ঢাকা | মে ৩০, ২০২৪ - ৮:৪৯ পূর্বাহ্ন

মেয়ের ছিন্নভিন্ন মাথা দেখে হতভম্ব বাবা

  • আপডেট: Thursday, July 28, 2022 - 2:06 pm

অনলাইন ডেস্ক: ‘পুলিশের গুলিতে ৮ মাসের মেয়ে সুরাইয়ার মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। ১৮ ঘণ্টা পার হয়ে গেলও এখনও মেয়ের মরদেহ পাইনি। কখন পাব? সে রকম কোনো খবরও নেই। মেয়ে হারানোর শোক, তার পরেও মহদেহ দাফন করতে না পারা; সব মিলিয়ে অনেক দুশ্চিতায় আছি।’ কথাগুলো বলছিলেন বুধবার সন্ধ্যায় নির্বাচনী সহিংসতায় পুলিশের গুলিতে নিহত শিশু সুরাইয়ার বাবা বাদশা মিয়া।

তিনি আরও বলেন, ‘ঝালমুড়ির দোকান করতাম। অসুস্থ থাকার কারণে সেটিও বন্ধ আছে। অন্যের বাড়িতে কাজ করে সংসার চলে। বসতভিটা নেই, সরকারি গুচ্ছগ্রামে বসবাস করি। কাজে থাকার কারণে বুধবার বিকেলে শেষ সময়ে ভোট দিতে কেন্দ্র যাই। ভোট শেষে করে কেন্দ্রেই ফলাফল জানার অপেক্ষায় ছিলাম।’

‘পাশে স্ত্রী মিনারা বেগমও মেয়ে সুরাইয়াকে কোলে নিয়ে ছিল। হঠাৎ কেন্দ্র ঝামেলার সৃষ্টি হলে মিনারাকে রাস্তার পাশে জহিরুলের বাড়িতে রেখে আমি চলে আসি। কিছুক্ষণ পরে জানতে পারি আমার ৮ মাসের সুরাইয়া আর নেই। জহিরুলের বাড়ির সামনে সুরাইয়ার ছিন্নভিন্ন মাথা দেখে আমি হতভম্ব। এই শোক কেমনে সহ্য করব।’ যোগ কেরন তিনি।

ঠাকুরগাঁওয়ে রানীশংকৈল উপজেলার বাচোর ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে দুই পক্ষের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। অভিযোগ উঠেছে, এ সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ গুলি চালালে আট মাসের এক শিশু নিহত হয়।

গুলিতে শিশুটির মাথার খুলি উড়ে যায়। বুধবার উপজেলার বাচোর ইউনিয়নের ভিএফ বালিকা বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রে ভোটের ফল ঘোষণা করার সময় এ ঘটনা ঘটে। নিহত শিশু মিডডাঙ্গী দিঘীপাড়া এলাকার বাদশাহ মিয়ার মেয়ে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, ভোটের ফল দেখতে শিশুটিকে কোলে নিয়ে ওই কেন্দ্রে আসেন তার মা। ভোটের ফল নিয়ে মেম্বার প্রার্থী জলিল ও ফয়জুল ইসলামের সমর্থকদের মাঝে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেলে গুলি ছোড়ে দায়িত্বরত পুলিশ। এ সময় গুলিবিদ্ধ হয়ে শিশুটি নিহত হয়।

রাণীশংকৈল থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এসএম জাহিদ ইকবাল বলেন, তদন্ত চলছে। এখন পর্যন্ত কোনো মামলা দায়ের হয়নি। নিহত শিশুর মরদেহ দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্ত শেষ মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

এ ঘটনায় রাতেই রাণীশংকৈল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসক মাহবুবুর রহমান ও পুলিশ সুপার জাহাঙ্গীর হোসেন নিহত সুরাইয়ার বাবা-মায়ের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে ৫০ হাজার টাকা প্রদান করেন।

জেলা প্রশাসক মাহবুবুর রহমান বলেন, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্টেট রাম কৃষ্ণ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রাজিয়া সুলতানা, উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা নূরে আলমসহ তিন সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত কমিটি সাত দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করবেন।