ঢাকা | জুন ২২, ২০২৪ - ১:৩২ অপরাহ্ন

স্কুলশিক্ষকের স্ত্রীর অবৈধ পৌনে এক কোটি টাকা

  • আপডেট: Monday, September 5, 2022 - 11:49 pm

স্টাফ রিপোর্টার: সনদ বাণিজ্য করে কোটিপতি হয়েছেন স্কুলশিক্ষক কামরুজ্জামান মুকুল। এবার তার স্ত্রীর নামে পাওয়া গেছে পৌনে এক কোটি টাকা। যার হিসাব তিনি দিতে পারেননি।

সনদ বাণিজ্য করে অবৈধ ভাবে সম্পদ ও টাকা আয় করার জন্য গত ২৫ আগস্ট স্কুলশিক্ষক কামরুজ্জামান মুকুলের নামে মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) রাজশাহী কার্যালয়। এরপর গতকাল সোমবার তার স্ত্রীর নামেও মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলা দুইটির বাদী হয়েছেন দুদকের জেলা কার্যালয়ের সহকারি পরিচালক আমির হোসাইন।

কামারজ্জামানের স্ত্রী মারুফা খানম ৭৯ লাখ ৫৭ হাজার টাকা অবৈধ সম্পদ অর্জন করেছেন। আবুল হাসনাত কামরুজ্জামান মুকুল (৪৮) এই দম্পতি মারুফা খানম (৪৬) নগরীর গোরহাঙ্গা এলাকায় বাস করেন। তাদের গ্রামের বাড়ি রাজশাহীর চারঘাট উপজেলার জোতকার্তিক এলাকায়। তারা নগরীর একটি কারিগরী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চালান।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মামলার বাদী ও রাজশাহী জেলা কার্যালয়ের (দুদক) সহকারী পরিচালক আমির হোসাইন। তিনি জানান, মারুফা খানম তার দাখিল করা সম্পদ বিবরণীতে উল্লেখ করেছেন তার নামে ১ কোটি ৬৪ লাখ ৬২৫ টাকা মূল্যের স্থাবর ও ৭ লাখ ৫৪ হাজার টাকা মূল্যের অস্থাবর সম্পদ রয়েছে। অর্থাৎ তার নামে মোট ১ কোটি ৮ লাখ ১৮ হাজার ৬২৫ টাকা মূল্যের স্থাবর-অস্থাবর সম্পদ রয়েছে।

যার মধ্যে ১৯ লাখ ৫ হাজার ৫৬৪ টাকা ঋণ রয়েছে। কিন্তু মারুফা খানমের সম্পদ বিবরণী যাচাই করে দুদক পায়, মারুফার নামে ১ কোটি ৬৪ হাজার ৬২৫ টাকার স্থাবর ও ৪ লাখ ৩০ হাজার ৫৩৮ টাকার অস্থাবর সম্পদ রয়েছে। অর্থাৎ তার মোট সম্পদ দাঁড়িয়েছে ১ কোটি ৪ লাখ ৯৫ হাজার ১৬৩ টাকায়।

বিবরণীতে তার ঋণ পাওয়া যায় ১৭ লাখ ৪৯ হাজার ৮৪১ টাকা। কিন্তু তিনি সম্পদ বিবরণীতে ১ লাখ ৫৫ হাজার ৭২৩ টাকা বেশি ঋণ দেখিয়েছেন। ঋণ বাদে তার স্থাবর-অস্থাবর সম্পদের মূল্য দাঁড়ায় ৮৭ লাখ ৪৫ হাজার ৩২২ টাকার। অথচ তার বৈধ আয় পাওয়া যায় মোট ৯ লাখ ৪৫ হাজার ৭৫৪ টাকার।

তার পারিবারিক ব্যয় ১ লাখ ৫৭ হাজার ৬২৫ টাকা। তার পারিবারিক ব্যয়সহ অর্জিত সম্পদে ব্যয়ের পরিমাণ ৮৯ লাখ ২ হাজার ৯৪৭ টাকা। ফলে তিনি অসাধু উপায়ে জ্ঞাত আয়ের উৎসের সঙ্গে অসংগতিপূর্ণ ৭৯ লাখ ৫৭ হাজার ১৯৩ টাকা মূল্যের সম্পদের মালিকানা অর্জন করেছেন। যা দুর্নীতি দমন কমিশন আইন-২০০৪ এর ২৭ (১) ধারায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ। এ কারণে দুদক বাদী হয়ে মারুফা খানমের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করে।

প্রসঙ্গত, মারুফা খানমের স্বামী আবুল হাসনাত মো. কামরুজ্জামান মুকুল রাজশাহীর চারঘাট উপজেলার জোতকার্তিক বিএন উচ্চবিদ্যালয়ের সাবেক সহকারী শিক্ষক। গত ৪ জানুয়ারি তার দাখিলকৃত সম্পদ বিবরণীতে ১ কোটি ৫১ লাখ ৬৩ হাজার ৯৯৯টাকার সম্পদের তথ্য অসদুদ্দেশ্যে গোপনপূর্বক মিথ্যা ও ভিত্তিহীন তথ্য প্রদান করে এবং অসাধু উপায়ে জ্ঞাত আয়ের উৎসের সাথে অসংগতিপূর্ণ ১ কোটি ৮৪ লাখ ৫৩ হাজার ৯৮৪ টাকার সম্পদের মালিকানা অর্জন করে।