ঢাকা | জুন ১৬, ২০২৪ - ১২:০৩ পূর্বাহ্ন

শতাধিক নারীকে ধর্ষণ করেছেন এই ‘জিলাপি বাবা’

  • আপডেট: Wednesday, January 11, 2023 - 5:19 pm

অনলাইন ডেস্ক: ভারতের পাঞ্জাব রাজ্য থেকে ভাগ্য ফেরাতে হরিয়ানায় আসেন তিনি। শুরু করেন জিলাপি বানিয়ে বিক্রির ব্যবসা। পরে তিনি হয়ে ওঠেন স্বঘোষিত গুরু। এরপর শতাধিক নারীকে ধর্ষণ করেছেন বলে অভিযোগ জিলাপি বাবা ওরফে বিল্লু ওরফে অমরবীরের বিরুদ্ধে। আদালতে তিনি দোষী সাব্যস্ত হয়ে বর্তমানে কারাগারে।

ফতেহাবাদের অতিরিক্ত জেলা বিচারক বলবন্ত সিংহ তাকে দোষী সাব্যস্ত করেছেন। ধর্ষণের ভিডিও দেখিয়ে নির্যাতিতাদের ব্ল্যাকমেলও করতেন তিনি। তার পর আবার তাদের ধর্ষণ করতেন।

২০১৯ সালের ১৯ জুলাই হরিয়ানার তোহানা পুলিশ গ্রেপ্তার করে জিলাপি বাবাকে। ধর্ষণের একটি ভিডিও প্রকাশ্যে এসেছিল তার। এর পরেই গ্রেপ্তার হন। তদন্তে নেমে এ রকম আরও ভিডিওর সন্ধান পান তারা।

তদন্তে নেমে ১২০টি ভিডিওর খোঁজ পেয়েছিল তোহানা পুলিশ। ভিডিওগুলি নিজের মোবাইলে তুলেছিলেন জিলাপি বাবা। সেই প্রমাণও পেয়েছে পুলিশ।

৬৩ বছরের জিলাপি বাবার আসল নাম অমরবীর ওরফে অমরপুরী। আদতে পঞ্জাবের মানসা গ্রামের বাসিন্দা তিনি। চার মেয়ে এবং দুই ছেলে রয়েছে তার। স্ত্রী মারা গিয়েছিলেন বহু বছর আগে।

২৩ বছর আগে মানসা থেকে হরিয়ানার ফতেহাবাদের তোহানা গ্রামে চলে আসেন অমরপুরী। সেখানে জিলাপি বিক্রি করতেন তিনি। তোহানায় এসে প্রথম ১৩ বছর সেই কাজটাই করেছিলেন অমরবীর। সে ভাবেই সংসার চালাতেন।

জিলাপি বিক্রির সময় এক তান্ত্রিকের সঙ্গে পরিচয় হয় অমরপুরীর। তাঁর থেকেই শিখেছিলেন তন্ত্রসাধনা।

কয়েক বছরের জন্য অমরপুরী তোহানা থেকে নিখোঁজ হয়ে যান। এর পর ফিরে এসে একটি বাড়ি তৈরি করেন। সঙ্গে লাগোয়া মন্দির। সেই মন্দিরে ধীরে ধীরে ভক্ত সমাগম হতে থাকে। বেশির ভাগই ছিলেন মহিলা। জিলাপি বাবা নামে পরিচিত হন তিনি।

বলা হত, জিলাপি বাবার উপর ভর হয়। তখন তিনি অনেক অজানা কথা বলেন। সেই শুনতেই হাজির হতেন মহিলারা।

মহিলা ভক্তদের মাদক খাইয়ে ধর্ষণ করতেন অমরপুরী ওরফে জিলাপি বাবা। সেই ঘটনার ভিডিওও তুলে রাখতেন। সেই ভিডিও দেখিয়েই পরে ব্ল্যাকমেল করতেন নির্যাতিতাদের। তার পর চলত লাগাতার ধর্ষণ।

২০১৮ সালে এক মহিলা অভিযোগ করেন, মন্দিরের ভিতর তাঁকে ধর্ষণ করেছেন জিলাপি বাবা। পুলিশ গ্রেফতার করে অমরপুরীকে। যদিও ওই মামলায় পরে জামিন পেয়ে যান তিনি। নির্যাতিতা ছিলেন অমরপুরীর এক পরিচিতের স্ত্রী।

২০১৯ সালে একটি ধর্ষণের ভিডিও প্রকাশ্যে আসার পর আবার তাঁকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তাঁর মন্দিরে তল্লাশি চালিয়ে যৌন উত্তেজক ওষুধ, ধর্ষণের ভিডিওর হদিস পায় পুলিশ।

তোহানার ভাটিয়া নগরে ছিল অমরপুরীর মন্দির। স্থানীয়রা অনেক দিন আগেই টের পেয়েছিলেন তাঁর কীর্তি। তাতে অমরপুরীর কোনও সমস্যা হয়নি। অন্য শহর, রাজ্য থেকে তখন আসতে থাকেন মহিলা ভক্তরা। তাঁদের উপরও চলতে থাকে ধর্ষণ।

২০১৯ সালের জুলাই থেকে হাজতে জিলাপি বাবা। দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন। মঙ্গলবার আদালত তাঁকে ১৪ বছর কারাবাসের নির্দেশ দিয়েছে। সূত্র: আনন্দবাজার

সোনালী/জেআর