ঢাকা | জুন ২১, ২০২৪ - ১১:০৭ অপরাহ্ন

দুর্গাপুরে বাল্যবিয়ে ঠেকাতে জেল-জরিমানা

  • আপডেট: Saturday, August 20, 2022 - 10:23 pm

 

দুর্গাপুর প্রতিনিধি: দুর্গাপুরে অষ্টম শ্রেনি পড়ুয়া এক ছাত্রীর বাল্যবিয়ে পন্ড করে দিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সোহেল রানা। এসময় বাল্যবিয়ে দিতে সহযোগিতা করার দায়ে কনের নানার ৬ মাসের কারাদন্ড ও স্থানীয় এক ইউপি সদস্যসহ তিনজনের ৬০ হাজার টাকা অর্থদন্ড করে ভ্রাম্যমান আদালত। গতকাল শনিবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে।

থানার পুলিশ জানায়, শনিবার উপজেলার বেড়া গ্রামের আব্দুল জলিলের ছেলে রায়হান ইসলামের (২৮) সঙ্গে পাশ্ববর্তী বর্দ্ধণপুর গ্রামের ১৪ বছর বয়সের এক স্কুলছাত্রীর ধুমধাম করে বাল্যবিয়ের আয়োজন চলছিল। অভিযোগের ভিত্তিতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সোহেল রানা কনে ও বরের বাড়ি বেড়া ও বর্দ্ধণপুর গ্রামে অভিযান চালায়।

এ সময় বাল্যবিয়ে দিতে সহযোগিতা করায় এক ইউপি সদস্যসহ ৫ জনকে আটক করা হয়। আটককৃতরা হলো- উপজেলার বেড়া গ্রামের ইউপি সদস্য তামেজ উদ্দিন, কনের নানা পুঠিয়া ভাল্লুকগাছী গ্রামের কাবিল উদ্দিন, একই গ্রামের মেহেদী হাসান, আতাব আলী ও বড়ইগ্রাম উপজেলার লক্ষীকূল গ্রামের আকবর হোসেন।

পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতে বাল্যবিয়ে দিতে সহযোগিতা করার অপরাধে কনের নানা কাবিল উদ্দিনের ৬ মাসের কারাদন্ড ও ইউপি সদস্য তামেজ উদ্দিনের ৩০ হাজার টাকা এবং আতাব, মেহদী, আকবরের প্রত্যেকের ১০ হাজার টাকা করে অর্থদন্ড করেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সোহেল রানা।

ইউপি সদস্য তামেজ উদ্দিনসহ আরো তিনজন ভ্রাম্যমাণ আদালতে অর্থদন্ড দিয়ে ছাড়া পেলেও কনের নানা কাবিল উদ্দিনকে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।