ঢাকা | মে ২৭, ২০২৪ - ৩:২৭ পূর্বাহ্ন

৭ মডেলের অস্বাভাবিক মৃত্যু, নেপথ্যে কী

  • আপডেট: Monday, July 18, 2022 - 2:10 pm

অনলাইন ডেস্ক: কলকাতায় গত ৩ মাসে অন্তত ৭ জন মডেলের অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। এসব মৃত্যু হত্যা নাকি আত্মহত্যা, তা নিয়ে চলছে তদন্ত। এদিকে প্রশ্ন জেগেছে, গ্ল্যামার ভুবনের মোহনীয় আলোর আড়ালে কী এমন আঁধার লুকানো যে, একে একে গ্রাস করছে হাসি ঝলমলে সব মুখ? ভয়ংকর সেই ব্ল্যাক হোলের স্বরূপ বুঝতে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলেছে সমকাল।

এ প্রসঙ্গে অভিনেত্রী শ্রীলেখা মিত্র বলেন, রঙিন দুনিয়ার হাতছানিতে পথে নেমে হতাশ হন অনেকেই। আবিষ্কার করেন সাধ ও সাধ্য, যোগ্যতা ও স্বপ্নের আকাশ-পাতাল তফাত। কাজ না পেয়ে আর্থিক সংকটে ভোগেন কেউ কেউ। কঠোর পরিশ্রম করেও কেউ কেউ পান না কাঙ্ক্ষিত সাফল্য। করোনাকালে এসব সংকট আরও তীব্র হয়েছে। এতে বেড়েছে তীব্র হতাশাও।

তিনি বলেন, তরুণ অভিনেতা-অভিনেত্রীরা সোশ্যাল মিডিয়ার ইঁদুর দৌড়ে আটকে পড়ছেন। এই দৌড়ে পিছিয়ে পড়লে ঘিরে ধরে অবসাদ। এছাড়া অনেকের হাতে কাঁচা পয়সার পাশাপাশি রয়েছে সম্পর্কের টানাপোড়েন। এই পরিস্থিতি এড়াতে শুটিং ইউনিটে মনস্তাত্ত্বিক মূল্যায়নের ব্যবস্থা রাখা উচিত বলে পরামর্শ শ্রীলেখার।

লিভ ইন করা বিজ্ঞানসম্মত দাবি করে শ্রীলেখা বলেন, তবে অনেকেই সম্পর্ক হ্যান্ডেল করার জন্য মানসিকভাবে পরিণত নন। সম্পর্ক ভাঙলে ছেলে-মেয়ে উভয়ের দিকেই আঙুল ওঠে‌। গল্প তৈরি হয়। চাপ সামলাতে পারেন না অনেকেই। ফলে বেছে নিচ্ছেন আত্মহত্যার পথ। তবে অন্যান্য কারণেও বিনোদন দুনিয়ায় অস্বাভাবিক মৃত্যু বাড়ছে জানিয়ে তা খতিয়ে দেখার দাবি জানান এই অভিনেত্রী।

গ্ল্যামার জগতের চকচকে জীবনের আড়ালে এক ভয়ংকর ব্ল্যাক হোল লুকিয়ে আছে বলে মন্তব্য করেছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক টালিউডের দুই মডেল। সমকালকে তারা জানান, দ্রুত যারা অনেক বেশি অর্থ ও খ্যাতি চান, তাদের অনেকে অজান্তেই এই কৃষ্ণ গহ্বরে পা রাখেন।

নীল দুনিয়া, অনৈতিক লেনাদেনা বা ব্যক্তিগত গোপনীয়তা অন্যের হাতে তুলে দিয়ে জালে জড়ান তারা। সেই জাল থেকে মুক্ত হতে কেউ কেউ চির আঁধারে হারান, এমনটাই ভাষ্য এই দুই টালি মডেলের।

টালিউডের জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা নুসরাত জাহান বলেন, নতুন প্রজন্মের অনেক অভিনেত্রী তাদের উচ্চাকাঙ্ক্ষা ও বিলাসিতাকে আকাশছোঁয়া করে ফেলেন। তখন সাধ ও সাধ্যের তাল সামলাতে হিমশিম খান। মানসিক যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পেতে বেছে নেন আত্মহত্যার পথ।

এসব অনাকাঙ্ক্ষিত মৃত্যুকে দুঃখজনক বলে মন্তব্য করেন নুসরাত। তিনি বলেন, অভিনয় শিল্পীদের বলব, আকাঙ্ক্ষার লাগাম টেনে ধরতে হবে। সাফল্য ও খ্যাতিই সব নয়। আসল হচ্ছে আনন্দ নিয়ে কাজটি করা। সেটাই করুন না, জীবনকে উপভোগ করুন। মনে রাখবেন, আত্মহত্যা কোনো সমাধান নয়।

কনসালটেন্ট ক্লিনিক্যাল সাইকোলজিস্ট অন্বেষা ভট্টাচার্য বলেন, সম্প্রতি যেসব মডেল-অভিনেত্রী আত্মহত্যা করেছেন তারা প্রায় সবাই পরিবার থেকে আলাদা থাকতেন। অনেকেই লিভ ইন রিলেশনশিপে ছিলেন। সেসব সম্পর্ক সময়ের সঙ্গে তিক্ত হয়েছে বলে খবরে জেনেছি। তাদের পাশে মানসিক পরিস্থিতি বোঝার মতো কেউ ছিল না।

তিনি বলেন, আমরা শারীরিক রোগকে যতটা সহজে মেনে নেই, মানসিক রোগের ক্ষেত্রে সেটা হয় না। নিজের অজান্তেই পারিপার্শ্বিক কোনো ঘটনা আমাদের মধ্যে প্রবল প্রভাব ফেলতে পারে। বাইরে থেকে বোঝা যায় না কে অবসাদগ্রস্ত, কে নয়। পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের এই দিকটা খেয়াল রাখতে হয়।

মনোবিদ সন্দীপ্তা সেন বলেন, করোনাকালে ডিপ্রেশন, অস্থিরতা, ইনসিকিউরিটি, নেগেটিভ ইমোশনস অবচেতনমনে জায়গা করে নিয়েছে। কেউ তা সামলে উঠতে পারে, কেউ পারে না। তখন সুইসাইড করে।

তিনি বলেন, কিছুদিন আগেও মানুষ তিন মিনিটের ভিডিও ধৈর্য ধরে দেখত। এখন আর দেখে না। ধৈর্য ও অপেক্ষা আজকের মানুষের জীবন থেকে চলে গেছে বা কমে গেছে।

এই মনোবিদ আরও বলেন, আর্থিক চাপের কারণেও কেউ কেউ আত্মহননের পথ বেছে নেন। এই চাপ এড়াতে বাজেটের মধ্যে চলার অভ্যাস করতে হবে, কমাতে হবে চাহিদাও।

উল্লেখ্য, সুশান্ত সিং রাজপুত, জিয়া খানের মতো সেলিব্রেটিকে অকালে হারানোর ক্ষত আজও দগদগে বলিউডে। সম্প্রতি সেই প্রবণতা দেখা দিয়েছে টালিপাড়াতেও। চলতি বছরের ১৫ মে নিজের ফ্ল্যাট থেকে ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করা হয় অভিনেত্রী পল্লবী দের। ঠিক ১০ দিনের মাথায় মেলে মডেল-অভিনেত্রী বিদিশা দে মজুমদারের মরদেহ। একই দিন ভারতের জম্মু কাশ্মীরে গুলিতে ঝাঁঝরা করে দেওয়া হয় টিভি শিল্পী আমরিন ভাটকে।

এই ঘটনার পরেই দিন ২৬ মে দক্ষিণ কলকাতার হাজরার কাছে দুর্ঘটনার কবলে পড়েন টালি অভিনেত্রী অন্যন্যা গুহ। তার চলন্ত গাড়ির ওপর ভেঙে পরে রাস্তার পাশের গাছ। ভাগ্য ভালো, প্রাণে বাঁচেন তিনি। এর ২৪ ঘণ্টা যেতে না যেতেই ২৭ মে ঘর থেকে উদ্ধার হয় বিদিশার বান্ধবী মডেল অভিনেত্রী মঞ্জুষা নিয়োগীর মরদেহ।

এর তিনদিন পর ৩০ মে আত্মহত্যা করেন আরেক মডেল ও মেকআপ শিল্পী সরস্বতী দাস। গত ২৫ জুন ঘুমের ওষুধ খেয়ে আত্মহত্যা করেন মডেল-অভিনেত্রী দেবলীনা দে।

এরপর গতকাল ১৭ জুলাই কলকাতায় আরেক উঠতি মডেলের মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। ১৯ বছর বয়সী ওই মডেলের নাম পূজা সরকার। গলায় গামছা প্যাঁচানো অবস্থায় যে ফ্ল্যাট থেকে তার ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করা হয় সেখানে তিনি তার ছেলেবন্ধুর সঙ্গে থাকতেন।

সোনালী/জেআর