ঢাকা | এপ্রিল ২০, ২০২৪ - ১২:০১ পূর্বাহ্ন

মোহনপুর সহকারী জজ আদালতের আদেশ ও রায় অনলাইনে

  • আপডেট: Tuesday, June 21, 2022 - 10:17 pm

স্টাফ রিপোর্টার: আধুনিক প্রযুক্তির কল্যাণে পরিবর্তনের হাওয়া লেগেছে আদালতপাড়ায়। সম্প্রতি রাজশাহীর মোহনপুর উপজেলায় সহকারী জজ আদালতের বিভিন্ন আদেশ ও রায় প্রকাশিত হচ্ছে অনলাইনে। ইতিমধ্যেই এই উদ্যোগ আদালত সংশ্লিষ্টদের প্রশংসা কুড়িয়েছে।

ইন্টারনেট সংযুক্ত যে কোন ডিজিটাল ডিভাইস থেকে এ আদালতের নামীয় ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে প্রকাশিত পূর্ণাঙ্গ আদেশ ও রায় দেখার সুযোগ রয়েছে। নিজ প্রচেষ্টা আর উদ্যোগে এমনই এক পরিবর্তনের ধারা সূচনা করেছেন এই অধস্তন আদালতের বিচারক বিজ্ঞ সহকারী জজ আব্দুল মালেক।

আদালতের নামীয় ওয়েবসাইট (Civil Court (Mohonour), Rajshahi) থেকে জানা যায় যে, উপর্যুক্ত আদালতের দেওয়ানী ও পারিবারিক মামলার পূর্ণাঙ্গ রায় এবং অন্তবর্তীকালিন বা অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞাসহ বিভিন্ন দরখাস্ত ও প্রতিবেদন বিষয়ে দেয়া গুরুত্বপূর্ণ আদেশসমূহ অনলাইনে প্রকাশ হচ্ছে। ফলে, আইনজীবী, আইনজীবী ক্লার্ক, ও বিচারপ্রার্থী জনগণ আদালতে না এসেই চলমান মামলার আদেশ ও নিষ্পত্তিকৃত মামলার রায়ের বিষয়ে বিস্তারিত ভাবে জানতে পারছে মাত্র দুই একটি ক্লিকেই।

আদালতের কোন আদেশ বা রায় কিসের ভিত্তিতে দেয়া হলো, অথবা সংক্ষুব্ধ ব্যক্তি কোন আদেশ বা রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপীল বা রিভিশন দায়ের করবেন কি না, এসব বিষয়ে জানতে হলে নকলের আবেদন করতে হয়। আর এই নকল প্রাপ্তির আবেদন প্রক্রিয়া আইন-আদালত সম্পর্কে ধারণা না থাকা একজন বিচারপ্রার্থীর জন্যে ব্যয়সাধ্য ও সময় সাপেক্ষ। আর এই কারণেই, মামলার আদেশ বা রায় অনলাইনে দেখতে পাওয়া গেলে আইনজীবী ও বিচার প্রার্থী জনগণ ঘরে বসেই তৎক্ষণাৎ এ সম্পর্কে অবগত হতে পারছেন।

এ সম্পর্কে জানতে চাইলে রাজশাহী অ্যাডভোকেট বার সমিতির সাধারণ সম্পাদক পারভেজ তৌফিক জাহেদী মোহনপুর সহকারী জজ আদালতের এমন ব্যতিক্রমী চর্চাকে এক মাইলফলক হিসেবে উল্লেখ করে বলেন, ‘আইন বলছে আদালতকে হতে হবে জনসাধারণের জন্যে উন্মুক্ত, মানে শুধু আদালত কক্ষ না, আদালতের পূর্ণাঙ্গ রায়ও এর অন্তর্ভুক্ত। নকল উত্তোলনের পূর্বেই যদি তা অনলাইনে দেখা যায়, তাহলে আদালতের নিরপেক্ষতা ও গৃহীত সিদ্ধান্তের যৌক্তিকতা সম্পর্কে মানুষ যেমন সম্যক ধারণা লাভ করতে পারবে, তেমনই আদালতের প্রতি তাদের আস্থা ও শ্রদ্ধা বৃদ্ধি পাবে।’

রাজশাহী বারের অ্যাডভোকেট এজাজুল হক মানু এ বিষয়ে অভিমত প্রকাশ করেন অনলাইনে প্রকাশিত নিম্ন আদালতের এরূপ কার্যক্রম নবীন বিচারক, গবেষক, ও আইনের শিক্ষার্থীদের জন্যেও কাজে আসবে। তিনি এই পদ্ধতিটি চমৎকার এক বিচারিক সেবা প্রদানের উদাহরণ হিসেবে আখ্যা দিয়ে বলেন, অনলাইনে রায় প্রকাশিত হলে বিচারকার্যের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতকরণের মাধ্যমে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় ভূমিকা রাখবে বলে আমার দৃঢ় বিশ্বাস। এতে করে ভুক্তভুগীদের ন্যায়বিচারে প্রবেশাধিকার পাওয়ার পথ সহজতর হবে।

এ আদালতের ওয়েবপেজে ‘গুগল ট্রান্সলেটর’ সংযুক্ত করা আছে, যার মাধ্যমে প্রকাশিত মূল আদেশ ও রায় সমূহ ইংরেজি ভাষায় প্রদান করা হলেও, সহজেই তা বাংলা সহ অন্যান্য বহু ভাষায় রূপান্তর করা সম্ভব। এদিকে আদালত সংশ্লিষ্টরা বলছে মহামান্য সুপ্রিম কোর্টের আদেশ ও রায় অনলাইনে প্রকাশ করার রেওয়াজ থাকলেও কোন অধস্তন আদালতের পূর্ণাঙ্গ আদেশ ও রায় অনলাইনে প্রকাশ করার মত ঘটনা বিরল সেক্ষেত্রে এ আদালতের কার্যক্রম উজ্জ্বল এক দৃষ্টান্ত। সুতরাং, বিচার সংশ্লিষ্টরা মনে করেন, আদালতের এমন ব্যতিক্রমী কার্যধারা বৃদ্ধি পেলে দেশের প্রান্তিক পর্যায়ের মানুষেরাও সাইবার-জাস্টিসের সুফল পেতে সক্ষম হবেন। এ অধস্তন আদালতের আদেশ ও রায় দেখতে প্রবেশ করুন এই লিঙ্কে

https://mohonpurcivilcourt.blogspot.com