ঢাকা | মে ২৭, ২০২৪ - ৩:২০ পূর্বাহ্ন

‘স্বপ্নরাজ’ কে নিয়ে দেখা স্বপ্ন স্বপ্নই থেকে গেলো

  • আপডেট: Sunday, July 17, 2022 - 11:06 pm

কলিট তালুকদার, পাবনা থেকে: ‘স্বপ্নরাজ’ সাদা-কালো ডোরাকাটা ফিজিয়ান জাতের ষাঁড়। ষাঁড়টিকে ঘিরে অনেক স্বপ্ন দেখেছিলেন খামার মালিক। যে কারন খামার মালিক পাবনার চাটমোহর উপজেলার হান্ডিয়াল ইউনিয়নের বাঘলবাড়ী মধ্যপাড়া গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য মোজাম্মেল হক বাবু ষাঁড়টির নাম দিয়েছিল ‘স্বপ্নরাজ’।

কিন্তু তার সেই স্বপ্ন স্বপ্নই থেকে গেলো। ৩৬ মণ ওজনের সেই ষাঁড়ের দাম তিনি চেয়েছিলেন ২০ লাখ টাকা। কিন্তু তার সেই স্বপ্ন পূরণ হয়নি। মাত্র পাঁচ লাখ ৫ হাজার টাকায় বিক্রি করতে হয়েছে ‘স্বপ্নরাজ’ কে। এরপর থেকে হতাশায় ভুগছেন খামারি মোজাম্মেল হক বাবু।

খামারি বাবু বলেন, “অনেক স্বপ্ন দেখেছিলাম ‘স্বপ্নরাজ’ কে নিয়ে। সব স্বপ্ন ভেঙ্গে গেছে আমার। তিনবেলা ১৭ থেকে ১৮ কেজি স্বাভাবিক সুষম খাবারের পাশাপাশি তিনবেলা নাস্তা হিসেবে আপেল, কলা, আঙুরসহ নানা ফলমূল খাওয়ানো হতো স্বপ্নরাজকে।

‘ঈদের আগে বাড়িতে থেকেই ষাঁড়টি বিক্রি করার চেষ্টা করেছি। কিন্তু হয়নি। ঈদের ৫ দিন আগে স্বপ্নরাজকে ঢাকার গাবতলী পশুরহাটে বিক্রির জন্য নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে কাঙ্খিত দাম না ওঠায় ঈদের আগের দিন ৯ জুলাই শনিবার বাধ্য হয়ে স্বপ্নরাজকে মাত্র ৫ লাখ ৫ হাজার টাকায় বিক্রি করে বাড়ি ফিরি। এর মধ্যে ঢাকায় নেওয়া থেকে শুরু করে বিক্রির আগ পর্যন্ত ষাঁড়টির পেছনে খরচ হয়েছে ৪০ হাজার টাকা।

দাম না পাওয়ার কারণ হিসেবে খামারি মোজাম্মেল হক বাবু বলেন, এখন বড় গরুর চাহিদা নেই। সবার চাহিদা এখন মাঝারি ও ছোট সাইজের গরু দিকে। যে কারণে কাঙ্খিত দাম পাওয়া যায়নি। অনেক বিষয় চিন্তা ভাবনা করে লোকসান জেনেও স্বপ্নরাজকে বিক্রি করতে বাধ্য হয়েছি ।

তিনি আরো বলেন, এখন থেকে ছোট ও মাঝারি সাইজের গরু লালন পালন করে বিক্রি করবো। এতে যেমন দ্রুত বিক্রি হবে লোকসান নিয়েও চিন্তা করতে হবে না।