ঢাকা | ফেব্রুয়ারী ২৪, ২০২৪ - ৭:৩৩ অপরাহ্ন

স্বপ্ন জয়ের লড়াইয়ে আজ মাঠে নামবে মেয়েরা

  • আপডেট: Monday, September 19, 2022 - 12:30 pm

অনলাইন ডেস্ক: হতাশা আর পরাজয়ের গ্লানি ভুলে স্বপ্নের শিরোপা জয়ের লড়াইয়ে আজ সাফ নারী চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে নেপালের বিপক্ষে মাঠে নামবে বাংলার মেয়েরা। এর আগেও নারী সাফের ট্রফির কাছে গিয়েও হাতছোঁয়া দূরত্ব থেকে ফিরে এসেছিল বাংলাদেশ।

তবে এসব আর ভাবতে চান না অধিনায়ক সাবিনা খাতুন ও কোচ গোলাম রাব্বানী ছোটন। কথা একটাই, ফাইনালের স্বপ্ন নিয়ে নেপালে এসেছিলাম সেটা পূর্ণ হয়েছে। এখন খেলা একটাই। সেটা ফাইনাল।

নেপালের মাঠে নেপালের বিপক্ষে ফাইনাল, একটু কঠিন কাজই বটে। এরমাঝে তাদের বাড়তি দর্শক সাপোর্ট। তবে এই পরিবেশেও বেশ আত্মবিশ্বাসী টুর্নামেন্ট জুড়ে অপরাজিত সাবিনারা।

আজ বিকেল সোয়া ৫টায় শুরু হবে ফাইনাল । নারী সাফের ফাইনালে স্টেডিয়াম ঠাসা দর্শক থাকবে। বাংলাদেশের নারী ফুটবলারদের জন্য কঠিন লড়াই হবে। তবে কোচ গোলাম রাব্বানী ছোটন মনে করছেন, এটা কোনো সমস্যা হবে না।

ছোটন বলেন, আমার মনে হয়, ফাইনালে ১৫ হাজার দর্শক হবে। এটা অনেক সময় কঠিন হয়ে পড়ে এমন পরিস্থিতিতে খেলা। কিন্তু আমার মেয়েদের এই ভরা গ্যালারিতে খেলার অনেক অভ্যাস আছে। ভালো অভিজ্ঞতা আছে। মনে করে দেখুন, ২০১৫ সালে এই নেপালে অনূর্ধ্ব-১৫ সাফে খেলেছে। ওরা কিন্তু জিতেছিল। ২০১৮ সালে ভুটানে অনেক দর্শক ছিল। সেখানে নেপালের বিপক্ষে জিতেছিল এই মেয়েরা।

আমাদের মেয়েরা মিয়ানমারে ২০১৯ সালে এএফসি কোয়ালিফাইংয়ে ভালো অভিজ্ঞতা পায়। সেখানে বাছাইপর্বে মিয়ানমারের সঙ্গে জয় পেয়েছিলাম। সেখানেও ভরা দর্শক ছিল। মিয়ানমারের দর্শক তুমুল চিত্কার করে কান ফাটিয়ে দিয়েছিল। আমাদের মেয়েরা কানে ‘তুলো’ দিয়ে খেলেছে। আওয়াজ কানে নেয়নি। ওরা ভালো খেলেছিল। আমি মনে করি, ঐ অভিজ্ঞতা আজ ফাইনালে কাজে লাগবে।’

এদিকে নেপালের কোচ কুমার থাপা বলেন, বাংলাদেশ এক বার ফাইনাল খেলেছে। আমরা চার বার ফাইনাল খেলছি। কিন্তু ট্রফি পাইনি ভারতের কারণে। এবার নতুন ইতিহাস হতে যাচ্ছে দুই দলের জন্যই। নতুন চ্যাম্পিয়ন পেতে যাচ্ছে সাফ। আমরা সবাই সেটা জানি। আমরা সুযোগটা নষ্ট করতে চাই না। আমরা নিজের মাঠে খেলতে পেরে খুশি। আমরা আশা করি সমর্থকরা হতাশ হবে না ৯০ মিনিট দেখে। আমরা স্বাগতিক। গত তিন বছর এটার অপেক্ষায় ছিলাম। পরিকল্পনা টিমওয়ার্ক সঙ্গে থাকছে এক্সটা এনার্জি ফ্যান। সব আছে। আমি আত্মবিশ্বাসী।

সোনালী/জেআর