ঢাকা | জুন ১৩, ২০২৪ - ৪:৩৬ অপরাহ্ন

বাল্য বিয়ে দিতে গিয়ে ধরা পড়লেন আইনজীবী, মুচলেকায় পেলেন ছাড়া

  • আপডেট: Sunday, September 4, 2022 - 2:00 pm

অনলাইন ডেস্ক: পঞ্চগড়ে অপ্রাপ্তবয়স্ক তরুণ-তরুণীকে সাধারণত হলফনামার মাধ্যমে (কোর্ট ম্যারেজ) বিয়ে দিতে গিয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতে ধরা পড়েছেন মোহাম্মদ রবিউল ইসলাম নামে এক আইনজীবী। এসময় আদালতের বিচারকের কাছে মুচলেকা দিয়ে ছাড়া পেয়েছেন তিনি।

এদিকে বর শাহিনুর ইসলামকে (২০) ১২ হাজার টাকা জরিমানা করে আদায় করা হয়েছে। ঘটনার পর অভিযুক্ত তরুণসহ সবাইকে সচেতন করা হয়।

শনিবার (৩ সেপ্টেম্বর) দিনগত রাতে পঞ্চগড় সদরে উপজেলার ধাক্কামারা ইউনিয়নে আইনজীবীর নিজ বাড়ির অফিস কক্ষে এ ঘটনা ঘটে। এসময় অভিযানের নেতৃত্ব দেন পঞ্চগড় সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট মাসুদুল হক।

ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্রে জানা যায়, গোপনে অপ্রাপ্তবয়স্ক তরুণ-তরুণীকে সাধারণত হলফনামার মাধ্যমে (কোর্ট ম্যারেজ) বিয়ে দিতে যান আইনজীবী মোহাম্মদ রবিউল ইসলাম। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রাতে আইনজীবীর বাড়িতে ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক উপস্থিত হলে তাদের হাতেনাতে ধরে ফেলেন।

এসময় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও সদর থানা পুলিশের উপস্থিতিতে ভ্রাম্যমাণ আদালতে বর শাহিনুরকে বাল্য বিবাহ নিরোধ আইনে ১২ হাজার টাকা জরিমানা ও অনাদায়ে তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়। একই সময় অপ্রাপ্তবয়স্ক তরুণীকে তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করে সবাইকে সচেতন করা হয়। এ ঘটনায় মুচলেকা দেন আইনজীবী।

ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক মাসুদুর হক বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে তাদের জরিমানাসহ সচেতন করা হয়। একই অপরাধের সঙ্গে যুক্ত থাকার অপরাধে আইনজীবী মোহাম্মদ রবিউল ইসলাম ভ্রাম্যমাণ আদালতের কাছে মুচলেকা দেন। নিজের ভুল বুঝতে পেরে সাজা হিসেবে মুচলেকায় তিনি ভুল স্বীকার করে এমন কাজ থেকে নিজেকে দূরে রাখার ঘোষণা দেন। এবং আগামী এক মাসে পাঁচটি বাল্যবিবাহ বন্ধ করে সবাইকে সচেতন করবেন বলে মুচলেকায় লিখে স্বাক্ষর করেন।

সোনালী/জেআর