ঢাকা | মে ৩০, ২০২৪ - ৩:২৩ অপরাহ্ন

তৃণমূলের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতে সমন্বিত ব্যবস্থা জরুরি

  • আপডেট: Saturday, July 30, 2022 - 12:15 am

তৃণমূল পর্যায়ে প্রতিটি মানুষের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অধীনে প্রতিটি জেলা ও উপজেলায় একটি করে স্বাস্থ্য কেন্দ্র আছে। সেখান থেকে জনগণ কী ধরনের স্বাস্থ্যসেবা পাচ্ছে তা জানতে গবেষণা করেছে জাতীয় জনসংখ্যা গবেষণা ও প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট (নিপোর্ট)। ৩০টি স্বাস্থ্য কেন্দ্রের ওপর গবেষণা করতে দেশের ১২৮টি সংস্থা ও ৩ হাজার ৪২০ জনের সাক্ষাৎকার নেয়া হয়েছে। সম্প্রতি প্রকাশিত গবেষণার ফলাফলে দেখা গেছে ৩০টি স্বাস্থ্যকেন্দ্রের ২৮টিতেই কোনো মেডিকেল অফিসার নেই।

কেন্দ্রগুলোতে রয়েছে চরম জনবল সঙ্কট। ৩০টি স্বাস্থ্যকেন্দ্রের মধ্যে মাত্র ২টি উপজেলায় মেডিকেল অফিসার থাকলেও তারা ভালো সুযোগ পেলে চলে যাওয়ার পরিকল্পনায় আছেন বলে জানা গেছে। জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে সম্প্রসারিত টিকাদান কর্মসূচি বাদে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অধীনে জনগণের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতে এই কেন্দ্রগুলোর কোনো অবদান নেই। প্রয়োজনীয় অবকাঠামো থাকলেও চরম জনবল সঙ্কটে স্বাস্থ্যসেবা দেয়া সম্ভব হচ্ছে না বলে দেখা গেছে। উল্লেখিত ৩০ উপজেলার পাঁচটিতে কোনো ধরনের স্বাস্থ্য সেবা দেয়াই হচ্ছে না। এমনকি সম্প্রসারিত টিকাদান কর্মসূচিও বাস্তবায়ন হয় না সেখানে। এসব উপজেলায় স্বাস্থ্যসেবা বাস্তবায়নে স্ট্যান্ডিং কমিটির কোনো প্রকার মিটিং হয় না। যদিও নিয়ম অনুযায়ী প্রতি মাসে একবার এ মিটিং হবার কথা। ফলে এসব এলাকার তৃণমূলের মানুষ স্বাস্থ্য কেন্দ্রের সেবা থেকে বঞ্চিত। এসব কেন্দ্রে দায়ীত্বরত কর্মচারীরা তাদের দায়িত্ব সম্পর্কে অবগত নয়, এমন ভয়াবহ তথ্যও উঠে এসেছে ওই গবেষণায়।

এ সব সমস্যার সমাধানে গবেষণা প্রতিবিদনে দেয়া সুপারিশে বলা হয়েছে, জনগণের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার দায়িত্ব স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের। ওষুধসহ প্রয়োজনীয় জনবল নিশ্চিত করবে তারাই। বাস্তবায়নে সহযোগিতা করবে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়। দুই মন্ত্রণালয়ের সমন্বিত উদ্যোগেই তৃণমূলের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত হতে পারে।

বিষয়টি গুরুত্বপর্ণ, তাই এই অভিমত বিবেচনায় নিয়ে বাস্তবায়নে জরুরি পদক্ষেপ কাম্য।