ঢাকা | জুন ১৫, ২০২৪ - ১১:৫৪ অপরাহ্ন

বন্ধুত্বের প্রস্তাব ফেরানোয় তরুণীকে পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগ

  • আপডেট: Monday, August 29, 2022 - 2:47 pm

অনলাইন ডেস্ক: ফোনে বন্ধুত্বের প্রস্তাব দিয়েছিলেন এক তরুণ। প্রস্তাব ফিরিয়ে দেওয়ায় তরুণীর (১৯) বাড়িতে এসে তিনি পেট্রল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এতে মারা গেছেন ওই তরুণী।

দ্বাদশ শ্রেণির ওই ছাত্রীর মৃত্যুতে তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে ভারতের ঝাড়খণ্ডের দুমকার ওই গ্রামে। দোষীর শাস্তির দাবিতে তীব্র আন্দোলন শুরু করেছেন স্থানীয়রা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ১৪৪ ধারা জারি করেছে প্রশাসন।

ঘটনার শুরু গত মঙ্গলবার। এক যুবক প্রতিবেশী তরুণীর গায়ে পেট্রল ঢেলে তাঁকে জ্বালিয়ে দেন বলে অভিযোগ। শরীরের ৯০ শতাংশ পুড়ে যাওয়া ওই তরুণীকে ভর্তি করা হয় দুমকার মেডিকেল কলেজে। পরে তাঁকে রাঁচির রাজেন্দ্র ইনস্টিটিউট অব মেডিক্যাল কলেজে স্থানান্তর করা হয়। গতকাল (রোববার) রাতে তাঁর মৃত্যু হয়।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম আনন্দবাজার পত্রিকার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এই খবর ছড়িয়ে পড়তেই তীব্র উত্তেজনা ছড়ায় এলাকায়। অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করছে পুলিশ।

হাসপাতালের বিছানায় শুয়ে মৃত্যুর আগে তরুণী যা জানিয়েছেন তা রীতিমতো চাঞ্চল্যকর। তরুণীর বয়ান অনুযায়ী, দিন দশেক আগে একটি অচেনা নম্বর থেকে ফোন করে তাঁকে বন্ধুত্বের প্রস্তাব দেওয়া হয়। তিনি রাজি হননি। পরে গত সোমবার আবার ফোন আসে। এবার ‘বন্ধুত্ব’ না করলে খুনের হুমকি দেওয়া হয়। ভয় পেয়ে বাবাকে সব কথা খুলে বলেন তরুণী। বাবা তাঁকে আশ্বস্ত করে বলেন পরের দিন ব্যবস্থা নেবেন। এরপর রাতে যে যার ঘরে ঘুমোতে চলে যান।

মৃত্যুর আগে তরুণী আরও বলেন, ঘুমিয়েছিলাম। ভোরে (মঙ্গলবার) শরীরে তীব্র ব্যথা শুরু হয়। পোড়া গন্ধ পাই। চোখ খুলতেই দেখি, ওই যুবক পালাল। আমি চিৎকার শুরু করি। আমার সারা গায়ে তখন আগুন ধরে গিয়েছে। বাবা-মা এসে আগুন নেভানোর চেষ্টা করে। পরে আমাকে হাসপাতালে নিয়ে আসে।

তরুণীর পরিবারের দাবি, জানালা দিয়ে তাঁদের মেয়ের ঘরে পেট্রল ঢেলে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়েছে।

এই ঘটনার প্রতিবাদে দুমকা শহরসহ বিভিন্ন জায়গায় প্রতিবাদ মিছিল শুরু করে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ এবং বজরং দল। ১৯ বছরের তরুণীর খুনের বিচার চেয়ে প্রশাসনের কাছে স্মারকলিপি দিয়েছে তারা।

সোনালী/জেআর