ঢাকা | জুন ২০, ২০২৪ - ১১:৩৩ অপরাহ্ন

বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পূরণের শপথ নেয়ার দিন আজ

  • আপডেট: Sunday, August 14, 2022 - 11:36 pm

 

১৫ আগস্ট, জাতীয় শোক দিবস। ১৯৭৫ সালের এই দিনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে নির্মমভাবে হত্যা করে একদল উচ্ছৃঙ্খল সেনা সদস্য। তার দুই কন্যা শেখ হাসিনা (বর্তমান প্রধানমন্ত্রী) ও শেখ রেহানা দেশের বাইরে থাকায় প্রাণে বেঁচে যান। ১৫ আগস্টের শহিদদের স্মরণে যথাযোগ্য মর্যাদায় সারাদেশে আজ পালিত হচ্ছে জাতীয় শোক দিবস।

সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে বঙ্গবন্ধুসহ সেদিনের শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাবার পাশাপাশি দেশের সর্বত্র শোকসভা, র‌্যালি, দোয়া মাহফিলের মাধ্যমে তাদেরকে স্মরণ করা হবে, বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করা হবে। জানানো হবে বিনম্র শ্রদ্ধা। এসব অনুষ্ঠানে বিশেষ করে স্মরণ করা হবে স্বাধীনতার স্থপতি হিসেবে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও কীর্তি যা তাকে দেশের সীমানা ছাড়িয়ে বিশ্ব নেতায় পরিণত করেছে।

একই সাথে ঘৃণাভরে ধিক্কার ধ্বনি উঠবে সেই সব ষড়যন্ত্রকারী ক্ষমতালিপ্সু রাজনীতিক ও সেনাসদস্যের প্রতি যারা বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সদস্যদের হত্যার মাধ্যমে দেশকে নেতৃত্ব শুন্য করে বিপথগামী করতে চেয়েছিল। মুক্তিযুদ্ধে অর্জিত স্বাধীনতার চেতনাকে ধ্বংস করতে চেয়েছিল। আজ এটা প্রতিষ্ঠিত সত্য যে, ষড়যন্ত্রকারী ঘাতকদের উদ্দেশ্য ব্যর্থ হয়েছে। বঙ্গবন্ধুর খুনিদের মুখোশ এখন উন্মোচিত। বিলম্বে হলেও বিচারে তাদের শাস্তি হয়েছে। পলাতক সাজাপ্রাপ্তদের দেশে ফিরিয়ে এনে সাজা কার্যকরের অপেক্ষায় আছে জাতি।

এই ঘাতকদের ষড়যন্ত্র ব্যর্থ করে জাতি আবার ঘুরে দাঁড়িয়েছে। স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের লক্ষ্য পূরণে দৃপ্ত পদভারে এগিয়ে চলেছে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে। এজন্য অবশ্য দীর্ঘ একুশটি বছর দুঃসহ সময় পার করতে হয়েছে জাতিকে। সব বাধার বিন্ধ্যাচল পেরিয়ে ঠিকই স্বাধীনতার পক্ষশক্তি জনসমর্থন নিয়েই ক্ষমতা অর্জন করেছে। কাক্সিক্ষত উন্নয়নের পথে দেশের অগ্রযাত্রা নিশ্চিত হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সম্মিলিত শক্তিই জাতিকে এগিয়ে নিয়েছে এটা জোর দিয়েই বলা যায়।

ক্রমাগত উন্নয়ন ও স্বাধীনতার স্বপ্ন বাস্তবায়নে ঐক্যবদ্ধ থাকার শপথই নতুন করে গ্রহণ করছে আজ জাতি। সেই সাথে ১৫ আগস্টের হত্যাকাণ্ডে জড়িত দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্রকারীদের চিন্থিত করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করার দাবিও উঠেছে। বিভিন্ন অনুষ্ঠানে নানাভাবে উচ্চারিত হবে বঙ্গবন্ধুর লালিত স্বপ্ন বাস্তবায়নের অঙ্গীকার। যা নিশ্চিত করবে স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তিকে মোকাবিলা করা, ১৫ আগস্টের শোক যা ঐক্যবদ্ধ শক্তিতে পরিণত হয়েছে সেটা এখন দেশজুড়েই প্রবলভাবে অনুভূত হচ্ছে। একটি উন্নত, অসাম্প্রদায়িক, সমতাভিত্তিক বাংলাদেশ গড়ে তুলেই বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পূরণের পথে সম্মিলিতভাবে এগিয়ে যেতে জাতি আজ নতুন করে শপথ নেবে। মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশ মাথা উঁচু রেখে সব বাধা পরাস্ত করে এগিয়ে যাবে অভিষ্ট লক্ষ্য পূরণে, সেটাই হোক আজকের শপথ।