ঢাকা | মে ২০, ২০২৪ - ৬:১৮ পূর্বাহ্ন

ইউরোপে দাবানল: মৃত্যু ছাড়াল ১৭০০, আরো প্রাণহানীর আশঙ্কা

  • আপডেট: Thursday, July 21, 2022 - 2:32 pm

অনলাইন ডেস্ক: দাবানল ছড়িয়ে পড়া ইউরোপের বিভিন্ন দেশে ব্যাপক প্রাণহানি ঘটছে। কেবল স্পেন আর পর্তুগালেই গত সোমবার পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ১ হাজার ৭০০ জনেরও বেশি মানুষের। অন্যদিকে, যুক্তরাজ্যে গরম সইতে না পেরে সমুদ্রে নেমে মৃত্যু হয়েছে ৫ জনের। গতকাল বুধবার পর্যন্ত মাত্র চার দিনেই ১ হাজার মানুষের মৃত্যুর আশঙ্কা করছেন দেশটির বিশেষজ্ঞরা। এ অবস্থায় জাতিসংঘ সতর্ক করেছে, তাপদাহের এমন প্রবণতা ২০৬০ সাল পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে। খবর গার্ডিয়ান ও এনডিটিভির।

ব্যাপক তাপদাহে ৭ থেকে ১৮ জুলাই পর্যন্ত পর্তুগালে ১ হাজার ৬৩ জন মারা গেছেন বলে গত মঙ্গলবার রয়টার্সকে জানিয়েছেন পর্তুগালের স্বাস্থ্য মহাপরিচালক।

এদিকে, স্পেনের কার্লোস থ্রি ইনস্টিটিউটের মতে, গত সপ্তাহ তথা ১০ থেকে ১৭ জুলাই পর্যন্ত দেশটিতে মৃত্যু হয়েছে ৬৭৮ জনের। পরিস্থিতি এতটাই নাজুক যে, মৃত্যুর প্রকৃত সংখ্যাও নির্ণয় করা যাচ্ছে না। এ দুই দেশে এ অবস্থা আগামী সপ্তাহ বা তারও বেশি সময় ধরে থাকতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ফ্রান্স ও যুক্তরাজ্যে সর্বকালের উচ্চ তাপমাত্রার রেকর্ড ভাঙছে।

এ অবস্থায় জাতিসংঘের ওয়ার্ল্ড মেটিওরোলজিক্যাল অর্গানাইজেশনের প্রধান পেটেরি তালাস জেনেভায় এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, বায়ুমণ্ডলে বেশি কার্বন ডাই-অক্সাইড ছাড়ছে- এমন দেশগুলোর জন্য বর্তমান তাপদাহটি সতর্ক বার্তা। যদি কার্বন নির্গমন বন্ধ করা না হয়, তাহলে বিশ্বকে এর চূড়ান্ত মুহূর্তটি দেখতে হতে পারে।

এদিকে, দাবানল অব্যাহত থাকলেও এক দিনের ব্যবধানে যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্সে তাপমাত্রা নেমে এসেছে অর্ধেকে। এরই মধ্যে ফ্রান্সের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে ভয়াবহ দাবানল নিয়ন্ত্রণে আসতে শুরু করেছে। ফ্রান্সে মঙ্গলবার রেকর্ড করা ৪০ ডিগ্রি তাপমাত্রা থেকে নেমে গতকাল বুধবার ২০ ডিগ্রিতে দাঁড়িয়েছে।

অন্যদিকে যুক্তরাজ্যের তাপমাত্রাও অনেকটাই কমেছে, যা গত মঙ্গলবার ৪০ ডিগ্রি ছাড়িয়ে যায়। গ্রিসে রাজধানী এথেন্সের উত্তর-পূর্বে মাউন্ট পেন্টেলিতে প্রায় ৫০০ অগ্নিনির্বাপণ কর্মী দাবানল নিয়ন্ত্রণে কাজ করছেন। এর আগে বড় ধরনের দাবানল ইতালিতেও প্রভাব ফেলেছে। ফলে আজ দেশটিকে সর্বোচ্চ তাপদাহের সতর্কতা জারি করা হয়েছে।

তাপদাহ উত্তর-পূর্ব দিকে অগ্রসর হওয়ায় গতকাল বুধবার জার্মানির কিছু অংশে ৩৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়। এতে পরিবহন চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। সাগর ও নদীতে পানির স্তর কমে যাওয়ায় দেশটির কার্গো জাহাজগুলোতে মালপত্র কম বোঝাই করতে হবে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

সোনালী/জেআর