ঢাকা | জুন ২১, ২০২৪ - ১০:৫৫ অপরাহ্ন

রাজশাহীতে চাঁদাবাজির সময় পুলিশকে হাতেনাতে ধরে গণপিটুনি

  • আপডেট: Tuesday, August 16, 2022 - 11:19 am

অনলাইন ডেস্ক: রাজশাহী মহানগরের হেতেম খাঁ এলাকায় চাঁদাবাজি করার সময় পুলিশের এক কনস্টেবলকে হাতেনাতে ধরে গণপিটুনি দিয়েছেন এলাকাবাসী। এ সময় ক্ষুব্ধ জনতার কাছ থেকে পুলিশের ওই সদস্যকে উদ্ধার করে থানায় সোপর্দ করেন ওয়ার্ড কাউন্সিলর।

সোমবার (১৫ আগস্ট) রাতে এ ঘটনা ঘটে।

ওই পুলিশ সদস্যের নাম মিজানুর রহমান। তিনি মহানগরের বায়া পুলিশ ফাঁড়িতে কনস্টেবল হিসেবে কর্মরত আছেন।

মহানগরের ১১ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর রবিউল ইসলাম তজু অভিযুক্ত পুলিশ কনস্টেবল মিজানুর রহমানের পরিচয় নিশ্চিত করেছেন। তবে এ ব্যাপারে পুলিশের কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

স্থানীয়রা জানান, মহানগরের হেতেম খাঁ সবজিপাড়ায় অবস্থিত একটি ছাত্রাবাসের এক ছাত্রকে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসিয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে গত রোববার (১৪ আগস্ট) টাকা দাবি করেন কনস্টেবল মিজানুর রহমান। এ সময় তিনি ওই ছাত্রের কাছ থেকে ছয় হাজার টাকা আদায় করেন এবং আরও ১০ হাজার টাকা দাবি করেন।

রাজশাহী মহানগরের ১১ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর রবিউল ইসলাম তজু জানান, সোমবার সন্ধ্যার পর হেতেম খাঁ সবজিপাড়ায় অবস্থিত তার কার্যালয়ের সামনে কনস্টেবল মিজানুর রহমান চাঁদাবাজি করতে এলে এলাকাবাসী তাকে হাতেনাতে ধরে গণপিটুনি দেন। এ সময় তিনি নিজে ক্ষুব্ধ এলাকাবাসীর কাছ থেকে সিভিল পোশাকে থাকা কনস্টেবল মিজানুর রহমানকে উদ্ধার করে বোয়ালিয়া থানা পুলিশের হাতে সোপর্দ করেন।

মঙ্গলবার (১৬ আগস্ট) সকাল পর্যন্ত অভিযুক্ত কনস্টেবল মিজানুর রহমান বোয়ালিয়া থানা পুলিশের হেফাজতেই ছিলেন।

তবে রাত থেকে সকাল পর্যন্ত তার ব্যাপারে বোয়ালিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাজহারুল ইসলাম কোনো বক্তব্য দেননি। এছাড়া তার ব্যাপারে বোয়ালিয়া জোনের ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তাদের কাছ থেকেও কোনো বক্তব্য মেলেনি। তবে পুলিশের একটি সূত্র জানিয়েছে- অভিযুক্ত পুলিশ কনস্টেবলকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নির্দেশনা পেলে মিজানুর রহমানের ব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সোনালী/জগদীশ রবিদাস