ঢাকা | মে ৩০, ২০২৪ - ১০:০২ পূর্বাহ্ন

পাঁচ মাসের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

  • আপডেট: Wednesday, July 20, 2022 - 1:22 pm

অনলাইন ডেস্ক: মানিকগঞ্জের সাটুরিয়ায় মালেকা আক্তার নামের পাঁচ মাসের অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যা করার অভিযোগ উঠেছে তার স্বামীর বিরুদ্ধে। মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০টার সময় উপজেলার বরাইদ ইউনিয়নের গোপালপুর গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় সাটুরিয়া থানায় মালেকার মা জীবননেছা বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা করেছেন।

অভিযুক্তর নাম মো. ফেরদৌস হোসেন। তিনি একই এলাকার শহীদের ছেলে।

জানা গেছে, সাত বছর আগে গোপালপুর গ্রামের মো. জব্বার আলীর মেয়ে মালেকা আক্তারের সাথে একই গ্রামের মো. ফেরদৌস হোসেনের বিয়ে হয়। বিয়ের পর ফেরদৌসের সঙ্গে অন্য নারীর সম্পর্ক তৈরি হয়। পরে তাকে বিয়ে করেন। ফেরদৌস দ্বিতীয় বিয়ে করার পর থেকেই প্রথম স্ত্রী মালেকাকে মারধর করতেন। একপর্যায়ে তিনি প্রথম স্ত্রীকে তালাক দেন। এ ঘটনায় স্থানীয়ভাবে আপোষ মীমাংসা করে ফেরদৌস প্রথম স্ত্রীর কাছ থেকে সাড়ে চার লাখ টাকা নিয়ে দ্বিতীয় স্ত্রীকে তালাক দেওয়ার আশ্বাস দেন এবং প্রথম স্ত্রীকে পুনরায় বিয়ে করেন।

কিন্তু ফেরদৌস টাকা নেওয়ার পরও দ্বিতীয় স্ত্রীকে তালাক না দেওয়ায় মালেকার সাথে প্রতিনিয়ত ঝগড়া হতো। মঙ্গলবার রাতে মালেকা ও ফেরদৌসের মধ্যে এ নিয়ে আবারও কথা কাটাকাটি হয়। এসময় ক্ষিপ্ত হয়ে ফেরদৌস তার পাঁচ মাসের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীর পেটে লাথি মারেন ও গলায়-মুখে আঘাত করে পেটাতে থাকেন। একপর্যায়ে মালেকা নিস্তেজ হয়ে পড়লে ফেরদৌস স্থানীয় পল্লী চিকিৎসক আক্কাছ আলীকে ডেকে আনেন। পরে চিকিৎসক মালেকাকে মৃত ঘোষণা করলে ফেরদৌস স্ত্রীর লাশ ফেলে রাতেই পালিয়ে যান।

মালেকার বাবা মো. জব্বার আলী জানান, তার মেয়ের জামাই ফেরদৌস হোসেনের তিল্লিচর এলাকায় পিংকী নামে একজনের সাথে পরকীয়া ছিল। পরে তাদের বিয়ে হয়। এ নিয়ে মালেকার সাথে জামাইয়ের প্রতিদিনই ঝগড়া হতো। দুইমাস আগে পিংকিকে ছেড়ে দেওয়ার কথা বলে সাড়ে চার লাখ টাকা নেয় জামাই। তার অভিযোগ, পিংকির পরামর্শে ফেরদৌস তার মেয়েকে হত্যা করেছে।

সাটুরিয়া থানার ওসি মুহাম্মদ আশরাফুল আলম বলেন, গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যার খবর পেয়ে রাতেই ঘটনাস্থলে গিয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তর জন্য মানিকগঞ্জ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় নিহত মালেকার মা জীবননেছা বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা করেছেন। আসামিকে ধরতে পুলিশ মাঠে রয়েছে বলেও জানান তিনি।

সোনালী/জেআর