ঢাকা | মে ১৯, ২০২৪ - ৫:০২ পূর্বাহ্ন

তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণে ব্যবস্থা নেয়া জরুরি

  • আপডেট: Sunday, July 17, 2022 - 11:31 pm

প্রতি বছরই তাপমাত্রা বাড়ছে রাজশাহীতে। আবহাওয়া অফিসের হিসাবে তাপমাত্রা বাড়ছে এক ডিগ্রি করে। অন্যদিকে বৃষ্টিপাত কমেছে। গত বছরের চেয়ে এক আষাঢ় মাসেই বৃষ্টি কমেছে ৩১৪ দশমিক ৯৮ মিলিমিটার। গত বছর বৃষ্টিপাতের সময় তাপমাত্রা ছিল ৩২ থেকে ৩৪ ডিগ্রির ঘরে। আর এই বছর বৃষ্টিপাত না হওয়ার কারণে ৩৬ থেকে ৩৮ ডিগ্রিতে ওঠানামা করছে রাজশাহীর তাপমাত্রা। যা দেশের সবচেয়ে উষ্ণতম অঞ্চল হয়ে উঠেছে।

গত আষাঢ় মাসে বৃষ্টি হয়েছিল ২৫ দিন। এ বছর হয়েছে মাত্র আট দিন। গত বছর ৩৫৪ মিলিমিটার বৃষ্টি হলেও এ বছর হয়েছে মাত্র ৩৯ দশমিক দুই মিলিমিটার। বৃষ্টিপাত কমেছে প্রায় ৮৯ শতাংশ। বৃষ্টিপাত কমার কারণ হিসেবে জলবায়ু পরিবর্তনকেই দায়ি করেছেন আবহাওয়াবিদরা। সুনির্দিষ্টভাবে তারা বলেছেন, রাজশাহীতে যে পরিমাণ গাছ লাগানো হচ্ছে কাটা হচ্ছে তার চেয়ে বেশি। অন্যদিকে নদ-নদীর নাব্যতা কমেছে। পুকুর, খাল-বিল ভরাট হয়ে গেছে। ওইসব কিছুই জলবায়ুর ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে। ফলে আবহাওয়ার খাম-খেয়ালিপনা বেড়েছে।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণাতেও একই অবস্থা ধরা পড়েছে। পরিবেশবিদ্যা বিভাগের গবেষণাতে গত ৩৪ বছরে মার্চ থেকে জুলাই মাসে তাপপ্রবাহের সময়কাল ক্রমাগত বেড়ে চলার প্রমাণ মিলেছে। প্রতিমাসে তাপমাত্রা বৃদ্ধির প্রবণতায় উষ্ণতা আরও বৃদ্ধির কথাও বলা হয়েছে। ভূগোল ও পরিবেশবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ও একই কথা বলেছেন। তিনিও বলেছেন, রাজশাহী অঞ্চলে তাপমাত্রা বৃদ্ধির কারণ জলাশয় ও পুকুর ভরাট, বৃক্ষ নিধন, বহুতল ভবন নির্মাণের সংখ্যা বৃদ্ধি। এমন সব কারণের পেছনে কাজ করেছে মানুষ। বিশ্বব্যাপী জলবায়ু পরিবর্তনের পেছনে মানুষের পদক্ষেপই যে দায়ি এতে সন্দেহ নেই।

তাই তাপমাত্রা বৃদ্ধির গতি নিয়ন্ত্রণে পরিকল্পিত ব্যবস্থা গ্রহণের ওপর জোর দিয়েছেন আবহাওয়াবিদ ও পরিবেশ বিজ্ঞানীরা। পরিবেশবান্ধব উন্নয়ন নিশ্চিত না হলে পরিস্থিতি ভয়াবহ হতে পারে, এমন আশঙ্কা হাল্কা করে দেখার সুযোগ নেই।