ঢাকা | মে ২৭, ২০২৪ - ৩:৪৮ পূর্বাহ্ন

জাজিরা প্রান্তে স্মরণকালের বৃহত্তম জনসভা

  • আপডেট: Saturday, June 25, 2022 - 1:22 pm

অনলাইন ডেস্ক:  পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান ঘিরে শুক্রবার চলছিলো শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি। মাওয়া প্রান্তে আজ হবে সুধীসমাবেশ; আর জাজিরা প্রান্তে মাদারীপুরের শিবচরে হবে স্মরণকালের বৃহত্তম জনসভা। এসব আয়োজনের প্রস্তুতি ঘিরে নেয়া হয়েছে বাড়তি নিরাপত্তা।

শনিবার সকাল ১০টায় সুধীসমাবেশে যোগ দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মাওয়া প্রান্তে পদ্মা সেতুর ফলক উন্মোচনের পর টোলপ্লাজায় টোল দিয়ে পদ্মা সেতু পাড়ি দিয়ে জাজিরা প্রান্তে যাবেন তিনি।

মাওয়া প্রান্তের সুধীসমাবেশ ঘিরে সাজসাজ রব বিরাজ করছে। রং-বেরঙের ব্যানার-ফেস্টুনে ছেয়ে গেছে গোটা পদ্মা সেতু এলাকা। আর মাদারীপুরের শিবচরে স্মরণকালের বৃহত্তম জনসভা আয়োজনের প্রস্তুতি নিয়েছে আওয়ামী লীগ।

শুক্রবার চলেছে ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা। জোরেশোরে চলছিলো মঞ্চ বানানো ও আনুষঙ্গিক কাজ। সেই অনুযায়ী বর্ণিল আয়োজনও করা হয়েছে। এ সমাবেশে যোগ দিতে দক্ষিণের জেলাগুলো থেকে বিপুল জনসমাগম হবে বলে আশা করা হচ্ছে। পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী এই জনসভাকে ঘিরে এক্সপ্রেসওয়ে অসংখ্য ফেস্টুন দিয়ে সজ্জিত করা হয়েছে। ফরিদপুরের ভাঙ্গা থেকে পদ্মা সেতুর জাজিরা প্রান্তের টোল প্লাজা পর্যন্ত এক্সপ্রেসওয়ে হাজার হাজার ফেস্টুনে ভরে গেছে।

এছাড়া টোল প্লাজা থেকে পাঁচ্চর পর্যন্ত পদ্মা সেতুর অ্যাপ্রোচ সড়কে দেড় ডজন তোরণ নির্মাণ করা হয়েছে। তোরণ, ফেস্টুন ছাড়াও ঘাট ও আশপাশ এলাকায় পোস্টার, ব্যানার, বড় আকৃতির ফেস্টুনের ছড়াছড়ি। সব মিলিয়ে পদ্মা সেতুর উদ্বোধনকে ঘিরে বর্ণিল উৎসব বইছে মাদারীপুরের শিবচর উপজেলার বাংলাবাজার ফেরিঘাটসহ পুরো জেলায়।

সুধীসমাবেশে বিভিন্ন দেশের কূটনীতিক ও দেশের গণ্যমান্য ব্যক্তিরা যোগ দেবেন।

এদিকে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান ঘিরে পদ্মা সেতু এলাকায় বাড়তি নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর মহড়া চলছিলো সেখানে। এছাড়া জাতীয় পতাকা নিয়ে সেনাবাহিনীর হেলিকপ্টার মহড়ার পাশাপাশি বিমান মহড়া দিয়েছে বিমানবাহিনী।