ঢাকা | জুন ১৫, ২০২৪ - ১১:০৩ পূর্বাহ্ন

পুঠিয়ায় সভাপতি অধ্যক্ষ দ্বন্দ্বে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া

  • আপডেট: Saturday, August 13, 2022 - 10:25 pm

পুঠিয়া প্রতিনিধি: পুঠিয়ায় শহীদ নাদের আলী (বালিকা) স্কুল অ্যান্ড কলেজের ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি ও অধ্যক্ষের মধ্যে দ্বন্দ্বে উভয় গ্রুপের লোকজনের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীসহ এলাকাজুড়ে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। শনিবার সকাল ১১ টার দিকে নাদের আলী স্কুল অ্যান্ড কলেজে এ ঘটনা ঘটে।

প্রতিষ্ঠানের সহকারী শিক্ষকরা বলেন, গত কয়েক মাস আগে ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি ও প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষের মধ্যে অর্থ ভাগ বাটোয়ারা নিয়ে দ্বন্দ্ব হয়। এরপর অধ্যক্ষ সম্প্রতি এমপি মহোদয়ের সামনে তার শিক্ষাগত যোগ্যতা অষ্টম শ্রেণি পাশের কথা বলেন। এরপর থেকে দ্বন্দ্ব চরম আকার ধারণ করে।

সভাপতি ক্ষীপ্ত হয়ে একজন শিক্ষককে প্রলোভন দিয়ে অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে মামলা করান। সেই সাথে অধ্যক্ষর কক্ষে তালা লাগিয়ে তাকে সাময়িক বহিস্কার করা হয়। এ ঘটনায় গতকাল শনিবার সকালে উভয় গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়। এ সময় শিক্ষার্থীরা আতঙ্কে চিৎকার শুরু করে। পরে থানায় খবর দেয়া হলে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি মাহাবুব আলম বাবু বলেন, অধ্যক্ষ কৌশলে সরকারি অনুদানের উপবৃত্তির টাকা, বিভিন্ন সময় টিউশন ফির টাকা এবং কলেজের পুকুরের ইজারার ৬ লাখ ১৯ হাজার টাকা ব্যবস্থাপনা কমিটির অনুমতি ছাড়া ব্যাংক থেকে উঠিয়ে নেয়। এ ঘটনায় প্রতিষ্ঠানের পরিসংখ্যান বিভাগের শিক্ষক শামসুল আলম গত ৯ জুন আদালতে একটি মামলা করেন। তিনি বলেন, কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক গত বৃহস্পতিবার অধ্যক্ষকে সাময়িক সাসপেন্ড করা হয়েছে। সেই সাথে তার অনুপস্থিতির কারণে ওইদিন তার কক্ষে তালা লাগানো হয়। তবে শনিবার সকালে অধ্যক্ষর মতাদর্শী গুন্ডাবাহিনীরা প্রতিষ্ঠানে তালা ভাংচুর করে। আর কমিটির লোকজন বাধা দিতে গেলে তারা মারতে তেড়ে আসে।

প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ রুহুল আমিন নান্নু বলেন, সভাপতির লুটপাটে প্রতিষ্ঠানের শিক্ষা ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়েছে। বিষয়টি আমি প্রতিবাদ করায় তিনি আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র শুরু করেছেন। তিনি বলেন, আমি কোনো প্রকার অর্থ লুটপাট বা অনিয়ম করিনি। যা সঠিক তদন্ত করা হলে জানা যাবে।

থানার ওসি সোহরাওয়াদী হোসেন বলেন, সকালে নাদের আলী স্কুল অ্যান্ড কলেজে কিছু ঝামেলা হয়েছিল। পুলিশ যথা সময়ে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। তবে এ ঘটনায় কোনো হতাহত হয়নি। আর থানায় কেও কোনো অভিযোগও দেননি।

এ ব্যাপারে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা লায়লা আকতার জাহান বলেন, ওই স্কুলে অধ্যক্ষ ও ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতির মধ্যে দ্বন্দ্ব হয়েছে তা শুনেছি। বিষয়টি তদন্ত পূর্বক আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।