ঢাকা | ফেব্রুয়ারী ২৮, ২০২৪ - ৯:৫৮ অপরাহ্ন

পার্লার সেবার নামে ডেকে ধর্ষণ: গ্রেফতার দুই শিক্ষার্থী রিমান্ডে

  • আপডেট: Friday, October 14, 2022 - 4:19 pm

অনলাইন ডেস্ক: রাজধানীর শুক্রাবাদে পাঁচ মাসের অন্তঃসত্ত্বা এক বিউটিশিয়ানকে পার্লার সেবার কথা বলে বাসায় ডেকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনায় গ্রেফতার শিক্ষার্থী মো. রিয়াদ (২৪) ও ইয়াছিন হোসেন ওরফে সিয়ামের (২৩) দুদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

শুক্রবার (১৪ অক্টোবর) তাদের আদালতে হাজির করে পুলিশ। এরপর ধর্ষণের ঘটনায় শেরেবাংলা নগর থানায় করা মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য তাদের সাতদিনের রিমান্ড আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। শুনানি শেষে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট শুভ্রা চক্রবর্তী তাদের দুদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে রাজধানী শুক্রাবাদে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করে পুলিশ। এসময় তাদের কাছ থেকে ভিকটিমের মোবাইলফোন উদ্ধার করা হয়।

ধর্ষণের শিকার তরুণী (২৫) পেশায় একজন বিউটিশিয়ান। আগে বিউটিপার্লারে কাজের অভিজ্ঞতা থাকায় ভিকটিম করোনা পরবর্তীসময়ে সেবা দিতে ফেসবুকে একটি পেজ খোলেন। তার কাছ থেকে আগে সেবা নেওয়া পরিচিত এবং অনলাইনে যোগাযোগ করা নারীরা তার প্রধান সেবাগ্রহীতা।

গত ১১ অক্টোবর বিকেলে ফোনে তেমনই একটি সেবাদানের (ফেসিয়াল) অনুরোধ পান ভুক্তভোগী তরুণী। তাসলিমা নামের এক নারী ফোন করেছিলেন বলে ভিকটিম পুলিশকে জানান। ওইদিন ভিকটিম সাভার থেকে ফেসিয়াল সেবা দিতে শুক্রাবাদ এলাকায় আসেন।

পথে তাসলিমার ভাই পরিচয়ে গ্রেফতার রিয়াদ ফোনে বেশ কয়েকবার তার সঙ্গে কথা বলেন। সন্ধ্যায় শুক্রাবাদ এলাকায় পৌঁছালে রিয়াদ ওই তরুণীকে তাদের ভাড়া বাসায় নিয়ে যান।

কিছুক্ষণ পর সিয়াম ও জিতু নামে তার আরও দুই বন্ধুকে নিয়ে ঘরে প্রবেশ করেন রিয়াদ। এরপর ভয়ভীতি দেখিয়ে তারা একে একে ওই তরুণীকে ধর্ষণ করেন। এরপর তারা ভিকটিমের কাছ থেকে মোবাইলফোন ছিনিয়ে নিয়ে তাকে পথে ছেড়ে দিয়ে চলে যান।

পরে ভিকটিমকে তার স্বামী ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টার (ওসিসি) থেকে প্রথমে বিষয়টি ধানমন্ডি থানাকে জানানো হয়। তবে ঘটনাস্থল তাদের আওতাধীন না হওয়ায় বিষয়টি শেরেবাংলা নগর থানাকে বুঝিয়ে দেয় ধানমন্ডি থানা। এ ঘটনায় ভুক্তভোগীর স্বামী বাদী হয়ে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে মামলা করেন শেরেবাংলা নগর থানায়।

সোনালী/জেআর