সকালে গণভবন থেকে ভর্চ্যুয়ালি উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একইসময় রাজশাহীসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় আরও ৫০টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রেরও উদ্বোধন করেছেন তিনি।

রাজশাহী শহরে নবনির্মিত এই মসজিদে একসঙ্গে ১ হাজার ৫০০ মুসল্লি নামাজ আদায় করতে পারবেন। এখানে নারী ও প্রতিবন্ধীদের জন্যও নামাজ এবং ওযুর পৃথক সুব্যবস্থা রয়েছে। এছাড়া মসজিদের মুসল্লিদের জন্য আরও সুযোগ সুবিধা রয়েছে। চার তলা বিশিষ্ট সাড়ে ৪ হাজার বর্গমিটারের মসজিদের দুই ও তিন তলায় রয়েছে মূল নামাজ ঘর।

আর প্রথম ও চতুর্থ তলায় রয়েছে ইমাম প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, ইসলামী বই বিক্রয় কেন্দ্র, অটিজম কর্নার, ইসলামী গবেষণা ও দ্বীনি দাওয়াহ কার্যক্রম, ইসলামি লাইব্রেরি, হেফজ খানা, শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রম, দেশি-বিদেশিদের আবাসন ও অতিথিশালা, মরদেহের গোসল ও কাফনের সুব্যবস্থা, ইমাম-মুয়াজ্জিনদের আবাসন।

মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, সারা দেশে দ্বিতীয় পর্যায়ে ৫০টি মসজিদ খোলার মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী এখন পর্যন্ত ৯ হাজার ৪৩৫ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত ৫৬৪টির মধ্যে ১০০টি মসজিদ উদ্বোধন করলেন। তিনি এর আগে ২০২১ সালের ১০ জুন প্রথম ধাপে ৫০টি মসজিদ উদ্বোধন করেছিলেন। আশা করা হচ্ছে, আগামী ফেব্রুয়ারির শেষে তৃতীয় ধাপে আরও ৫০টি মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র চালু করা হবে।

অনুষ্ঠানে মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের ওপর একটি ভিডিও ডকুমেন্টারি প্রদর্শন করা হয়। ইসলামের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পদাঙ্ক অনুসরণ করে শেখ হাসিনা সারা দেশে ৫৬৪টি মডেল মসজিদ নির্মাণের পরিকল্পনা করেন।

এ প্রকল্পের উদ্দেশ্য হলো, ইসলামি ভ্রাতৃত্ব এবং এর মূল্যবোধের প্রচার এবং সেই সঙ্গে চরমপন্থা ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে ইসলামের সারমর্ম প্রচার করা। কারণ, ধর্ম কখনোই এগুলোকে সমর্থন করে না। এটি সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড প্রচারের পাশাপাশি সন্ত্রাসবাদ ও নারীর প্রতি সহিংসতার বিরুদ্ধে সচেতনতা সৃষ্টিতেও মনোনিবেশ করবে।

কর্মসূচিতে রাজশাহীর মডেল মসজিদ প্রাঙ্গন থেকে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন, রাজশাহী-২ আসনের সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা, রাজশাহী জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর ইকবাল, রাজশাহী রেঞ্জের ডিআইজি আবদুল বাতেন, মহানগর পুলিশ কমিশনার আনিসুর রহমান, জেলা প্রশাসক আবদুল জলিল, পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন, মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী কামাল, সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকারসহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ ভার্চ্যুয়ালি যুক্ত ছিলেন।

সোনালী/জগদীশ রবিদাস